ঢাকা | বুধবার | ২৪শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৯ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৪ই সফর, ১৪৪০ হিজরী | English Version | Our App BN | বাংলা কনভার্টার

  • Main Page প্রচ্ছদ
  • বিদেশ
  • বাংলাদেশ
  • স্বদেশ
  • ভারত
  • অর্থনীতি
  • বিজ্ঞান
  • খেলা
  • বিনোদন
  • চাকরির সংবাদ
  • ♦ আরও ♦
  • ♦ গুরুত্বপূর্ণ লিংক ♦
  • Space For Advertisement (Spot # 2) - Advertising Rate Chart

    • এনবিএস » ৩ শিরোনাম » প্রেসিডেন্ট দায়িত্ব পালন করলে দেশ অনিশ্চয়তা থেকে রক্ষা পাবে: ফয়জুল করীম


    ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

    ডেঙ্গুতে মৃত্যূ ১৪ জনের, প্রকোপ বাড়ার শঙ্কা
    এনবিএস | Saturday, September 22nd, 2018 | প্রকাশের সময়: 1:13 pm

    ডেঙ্গুতে মৃত্যূ ১৪ জনের, প্রকোপ বাড়ার শঙ্কাডেঙ্গুতে মৃত্যূ ১৪ জনের, প্রকোপ বাড়ার শঙ্কা

    চলতি বছর বর্ষা মৌসুমের চাল-চরিত্র সেভাবে টের না পেলেও ডেঙ্গুর প্রকোপ ঠিকই টের পাচ্ছেন নগরবাসী। ভয়াবহ এ রোগে এখন পর্যন্ত ১৪ জনের মৃত্যু ঘটেছে। যার মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুইজন, মিটফোর্ড হাসপাতালে একজন, ঢাকা শিশু হাসপাতালে দুইজন, হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতালে একজন এবং বারডেম হাসপাতালে একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। সামনের দিনগুলোয় বৃষ্টি হলে ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা সংশ্লিষ্টদের।

    এছাড়া বেসরকারি মালিকানাধীন বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে একজন, স্কয়ার হাসপাতালে একজন, সেন্ট্রাল হাসপাতালে দুইজন, ইউনাইটেড হাসপাতালে দুইজন এবং পপুলার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে একজন করে রোগী মারা যান।

    সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চলতি বছরে ডেঙ্গুর ধরন বদলেছে। সে কারনে আক্রান্ত হওয়ার শুরুর দিকে সেভাবে বোঝা যায় না। এতে করে চিকিৎসায় গুরুত্ব না দেওয়ায় পরবর্তীতে পরিস্থিতি জটিল হয়ে যায়। চিকিৎসকরাও শেষমেষ তেমন কিছু করতে পারছেন না।

    বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক প্রতিবেদন বলছে, বাংলাদেশসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রায় ১৩০ কোটি মানুষ ডেঙ্গু ঝুঁকিতে রয়েছেন। এছাড়া বৈশ্বিক জনগোষ্ঠীর ৫৮ শতাংশ মানুষ এই অঞ্চলে বাস করেন যাদের ৫৮ ভাগ মশাবাহিত রোগ ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন।

    স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশনস সেন্টার থেকে জানা যায়, ২০০০ সালে প্রথম বড় আকারে ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দেয়, সে বছরে রেকর্ড সংখ্যক ৯৩ জন রোগী মারা যান, রোগী ছিলেন ৫ হাজার ৫৫১ জন, ২০০১ সালে মারা যান ৪৪ জন, রোগী ছিলেন দুই হাজার ৪৩০ জন, ২০০২ সালে মারা যান ৫৮ জন, রোগী ছিলেন ৬ হাজার ২৩২ জন, ২০০৩ সালে মারা যান ১০ জন, রোগী ছিলেন ৪৮৬ জন, ২০০৪ সালে মারা যান ১৩ জন, রোগী ছিলেন ৩ হাজার ৪৩৪ জন, ২০০৫ সালে মারা যান ৪ জন, রোগী ছিলেন ১ হাজার ৪৮ জন, ২০০৬ সালে মারা যান ১১ জন, রোগী ছিলেন দুই হাজার ২শ জন, ২০০৭ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত কেউ মারা না গেলেও রোগী সংখ্যা ছিলেন যথাক্রমে ৪৬৬ জন, এক হাজার ১৫৩ জন, ৪৭৪ জন এবং ৪০৯ জন। তবে তার পরের বছর থেকেই আবার রোগী মৃত্যু শুরু হয়।

