ঢাকা | শুক্রবার | ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ | ১৩ ফাল্গুন, ১৪২৭ | ১৩ রজব, ১৪৪২ | English Version | Our App BN | বাংলা কনভার্টার
  • Main Page প্রচ্ছদ
  • করোনাভাইরাস
  • বিদেশ
  • বাংলাদেশ
  • স্বদেশ
  • ভারত
  • অর্থনীতি
  • বিজ্ঞান
  • খেলা
  • বিনোদন
  • ভিডিও ♦
  • ♦ আরও ♦
  • ♦ গুরুত্বপূর্ণ লিংক ♦
    • NBS » ৪ শিরোনাম » চীনের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধ মার্কিন অর্থনীতির ভয়াবহ ক্ষতি করবে: ইউএস চেম্বার


    ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

    কুমিল্লা দক্ষিনাঞ্চল  জুড়ে হোটেল রেস্তোরায় ভেজাল  খাবার ঘিরে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ছে মানুষের
    এনবিএস | Monday, February 15th, 2021 | প্রকাশের সময়: 7:50 pm

    কুমিল্লা দক্ষিনাঞ্চল  জুড়ে হোটেল রেস্তোরায় ভেজাল  খাবার ঘিরে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ছে মানুষেরকুমিল্লা দক্ষিনাঞ্চল  জুড়ে হোটেল রেস্তোরায় ভেজাল  খাবার ঘিরে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ছে মানুষের

    মশিউর রহমান সেলিম, লাকসাম: বর্তমান করোনাকালে কুমিল্লা দক্ষিনাঞ্চলের উপজেলাগুলোর হাট-বাজারজুড়ে হোটেল রেস্তোরাসহ নানান জাতীয় খাবার দোকানগুলোতে অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ, বাসী-পঁচা খাবার বিক্রি এখন যেন অপেন সিক্রেট। ওইসব খাবার দোকানগুলোতে ভেজাল খাবার বিক্রি ঘিরে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ছে এ অঞ্চলের কয়েক লাখ মানুষের।
     
    স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, আমাদের দৈনন্দিন কর্মজীবনের ব্যস্ততায় খাবারের প্রতি তেমন নজর দেওয়ার সময় হয় না। কোথায় খাচ্ছি, কি খাচ্ছি সেটাতেও আমরা গুরুত্ব দেই না। হোটেল রেস্তোরাসহ খাবার দোকানগুলে াতে রং বেরংয়ের চটকদার পণ্যের প্রতি লোভ আমাদের বেশি। বিশেষ করে যাদের বাসায় রান্না করার সময় নেই কিংবা কর্মব্যস্ততার জন্য অনেক সময় হোটেল রেস্তোরায় খাবার খেতে হয়। আবার ফাষ্টফুড থেকে নানাহ কারনে স্থানীয় চিকিৎসকগণ নিষেধ করা স্বত্তেও আমরা তা খাচ্ছি। তবে চলমান করোনাকালে নানান খাবার দোকানগুলোর ক্ষেত্রে ভয়টা কিন্তু খাবারে নয় বরং ভয়টা হচ্ছে খাবার প্রস্তুত, পার্সেল প্যাকেজিং কিংবা সরবরাহ ক্ষেত্রে যথাযথ নীতিমালা মানা হচ্ছে কিনা ? হোটেল বয়দের পোশাক, খাবার ডেলিভারী ও প্রস্তুত কারখানায় পরিচ্ছন্ন পরিবেশসহ অভিজ্ঞ রন্ধন সামগ্রীসহ নানাহ সরঞ্জামে সর্তকতা নেই বললেই চলে। যে যার মত করে খাবার দোকান গুলোতে সরকারী কোন নিয়মনীতির বালাই নেই। মাঝামাঝি স্থানীয় প্রশাসন হোটেল রেস্তোরাসহ নানান খাবার দোকানগুলোতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে অর্থদন্ড করলেও ওই ব্যবসায়ীদের দমানো যায়নি। যদিও এখন পর্যন্ত খাবারের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস সংক্রমনের কোন প্রমান পাওয়া যায়নি। কারন ভালভাবে রান্না করা হলে খাবারে করোনা ভাইরাস বেঁচে থাকার কথা নয়। তবে ফুড প্যাকেজিং কিংবা পার্সেল ওয়াডারে ডেলিভারী করতে যিনি নিয়োজিত তার মাধ্যমে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। 

    জেলা দক্ষিনাঞ্চলের বে-সরকারি হাসপাতালে একাধিক চিকিৎসক জানায়, আমরা প্রতিনিয়ত হোটেল রেস্তোরা কিংবা নানাহ খাবার দোকানে খাবার খাওয়ায় মানুষের শরীরে নানাহ প্রদাহ দেখা দিতে পারে। কারন ওইসব খাবারে ব্যবহার করা হয় মনোসোডিয়াম, গ্লুটামেট, পলিথিন, কালার রংসহ নানাহ রাসায়নিক দ্রব্য। ফলে মানবদেহে ডেকে আনতে পারে জটিল মারাত্মক রোগ। প্রসস্থ্য করতে পারে স্বাস্থ্য ঝুঁকির পথ। যদিও আমাদের দেশে নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ এর ২৩ নং ধারা অনুযায়ী কোন খাবার দোকানের মালিক প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষ ভাবে মানব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর এমন বিষক্রিয়া সৃষ্টিকারী রাসায়নিক দ্রব্য কিংবা তার কোন উপকরণ যেমন-ক্যাডিয়াম, সেগারিন, ইফরিয়া, ঘন চিনি, ক্যালসিয়াম কারবাইড দ্রব্যের ফ্লেবার, ফরমালিন, সোডিয়াম, সাইপ্লামেট, কিটনাশক বা বালাইনাশক, পিসিভি তৈলসহ খাদ্যের রন্ধক স্বাদে আকর্ষন সৃষ্টিকারী কোন বিষাক্ত সংযোজন দ্রব্য বা পক্রিয়া সহায়ক কোন খাবারে এবং খাদ্য উপকরনে ব্যবহার আইনগত অপরাধ। 

