ঢাকা | সোমবার | ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ৯ আশ্বিন, ১৪২৫ | ১২ মুহাররম, ১৪৪০ | রাত ১২:৩৭ | English Version | Our App BN | বাংলা কনভার্টার

  • Main Page প্রচ্ছদ
  • বিদেশ
  • বাংলাদেশ
  • স্বদেশ
  • ভারত
  • অর্থনীতি
  • বিজ্ঞান
  • খেলা
  • বিনোদন
  • চাকরির সংবাদ
  • ♦ আরও ♦
  • ♦ গুরুত্বপূর্ণ লিংক ♦
  • Space For Advertisement (Spot # 2) - Advertising Rate Chart



    ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

    এই ৪ কারনে মুস্তাফিজের বোলিংয়ে ধার কমে গেছে
    এনবিএস | মঙ্গলবার, মার্চ ১৩, ২০১৮ | প্রকাশের সময়: ৮:৩৭ অপরাহ্ণ

    এই ৪ কারনে মুস্তাফিজের বোলিংয়ে ধার কমে গেছেএই ৪ কারনে মুস্তাফিজের বোলিংয়ে ধার কমে গেছে

    প্রথম বাংলাদেশি বোলার হিসেবে আইসিসির সেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের পুরস্কার জেতা মোস্তাফিজের বোলিংয়ে সেই ঝাঁজ আর নেই। ২০১৫ সালে অভিষেকের পর থেকে পরের বছর আইপিএল। মাত্র ১২ মাসের ঝলক।

    এর পর থেকেই বোলিংয়ে ধার ক্রমাগতভাবে কমেই যাচ্ছে। কেন পারছেন না মোস্তাফিজুর রহমান? কোটি টাইগার সমর্থকের প্রশ্ন একটাই। যেই মোস্তাফিজ বল হাতে নিলেই টাইগার সমর্থকরা আস্থা খুঁজে পেতেন সেই মোস্তাফিজ যেন এখন একেবারে সাদামাটা একজন বোলার।

    বোলিংয়ে ধারতো নেই ঠিকমত কাজ করছে না কাটার আর ইয়র্কারগুলোও। কেন এমন হলো? কেন এই ছন্দ পতন। খেলাধুলা বিভাগের গবেষণায় উঠে এসেছে ৪ টি কারণ-

    প্রথমত, বিশ্বে আজ অবদি কোন বোলারই কোন একটি বিশেষ অস্ত্র দিয়ে বিশ্ব শাষণ করতে পারেন নি। যার সবচেয়ে বড় উদাহরণ অজন্তা মেন্ডিস। মোস্তাফিজও অনেকটা ওরকমই। খুব বেশি কাটার নির্ভর। তাই তার কাটারগুলো ব্যাটসম্যানরা পড়ে ফেলতে পেরেছে বলেই তার বলে আগের মত উইকেট পড়ছে না। তার অন্য ডেলিভারী গুলো একেবারেই সাদামাটা। যেগুলোতে ব্যাটসম্যানরা আরামছে বাউন্ডারী আদায় করতে পারেন।

    দ্বিতীয়ত, কোচের ভুমিকা। মোস্তাফিজ যখন জাতীয় দলে আসেন কোচ ছিলেন হিথ স্ট্রিক। যিনি এক্সপ্রেস ফাস্ট বোলার ছিলেন না তবে খুব কার্যকর মিডিয়াম পেস বোলার ছিলেন। গতির চেয়ে সুইং, স্লোয়ার, ইয়র্কার এই কাজগুলোতে হিথ স্ট্রিকের কোন তুলনা ছিলো না। তিনি চলে যাওয়ার পর গতি দানব কোর্টনি ওয়ালশ আসেন।

    এর পর থেকেই বাংলাদেশি ফাস্ট বোলারদের দরদূশা শুরু হয়। কারণ বাংলাদেশে কেউই ৯০ মাইল গতিতে বল করেন না। কিংবা গতি আর বাউন্স দিয়ে প্রতিপক্ষকে ভড়কে দেয়ার মত না। ওয়ালশের শক্তির জায়গা ছিলো এসবই। যে কারণে মনস্তাত্বিকভাবে তার শিষ্যদের গতিময় বোলার বানানোর চেষ্টা করেন – আর তাতেই ছন্দ পতন।

    তৃতীয়ত, ইনজুরি। ক্যারিয়ার শুরু হতে না হতেই এক বছরের মাথায় ইনজুরিতে পরে মোস্তহাফিজের আত্মবিশ্বাসে চিড় ধরে গেছে। সেখান থেকে বেড়িয়ে আসতে একটু সময় লাগবে।