    ২০১১ সালে মারা যান ৬ জন, রোগী ছিলেন এক হাজার ৩৫৯ জন, ২০১২ সালে মারা যান একজন, রোগী ছিলেন ৬৭১ জন, ২০১৩ সালে মারা যান ২ জন, রোগী ছিলেন এক হাজার ৭৪৯ জন, আবার ২০১৪ সালে কেউ মারা না গেলেও রোগী ছিলেন ৩৭৫ জন। ২০১৫ সালে মারা যান ৬ জন, রোগী ছিলেন ৩ হাজার ১৬২ জন, ২০১৬ সালে মারা যান ১৪ জন, রোগী ছিলেন ছয় হাজার ৬০ জন এবং গত বছরে মারা যান ৮ জন এবং রোগী সংখ্যা ছিলেন দুই হাজার ৭৬৯ জন। চলতি বছরের জুন মাসে তিন জন, জুলাই মাসে চার জন, আগস্ট মাসে ছয় জন এবং সেপ্টেম্বর মাসে এক জন মারা যান।

    চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪১৮ জন, মিটফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২৯৪ জন, ঢাকা শিশু হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২১০ জন, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২০৭ জন, হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২৬৫ জন, বারডেম হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২০৭ জন। অপর দিকে, এসব হাসপাতালে বর্তমানে রোগী ভর্তি আছেন যথাক্রমে ৫৫, ৬৬, ২৩, ১৭ এবং ১৩ জন রোগী। অপরদিকে ঢাকায় অবস্থিত বেসরকারি হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ২৫ জন এবং হাসপাতালগুলোতে ভর্তি আছেন ৯৪ জন রোগী। ঢাকার সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে মোট চিকিৎসা নিয়েছেন চার হাজার ৪২৬ জন রোগী।

    বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, বাংলাদেশসহ এই অঞ্চলে ভারত, নেপাল, ভুটান, মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কা, মিয়ানমার, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যাণ্ড, পূর্ব তিমুর ও উত্তর কোরিয়া রয়েছে।

    বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, বিশ্বের মোট জনসংখ্যার এক-চতুর্থাংশ মানুষ এই অঞ্চলে বসবাস করে। দ্রুত নগরায়ণ ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে এই অঞ্চলে এই দু’টি রোগ ছাড়াও কীটবাহিত অন্যান্য রোগের ঝুঁকিও বাড়ছে।

    কেবল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিসংখ্যানেই নয়, চলতি বছর বাংলাদেশেও বেড়েছে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টায় ডেঙ্গু জ্বর, ডেঙ্গু হেমরেজিক ফিভার এবং ডেঙ্গু শক্ সিনড্রোমে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার সরকারি বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৪৮ জন।

    এদিকে, চলতি মৌসুমে ডেঙ্গুর ধরন বদলানোয় কেবল মশক নিধন চেষ্টায় ডেঙ্গু প্রতিরোধ করা যাবে না বলে জানান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ।

    তিনি বলেন, ‘নিজের বাড়ি-ঘর পরিষ্কার রাখার দায়িত্ব নিজেকেই নিতে হবে। ঘরের ভেতরে পানি জমিয়ে রাখা যাবে না। মাঝে মাঝে বৃষ্টি হওয়াতে রাস্তার ধারের ড্রেনগুলোতে পানি জমে যাচ্ছে, পরিষ্কার পানি পেয়ে সেখানে মশা ডিম পাড়ার সুযোগ পাচ্ছে। ড্রেনেজ সিস্টেমগুলো সিটি করপোরেশনকে ঠিক করতে হবে, কোথাও যেন পানি জমে না থাকে সে ব্যবস্থা নিশ্চিতকরতে হবে। নয়ত এবার ডেঙ্গু অনেক ভোগাবে।’