    প্রতিবছর বিশে^ প্রায় ৬০ কোটি মানুষ ওইসব খাবার প্রতিষ্ঠানে ভেজাল ও দূষিত খাবার খেয়ে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়েছে। এর মধ্যে প্রায় সাড়ে ৪ লাখ মানুষের মৃত্যু ঘটে। এছাড়া ওই দ্রব্যের খাবার গ্রহন জর্নিত কারনে ৫ বছর কম বয়সের আক্রান্ত হওয়া ৪৩ শতাংশ শিশু- কিশোরদের মধ্যে প্রায় ১ লাখ ২৫ হাজার প্রানহানী ঘটে কিন্তু এ অঞ্চলের হোটেল রেস্তোরার মালিকরা সরকারি কোন নিয়মনীতি মানেন না।কারন সংশ্লিষ্ট স্থাণীয় প্রশাসনের কঠোর কোন প্রদক্ষেপ না থাকায় যে যার মত করে খাবার দোকানগুলো চালাচ্ছে। 
    সূত্রগুলো আরও জানায়, ওইসব খাবার প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলোতে ক্ষতিকর নানাহ রাসায়নিক দ্রব্য মিশ্রনের ফলে মানবদেহে চুলকানি, জন্ডিস, ডায়রিয়াসহ নানাহ জটিল রোগের পাশাপাশি শরীরের যকৃত, বক্ষ, বায়ুনালী, রক্তনালী ও গলব্লাডারসহ শরীরের নানান অংশে ক্ষতি সাধন করতে পারে। এমনকি কিডনী, হার্টসহ ক্যান্সার রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। এছাড়া ইট ও কাঠেরগুড়া মিশানো খাবারের মসল্লা, ভৌজ্যতৈল, আটা, ময়দা, মুড়ি, চাল, চিনি, মিষ্টি, চাপ, গ্রিল, হালিম, চটপটি, কেক ও বিস্কুটসহ নানান জাতীয় খাবারগুলো ভেজাল মুক্ত নয়। ৮৫শতাংশ মাছে ফরমালিন, শাক সবজিতে বিষাক্ত ষ্প্রে, ফল-ফলাদিতে কার্বাইড, ইথোপেন, ফ্রিজারভেটিভসহ ক্ষতিকর নানাহ বিষাক্ত রাসায়নিক দ্রব্য মিশানো হচ্ছে। এতে ধীরে ধীরে মানবদেহে স্বাস্থ্যঝুঁকি আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে। কিন্তু এসব দেখার মতো এ অঞ্চলে কেউ কি আছে? 

    এ ব্যাপারে জেলা দক্ষিনাঞ্চলের ৫টি উপজেলা  ও পৌরসভার সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর কর্মকর্তাদের মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও তদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। 
     


    আপনার মন্তব্য লিখুন...

    nbs24new3 © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
    নিউজ ব্রডকাস্টিং সার্ভিস - এনবিএস
    ২০১৫ - ২০২০

    সিইও : আব্দুল্লাহ আল মাসুম
    সম্পাদক ও প্রকাশক : সুলতানা রাবিয়া
    চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান : মোঃ রাকিবুর রহমান
    -------------------------------------------
    বংশাল, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
    ফোন : +৮৮ ০১৭১৮ ৫৮০ ৬৮৯
    Email : [email protected], [email protected]

    ইউএসএ অফিস: ৪১-১১, ২৮তম এভিনিউ, স্যুট # ১৫ (৪র্থ তলা), এস্টোরিয়া, নিউইর্য়ক-১১১০৩, 
    ইউনাইটেড স্টেইটস অব আমেরিকা। ফোন : ৯১৭-৩৯৬-৫৭০৫।

    প্রসেনজিৎ দাস, প্রধান সম্পাদক, ভারত।
    যোগাযোগ: সেন্ট্রাল রোড, টাউন প্রতাপগড়, আগরতলা, ত্রিপুরা, ভারত। ফোন +৯১৯৪০২১০৯১৪০।

    Home l About NBS l Contact the NBS l DMCA l Terms of use l Advertising Rate l Sitemap l Live TV l All Radio

    দেশি-বিদেশি দৈনিক পত্রিকা, সংবাদ সংস্থা ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল থেকে সংগৃহিত এবং অনুবাদকৃত সংবাদসমূহ পাঠকদের জন্য সাব-এডিটরগণ সম্পাদনা করে
    সূত্রে ওই প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে প্রকাশ করে থাকেন। এ জাতীয় সংবাদগুলোর জন্য এনবিএস কর্তৃপক্ষ কোনো প্রকার দায়-দায়িত্ব গ্রহণ করবেন না।
    আমাদের নিজস্ব লেখা বা ছবি 'সূত্র এনবিএস' উল্লেখ করে প্রকাশ করতে পারবেন। - Privacy Policy l Terms of Use