ঢাকা | বৃহস্পতিবার | ১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ৫ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ হিজরী | English Version | Our App BN | বাংলা কনভার্টার

  • Main Page প্রচ্ছদ
  • বিদেশ
  • বাংলাদেশ
  • স্বদেশ
  • ভারত
  • অর্থনীতি
  • বিজ্ঞান
  • খেলা
  • বিনোদন
  • চাকরির সংবাদ
  • ♦ আরও ♦
  • ♦ গুরুত্বপূর্ণ লিংক ♦
  • Space For Advertisement (Spot # 2) - Advertising Rate Chart



    ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

    উপনির্বাচনে ত্রিপুরায় বিজেপি আইপিএফটি সংঘর্ষ
    এনবিএস | Wednesday, September 12th, 2018 | প্রকাশের সময়: 3:07 pm

    প্রসেনজিৎ দাস, ভারতের প্রতিনিধি :  ভারতের ত্রিপুরার কমলপুর ও ধর্মনগর,পঞ্চায়েতের উপভােটে শাসকদলীয় দুই শরিকের সংঘর্ষের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গিয়ে আক্রান্ত ও রক্তাক্ত হন খােদ ৫ পুলিশ। আইপিএফটির উগ্র সমর্থকদের হাত থেকে বাঁচতে পুলিশ শুন্যে গুলী চালিয়েও আত্মরক্ষা করতে পারেনি। আইপিএফটি সমর্থকরা ছিনিয়ে নেই পুলিশের ইনসাস রাইফেল। ঘটনাটি সংঘটিত হয় মঙ্গলবার রাতে কমলপুরের এনইসি রােডের শ্রীরামপুরে। আইপিএফটির হামলায় রক্তাক্ত হন খােদ কমলপুরের এসডিপিও শঙ্কর দাস, কমলপুর থানার ওসি মানিক দেবনাথ, সাব ইনস্পেক্টর সমরেশ দাস, এএসআই সর্বজয় রিয়াং ও কনস্টেবল অসীম দাস। পুলিশটিএসআর বাহিনী শুন্যে গুলী চালাতে চালাতে কোনওক্রমে আহতদের নিয়ে আসে কমলপুর হাসপাতালে। ঘটনায় গােটা জেলায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। ঘটনার খবর পেয়ে জেলাশাসক, পুলিশ সুপার সহ পদস্থ অফিসাররা কমলপুরে ছুটে আসে। শাসকদলের দুই শরিকের সংঘর্ষে
    উত্তাল হয়ে উঠেছে গােটা উত্তর জেলা ও ধলাই জেলা। মনােনয়নপত্র জমা দেওয়া নিয়ে শাসকদল বিজেপি-আইপিএফটি সংঘর্ষে অগ্নিগর্ভ অবস্থা নিয়ন্ত্রণে জারি করতে হয়েছে ১৪৪ ধারা। লাঠিচার্জ করতে হয়েছে। পুলিশকে। উত্তর ও ধলাই জেলায় দুইশরিকের সংঘর্ষে রক্তাক্ত হয়েছেন ন্যুনতম ৩৫ জন পােড়ানাে হয়েছে একটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে ১৪টি গাড়ি। রাতে কমলপুরের দুর্গা চৌমুহনী ব্লকের শ্রীরামপুরে আইপিএফটি দলের সমর্থকদের হামলায় আহত হয়েছেন কমলপুরের এসডিপিও শঙ্কর দাস, ওসি মানিক দেবনাথ সহ থানার পুলিশ। স্থানে স্থানে লাঠিচার্জ করতে হয়েছে। পুলিশকে। অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গলদঘর্ম হতে হচ্ছে প্রশাসনকে। নাজেহাল আমজনতা। কোথাও চিহ্নমাত্র ছিল না বিজেপি-আইপিএফটি দলের শরিকি বন্ধুত্ব। শাসকদল বিজেপি-আইপিএফটি প্রকাশ্য সংঘর্ষে আতঙ্কিত গােটা ধলাই ও উত্তর জেলা। ঘটনার জেরে দোকানপাট, গাড়ি চলাচল মুহূর্তের মধ্যে বন্ধ হয়ে যায়। ধলাই ও উত্তর জেলার বিভিন্ন স্থানে পথ অবরােধে বসে দুই শরিক দলের সমর্থকরা। এতে গােটা দিন চরমে উঠে জনদুর্ভোগ। অফিস যাত্রীরা সহ নিত্যযাত্রী আটকে পড়েন। দুইশরিকের প্রকাশ্য সংঘর্ষে গােটা জেলায় বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। গােটা এলাকায় জারি করা হয় ১৪৪ ধারা। পুলিশ জানায়, দুই শরিকের সংঘর্ষে সৃষ্টি হওয়া অগ্নিগর্ভ অবস্থা সামাল দিতে গােটা উত্তর জেলা প্রশাসন ঘটনাস্থলে হাজির হয়। ক্ষমতাসীন দুইশরিক দলের মারমুখী আক্রমণে গােটা উত্তর জেলায় অগ্নিগর্ভ অবস্থার রেশ ধরে বিভিন্ন স্থানে শুরু হয় সড়ক অবরােধ আইনশৃঙ্খলা চরম সঙ্কটের মুখে।