ঠাকুরগাঁওয়ে নানা আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপন
Breaking News
Home » বাংলাদেশ » ঠাকুরগাঁওয়ে নানা আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপন

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

ঠাকুরগাঁওয়ে নানা আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপন
এনবিএস | শনিবার, এপ্রিল ১৪, ২০১৮ | প্রকাশের সময়: ১১:১১ অপরাহ্ণ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ আজ শনিবার, ১৪ এপ্রিল ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ। বাংলা বছরের প্রথম মাস বৈশাখ এর পহেলা দিন আজ। বছর ঘুরে আবার ফিরে এলো বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ। বাঙালি দের বিভিন্ন উৎসবের মধ্যে এই পহেলা বৈশাখ অন্যতম।

সারা দেশের ন্যায় ঠাকুরগাঁও জেলার ৫ টি উপজেলার ৫৪ টি ইউনিয়নের সকল স্তরের মানুষ পহেলা বৈশাখে নতুন বাংলা বছরকে স্বাগত জানাতে সারা দিন ব্যাপী নানা আয়োজনের উদ্যোগ নেয়। পুরনো বছরকে বিদায় জানিয়ে নতুন বছরের প্রথম দিন নব উল্লাসে মেতে উঠেছিল ঠাকুরগাঁও জেলাবাসী।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসন থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ তাই বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে প্রতিবারের মতো এবারো বিভিন্ন আয়োজনে নতুন বছর বাংলা নববর্ষ-১৪২৫ উদযাপন করল।

এবারে অনুষ্ঠানের মধ্যে ছিল মঙ্গল শোভাযাত্রা, বৈশাখী গান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পান্তা ভাত উৎসব। এছাড়াও জেলা শিল্পকলা একাডেমী ও শিশু একাডেমীতে শিশুদের নৃত্য, চিত্রাঙ্কন, কবিতা আবৃতির আয়োজন করা হয়। পরে বিজয়ী শিশুদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শনিবার সকালে কালেক্টর চত্বর বটমুলে বৈশাখী গানের মধ্যদিয়ে দিবসের সূচনা করা হয়। পরে সেখান থেকে একটি মঙ্গল শোভাযাত্র বেড় হয়। শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ঠাকুরগাঁও স্টেশন ক্লাবে গিয়ে শেষ হয়।

শোভাযাত্রায় উপস্থিত ছিলেন, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক আখতারুজ্জামান, জেলা প্রশাসক সার্বিক জহুরুল ইসলাম, জেলা ক্রিড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান বাবু সহ সরকারি-বেসরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা। শোভাযাত্রা শেষে স্টেশ ক্লাবে ঐতিহ্যবাহী বাঙালি খাবার পরিবেশন করা হয়।

এছাড়াও জেলার বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে সারা দিন ব্যাপি নানা কর্মসুচির উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছিল। এতে পুলিশ সুপার ফরহাদ আহমেদ এর উদ্যোগে শহরে একটি ব্যাতিক্রম র‌্যালি বের হয়। এতে জেলা পুলিশের কর্মকর্তা ও সংবাদকর্মীরাসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেয়। ঠাকুরগাঁও পুলিশ লাইনে দেশি খাবার আয়োজন করা হয়েছিল। তাঁর মধ্যে মুড়ি, গুড়, নাড়ু, বাতাসা ইত্যাদি অন্যতম।

এ ছাড়াও নতুন বছরকে বিভিন্ন উৎসাহ উদ্দীপনার মাধ্যমে পালন করেন জেলার সর্বস্তরের মানুষ।

 

 

Posted by: Kamrul Hasan

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Translate »