    চতুর্থ, একটা সময় মোস্তাফিজ কাটার ছাড়াও আরও একটা শক্তির জায়গা ছিলো। সেটা হলো ইয়র্কার। অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপের সময় এমনও হতো সে ওভারে ৪ থেকে ৫ টা ইয়র্কারও করতে পারত। কিন্তু শক্তির সেই জায়গাটাও নরবড়ে হয়ে গেছে। প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানরা অাগে থেকেই পড়ে ফেলতে পারছেন হয় কাটার আসবে নয়ত তো সাধারণ বল আসবে।

    এইখানে আরও কিছু যোগ করতে হবে। স্লোয়ার, নাকাল বল, ইয়র্কার, ইনসুয়িং, আইট সুইং এবং রিভার্স সুইং। এই সবগুলো অস্ত্র যদি আয়ত্বে আনতে পারে তাহলে যতদিন খেলবেন ততদিনই রাজত্ব করে যেতে পারবেন।

    গ্রেট ফাস্ট বোলাররাও এরকমই বৈচিত্রময় বোলিং করতেন। ওয়াসিম, ওয়াকার, চামিন্দা ভাস সবাই ছিলেন বৈচিত্রময় ফাস্ট বোলার। শুধূ কাটার দিয়ে আসলে মিডার্নডে ক্রিকেটে টিকে থাকা সম্ভব নয়।

    তাই মোস্তাফিজকে শিখতে হবে আরও। সেজন্য হিথ স্ট্রিক, ওয়াসিম আকরাম কিংবা চামিন্দা ভাসের মত গুরু পেলে ভালো হয়্ ২ বছরেও যেহেতেু ওয়ালশ আমাদের ফাস্ট বোলারদেরকে কিছু শেখাতে পারেন নি তাকে আরও সময় দেয়াটা হবে বোকামি।

    উপমহাদেশের ফাস্ট বোলারদের সামর্থ্য বোঝতে পারে এমন কাউকেই বোলিং কোচ করা উচিৎ। শুধু নাম আর ক্যারিয়ার দেখে কাউকে কোচ করলে তো হবে না।


    Delicious Save this on Delicious

    nbs24new3 © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
    নিউজ ব্রডকাস্টিং সার্ভিস - এনবিএস
    ২০১৫ - ২০১৮

    উপদেষ্টা সম্পাদক : এডভোকেট হারুন-অর-রশিদ
    প্রধান সম্পাদক : মোঃ তারিকুল হক, সম্পাদক ও প্রকাশক : সুলতানা রাবিয়া,
    প্রধান প্রতিবেদক : এম আকবর হোসেন, বিশেষ প্রতিবেদক : এম খাদেমুল ইসলাম
    চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান : মোঃ রাকিবুর রহমান
    ৩৯, আব্দুল হাদি লেন, বংশাল, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
    ফোন : +৮৮ ০২ ৭৩৪৩৬২৩, +৮৮ ০১৭১৮ ৫৮০ ৬৮৯
    Email : [email protected], [email protected]

    ইউএসএ অফিস: ৪১-১১, ২৮তম এভিনিউ, স্যুট # ১৫ (৪র্থ তলা), এস্টোরিয়া, নিউইর্য়ক-১১১০৩, 
    ইউনাইটেড স্টেইটস অব আমেরিকা। ফোন : ৯১৭-৩৯৬-৫৭০৫।

    প্রসেনজিৎ দাস, প্রধান সম্পাদক, ভারত।
    ভারত অফিস : সেন্ট্রাল রোড, টাউন প্রতাপগড়, আগরতলা, ত্রিপুরা, ভারত। ফোন : +৯১৯৪০২১০৯১৪০।

    Home l About NBS l Contact the NBS l DMCA l Terms of use l Advertising Rate l Sitemap l Live TV l All Paper

    দেশি-বিদেশি দৈনিক পত্রিকা, সংবাদ সংস্থা ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল থেকে সংগৃহিত এবং অনুবাদকৃত সংবাদসমূহ পাঠকদের জন্য সাব-এডিটরগণ সম্পাদনা করে
    সূত্রে ওই প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে প্রকাশ করে থাকেন। এ জাতীয় সংবাদগুলোর জন্য এনবিএস কর্তৃপক্ষ কোনো প্রকার দায়-দায়িত্ব গ্রহণ করবেন না।
    আমাদের নিজস্ব লেখা বা ছবি 'সূত্র এনবিএস' উল্লেখ করে প্রকাশ করতে পারবেন। - Privacy Policy l Webmail