মঙ্গলবার ছিল মনােনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিন। যুবরাজনগর ব্লকের ৮৯টি পঞ্চায়েত, ৩টি জেলা পরিষদ এবং ৫টি পঞ্চায়েত সমিতির আসনের জন্য মনােনয়ন পেশ করতে আসে আইপিএফটি দল। আইপিএফটি নেতা অনন্ত দেববর্মার নেতৃত্বে প্রায় ৩০টি গাড়ি বিভিন্ন এলাকা থেকে মিছিল করে যুবরাজনগর ব্লকের দিকে আসতে শুরু করে। মঙ্গলখালি কালিকাপুর এলাকায় বিজেপি সমর্থকদের সাথে মুখােমুখি হয়ে যায়। সামান্য কথা কাটাকাটি থেকে শুরু হয়ে যায় দক্ষযজ্ঞ। ৫ মিনিটের মধ্যেই অবস্থা আয়ত্তের বাইরে চলে যায়। দুই দলের মুখােমুখি সংঘর্ষে ১৫ জন আহত হয়। ব্যাপকভাবে গাড়ি ভাঙচুর শুরু হয়। রাস্তার পাশে দাঁড়ানাে একটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। শুরু হয় অগ্নিসংযােগের ঘটনা। ধর্মনগর থেকে ছুটে আসে অগ্নিনির্বাপক বাহিনী। আগুন নিয়ন্ত্রণে এনে আহতদের ধর্মনগর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এর মধ্যে ১৪টি গাড়ি ভাঙচুর হয়ে যায়। প্রশাসন পূর্ব থেকে সতর্ক থাকায় মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি। আইপিএফটি মনােনয়ন পেশ নিয়ে গণ্ডগােলের আশঙ্কা পূর্বেই করেছিল জেলা প্রশাসন এবং জেলা আরক্ষা প্রশাসন। সকাল আটটায় ব্লক অফিসে পৌছে যান উত্তর ত্রিপুরা জেলাশাসক ড. রেভেল হেমেন্দ্র কুমার, জেলা পুলিশ সুপার ভানুপদ চক্রবর্তী, মহকুমা পুলিশ অফিসার জ্যোতিষ্মন দাস চৌধুরী সহ প্রশাসনের অন্য আধিকারিকরা।
    প্রশাসনের কাছে সংবাদ ছিল আইপিএফটি দলীয় মনােনয়ন পেশের জন্য। কাঞ্চনপুর, দামছড়া, খেদাছড়া, মধুবন, জৌথাং সহ বিভিন্ন উপজাতি এলাকা থেকে প্রচুর সংখ্যক সমর্থক নিয়ে আসবে। সেই মােতাবেক সকালেই উত্তর জেলার সমস্ত থানাকে সতর্ক থাকার জন্য ম্যাসেজ দেওয়া হয়। এত কিছু আগাম। ব্যবস্থা নেওয়া সত্ত্বেও সংঘর্ষ এড়ানাে গেল না। ক্ষমতাসীন সরকারের দুই শরিক। দলের সংঘর্ষে উত্তর জেলা অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠে। আইপিএফটি নেতা অনন্ত দেববর্মা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, বিজেপি দলের সমর্থকরা এই গণ্ডগােল করেছে। অন্যদিকে, বিজেপি দল থেকে ঘটনার জন্য আইপিএফটিকেই দায়ী করা হয়েছে। কেননা, সন্ধ্যায় উত্তর ত্রিপুরা জেলাশাসক ভানুপদ চক্রবর্তীর সাথে যােগাযােগ করা হলে তিনি জানান, বর্তমানে অবস্থা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। যুবরাজনগরে অস্থায়ী পুলিশ চৌকি বসানাে হয়েছে। বর্তমানে অবস্থা থমথমে। এদিকে, পঞ্চায়েতের উপনির্বাচনে মনােনয়নপত্র জমা দেওয়া নিয়ে অশান্তি। মহকুমার দুর্গা চৌমুহনী ব্লকে পুলিশকে লাঠিচার্জ করতে হয়েছে। আহত হয়েছেন বহু, পথ অবরােধ হয়েছে কমলপুরআমবাসা সড়কের মহারাণীতে। মঙ্গলবার মনােনয়নপত্র জমা দেবার শেষদিন। সালেমা ও দুর্গা চৌমুহনীব্লকে ৭২টি পঞ্চায়েত আসনে ও একটি জেলা পরিষদের আসনে উপনির্বাচন হবার কথা। সিপিএম ও কংগ্রেস মনােনয়নপত্র জমা দেয়নি। অভিযােগ, জমা দিতে দেওয়া হয়নি। দুর্গা চৌমুহনী ব্লকে মনােনয়নপত্র জমা দিতে যায় আইপিএফটি কর্মী সমর্থকরা। ব্লকটিলার দুইদিকে জমায়েত হয় বিজেপি ও আইপিএফটির সমর্থকরা। শুরু হয় কথা কাটাকাটি। শেষে মারপিট। উভয়পক্ষই অভিযােগ করেছে হামলার। মন্ত্রী মনােজ কান্তি দেব ঘটনাস্থলে গিয়ে বলেছেন, যারা হামলা করেছে তারা অপরিচিত দুষ্কৃতী। | হামলায় ৩ বিজেপি কর্মী আহত হন। এরা হলেন গুহরাম ডার্লং, বিপ্লব মজুমদার ও বারীন্দ্র পাল। পুলিশের লাঠিচার্জে আহত হয়েছেন বিজেপি কর্মী নিশিকান্ত সরকার। শ্রীসরকার ও বারীন্দ্র পালকে মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। উত্তেজনা দেখা দিলে পুলিশ লাঠি চালাতে বাধ্য হয়। উভয়পক্ষকে নির্দিষ্ট দুই জায়গায় আটকে দেয়।আইপিএফটির সদস্যরা আর মনােনয়নপত্র জমা দিতে পারেননি। বেলা আড়াইটা নাগাদ এই দলের সদস্যরা মহারাণীতে জমায়েত হয়ে পথ অবরােধ শুরু করেন। কমলপুর-আমবাসা সড়ক অচল হয়ে যায়। আটকে যান নিত্যযাত্রীরা। মনােনয়নপত্র জমা দিতে না পাড়ার জন্য এই অবরােধ। পথ অবরােধ শেষ পর্যন্ত বিস্তৃত হয় কমলপুর-আমবাসা-মরাছড়া। সড়কের বিভিন্ন অংশে বহু জায়গায় মানুষ আটকে যান। একই অবস্থা হয়। খােয়াইগামী এনইসি সড়কের শ্রীরামপুরে। কমলপুর কলেজের অসংখ্য ছাত্রছাত্রী সহ প্রচুর মানুষ আটকে যান মহারাণী সংলগ্ন শান্তিরবাজারে।