    অপরদিকে ডেঙ্গুর প্রকোপ কমাতে জনসাধারণকে সচেতন থাকার কথা বলছে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, ‘এবারের মৌসুমে ভারি বর্ষণে এডিস মশাবাহিত রোগ ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাই সবাইকে সচেতন থাকতে হবে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।’

    প্রতিষ্ঠানের জ্যেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এ এস এম আলমগীর বলেন, ডেঙ্গুর মৌসুম হচ্ছে জুন থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত। আশা করতে পারি যদি বৃষ্টিপাত আর না হয় তাহলে ডেঙ্গুর প্রকোপ কমে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বৃষ্টি হলে সেটা বাড়তে পারে।

    বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ডেঙ্গুর ঝুঁকি বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কীটপতঙ্গবাহিত রোগের ঝুঁকি বেড়েছে, এর প্রমাণ চলতি বছরগুলোতে ডেঙ্গু-চিকুনগুনিয়ার প্রকোপ। জলবায়ু পরিবর্তনএবং বৈশ্বিক উষ্ণতার কারণে এ প্রকোপ বেড়ে গিয়েছে।’

    ‘তবে এর প্রতিকারের জন্য মানুষকে সচেতন হতে হবে, সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে এ সর্ম্পকে বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করা এবং জনসচেতনামূলক কাজে সরকারি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি দেশের বুদ্ধিজীবী, সমাজসেবী,সামাজিক প্রতিষ্ঠান তাদেরও জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে অংশগ্রহণ করতে হবে’, বলেন ডা. এ এস এম আলমগীর।

       


    আপনার মন্তব্য লিখুন...
    Delicious Save this on Delicious

    nbs24new3 © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
    নিউজ ব্রডকাস্টিং সার্ভিস - এনবিএস
    ২০১৫ - ২০১৮

    উপদেষ্টা সম্পাদক : এডভোকেট হারুন-অর-রশিদ
    প্রধান সম্পাদক : মোঃ তারিকুল হক, সম্পাদক ও প্রকাশক : সুলতানা রাবিয়া,
    প্রধান প্রতিবেদক : এম আকবর হোসেন, বিশেষ প্রতিবেদক : এম খাদেমুল ইসলাম
    চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান : মোঃ রাকিবুর রহমান
    ৩৯, আব্দুল হাদি লেন, বংশাল, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
    ফোন : +৮৮ ০২ ৭৩৪৩৬২৩, +৮৮ ০১৭১৮ ৫৮০ ৬৮৯
    Email : nbs.news@hotmail.com, news@nbs24.org

    ইউএসএ অফিস: ৪১-১১, ২৮তম এভিনিউ, স্যুট # ১৫ (৪র্থ তলা), এস্টোরিয়া, নিউইর্য়ক-১১১০৩, 
    ইউনাইটেড স্টেইটস অব আমেরিকা। ফোন : ৯১৭-৩৯৬-৫৭০৫।

    প্রসেনজিৎ দাস, প্রধান সম্পাদক, ভারত।
    ভারত অফিস : সেন্ট্রাল রোড, টাউন প্রতাপগড়, আগরতলা, ত্রিপুরা, ভারত। ফোন : +৯১৯৪০২১০৯১৪০।

    Home l About NBS l Contact the NBS l DMCA l Terms of use l Advertising Rate l Sitemap l Live TV l All Paper

    দেশি-বিদেশি দৈনিক পত্রিকা, সংবাদ সংস্থা ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল থেকে সংগৃহিত এবং অনুবাদকৃত সংবাদসমূহ পাঠকদের জন্য সাব-এডিটরগণ সম্পাদনা করে
    সূত্রে ওই প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে প্রকাশ করে থাকেন। এ জাতীয় সংবাদগুলোর জন্য এনবিএস কর্তৃপক্ষ কোনো প্রকার দায়-দায়িত্ব গ্রহণ করবেন না।
    আমাদের নিজস্ব লেখা বা ছবি 'সূত্র এনবিএস' উল্লেখ করে প্রকাশ করতে পারবেন। - Privacy Policy l Webmail