ঢাকা | শনিবার | ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ | ৪ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১ সফর, ১৪৪২ | English Version | Our App BN | বাংলা কনভার্টার

  • Main Page প্রচ্ছদ
  • করোনাভাইরাস
  • বিদেশ
  • বাংলাদেশ
  • স্বদেশ
  • ভারত
  • অর্থনীতি
  • বিজ্ঞান
  • খেলা
  • বিনোদন
  • ভিডিও ♦
  • ♦ আরও ♦
  • ♦ গুরুত্বপূর্ণ লিংক ♦
    • NBS » ৪ শিরোনাম » ইসরাইল ফসফরাস বোমা ব্যবহার করেছে দক্ষিণ লেবাননে


    ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

    আমি ছেলেকে কোরআনে হাফেজের সাথে ক্রিকেটার বানাবো
    এনবিএস | Tuesday, September 15th, 2020 | প্রকাশের সময়: 9:29 am

    আমি ছেলেকে কোরআনে হাফেজের সাথে ক্রিকেটার বানাবো

     

    অনলঅইন ডেস্ক- রক্তে তার খেলাধূলা। ভাই রোকনুজ্জামান কাঞ্চন জাতীয় দলের সাবেক কৃতি স্ট্রাইকার। আরো দুই ভাইও ছিলেন ফুটবলার। সাত বোনের মধ্যে অন্য দুই বোনও খেলাধূলা করতেন। আর ঝর্ণা আক্তার চিনি নিজেও ছিলেন অ্যাথলেট। জানেন একটি ছেলের খেলোয়াড় হওয়ার উপকারীতা কতটুকু। তাই ছেলে শেখ ইয়ামিন সিনানকে ভর্তি করিয়েছেন পল্টন ময়দানস্থ কবি নজরুল ক্রিকেট অ্যাকাডেমীতে। সে সাথে সুযোগ পেলেই ছেলের সাথে ব্যাট বল নিয়ে নেট প্র্যাকটিসে নেমে পড়েন ঝর্না। এভাবেই আলোচিত এই মা ও ছেলে। প্রচণ্ড ধর্মপ্রাণ এবং পর্দানশীন ঝর্নার লক্ষ্য এক মাত্র ছেলেকে ক্রিকেটারের পাশাপাশি কোরআনে হাফেজ বানানো।

     

    অ্যাথলেটিক্সে ঝর্না অংশ নিতেন ২শ’, ৪শ’ মিটার স্প্রিন্ট, শটপুট, ডিসকাস এবং লং জাম্পে। পুরোপুরি পর্দানশীন হন বিয়ের পর। তা মরহুম শ্বশুড়ের উৎসাহে। বিয়ের পর খেলাধূলা করেছেন ঝর্না। তখন শ্বশুড়ের একটাই কথা ছিল, ক্রীড়ার পাশাপাশি তোমাকে পর্দা করতেই হবে। এখন ঝর্নার উপলব্ধি, ‘হিজাব পড়ার পর আমার সম্মান আরো বেড়েছে। গাড়ীতে উঠলে আমাকে সিট ছেড়ে দেয়া হয়। কেউ কোনো বাজে মন্তব্য করে না।’ এই হিজাব পড়েই ছেলের সাথে ক্রিকেটে মেনে উঠেন ঝর্না। জানান, ‘সকালে আমি আর সিনান যখন নেটে পরস্পরের বিপক্ষে বল করি তখন শর্ত থাকে, আমি আউট হলে সে ব্যাট করবে। আর সে আউট হলে আমি।’

     

    ঝর্না থাকেন মিরপুর শ্যাওড়াপাড়ায়। আর ছেলেকে ভর্তি করিয়েছেন মতিঝিল আরামবাগের আল করিম ইন্টারন্যাশনাল মাদ্রাসায়। এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চতুর্থ শ্রেনীর ছাত্র ১১ বছর বয়সী সিনান। মাদ্রাসা থেকে মাঠে এসে পায়জামা পাঞ্জাবী খুলেই ক্রিকেটের ড্রেস পরে নেন সিনান। ক্ষুদে এই ক্রিকেটারের প্রিয় বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম। অবশ্য সিনানের ইচ্ছে লেগ স্পিনার হওয়া। যদিও মায়ের ইচ্ছে ছেলে যেন অল রাউন্ডার হয়। ঝর্নার বক্তব্য, ‘আমি চাই আমার ছেলে অলরাউন্ডার হোক। যাতে কোনো অংশে কমতি না থাকে। আমার প্রত্যাশা সিনান যেন বাংলাদেশ দলে খেলে।’ যোগ করেন, আমি চাই আমার ছেলে প্রকৃত মুসলমান হোক। এ জন্য তাকে কোরআনে হাফেজও বানাবো। সোমবার বিকেলে যখন পল্টন ময়দান খ্যাত আউটার স্টেডিয়ামে কথা হচ্ছিল ঝর্না আক্তার আসরের নামাজ পড়ার জন্য তৈরী হচ্ছিলেন। ছিলেন রোজাও।