       


    আপনার মন্তব্য লিখুন...
    Delicious Save this on Delicious

    nbs24new3 © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
    নিউজ ব্রডকাস্টিং সার্ভিস - এনবিএস
    ২০১৫ - ২০১৮

    উপদেষ্টা সম্পাদক : এডভোকেট হারুন-অর-রশিদ
    প্রধান সম্পাদক : মোঃ তারিকুল হক, সম্পাদক ও প্রকাশক : সুলতানা রাবিয়া,
    প্রধান প্রতিবেদক : এম আকবর হোসেন, বিশেষ প্রতিবেদক : এম খাদেমুল ইসলাম
    চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান : মোঃ রাকিবুর রহমান
    ৩৯, আব্দুল হাদি লেন, বংশাল, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
    ফোন : +৮৮ ০২ ৭৩৪৩৬২৩, +৮৮ ০১৭১৮ ৫৮০ ৬৮৯
    Email : nbs.news@hotmail.com, news@nbs24.org

    ইউএসএ অফিস: ৪১-১১, ২৮তম এভিনিউ, স্যুট # ১৫ (৪র্থ তলা), এস্টোরিয়া, নিউইর্য়ক-১১১০৩, 
    ইউনাইটেড স্টেইটস অব আমেরিকা। ফোন : ৯১৭-৩৯৬-৫৭০৫।

    প্রসেনজিৎ দাস, প্রধান সম্পাদক, ভারত।
    ভারত অফিস : সেন্ট্রাল রোড, টাউন প্রতাপগড়, আগরতলা, ত্রিপুরা, ভারত। ফোন : +৯১৯৪০২১০৯১৪০।

    Home l About NBS l Contact the NBS l DMCA l Terms of use l Advertising Rate l Sitemap l Live TV l All Paper

    দেশি-বিদেশি দৈনিক পত্রিকা, সংবাদ সংস্থা ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল থেকে সংগৃহিত এবং অনুবাদকৃত সংবাদসমূহ পাঠকদের জন্য সাব-এডিটরগণ সম্পাদনা করে
    সূত্রে ওই প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে প্রকাশ করে থাকেন। এ জাতীয় সংবাদগুলোর জন্য এনবিএস কর্তৃপক্ষ কোনো প্রকার দায়-দায়িত্ব গ্রহণ করবেন না।
    আমাদের নিজস্ব লেখা বা ছবি 'সূত্র এনবিএস' উল্লেখ করে প্রকাশ করতে পারবেন। - Privacy Policy l Webmail