     

    জানান, ‘আমি নবীজী ( স:) এর সাথে মিল রেখে প্রতি সপ্তাহে সোমবার ও বৃহস্পতিবার রোজা রাখি।’ এই সেপ্টেম্বরইে ছেলেকে ভর্তি করেছেন ক্রিকেট অ্যাকাডেমীতে। সাথে নিজের আফসোস তার খেলোয়াড়ী সময়ে দেশে প্রচলিত ছিল না মহিলা ক্রিকেট। ‘আমার সময়ে মহিলা ক্রিকেট থাকলে কেউ আমাকে ক্রিকেটার হওয়া থেকে ঠেকাতে পারতো না।’ বললেন ঝর্না। আরো তথ্য দেন, আমি প্রতি শুক্রবার বায়তুল মোকাররম মসিজদে জুম্মার পড়ি।

     

    মামা দেশের নামী ফুটবলার। তাহলে তুমি কেন ক্রিকেটে আসলে? সিনানেন উত্তর, ‘মামা ফুটবলার ছিলেন। কিন্তু আমি হতে চাই ক্রিকেটার।’ এখন তার ইচ্ছে একবার প্রিয় তারকা মুশফিকের সাথে দেখা করা। অবশ্য সিনানের ইঞ্জিনিয়ারিং পড়া বোনের প্রিয় ফুটবল।

     

    নয়া দিগন্ত


    আপনার মন্তব্য লিখুন...

    nbs24new3 © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
    নিউজ ব্রডকাস্টিং সার্ভিস - এনবিএস
    ২০১৫ - ২০২০

    সিইও : আব্দুল্লাহ আল মাসুম
    সম্পাদক ও প্রকাশক : সুলতানা রাবিয়া
    চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান : মোঃ রাকিবুর রহমান
    -------------------------------------------
    শাল, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
    ফোন : +৮৮ ০২ , +৮৮ ০১৭১৮ ৫৮০ ৬৮৯
    Email : news@nbs24.org, thenews.nbs@gmail.com

    ইউএসএ অফিস: ৪১-১১, ২৮তম এভিনিউ, স্যুট # ১৫ (৪র্থ তলা), এস্টোরিয়া, নিউইর্য়ক-১১১০৩, 
    ইউনাইটেড স্টেইটস অব আমেরিকা। ফোন : ৯১৭-৩৯৬-৫৭০৫।

    প্রসেনজিৎ দাস, প্রধান সম্পাদক, ভারত।
    যোগাযোগ: সেন্ট্রাল রোড, টাউন প্রতাপগড়, আগরতলা, ত্রিপুরা, ভারত। ফোন +৯১৯৪০২১০৯১৪০।

    Home l About NBS l Contact the NBS l DMCA l Terms of use l Advertising Rate l Sitemap l Live TV l All Radio

    দেশি-বিদেশি দৈনিক পত্রিকা, সংবাদ সংস্থা ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল থেকে সংগৃহিত এবং অনুবাদকৃত সংবাদসমূহ পাঠকদের জন্য সাব-এডিটরগণ সম্পাদনা করে
    সূত্রে ওই প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে প্রকাশ করে থাকেন। এ জাতীয় সংবাদগুলোর জন্য এনবিএস কর্তৃপক্ষ কোনো প্রকার দায়-দায়িত্ব গ্রহণ করবেন না।
    আমাদের নিজস্ব লেখা বা ছবি 'সূত্র এনবিএস' উল্লেখ করে প্রকাশ করতে পারবেন। - Privacy Policy l Terms of Use