ঢাকা | মঙ্গলবার | ২০ এপ্রিল, ২০২১ | ৭ বৈশাখ, ১৪২৮ | ৭ রমজান, ১৪৪২ | English Version | Our App BN | বাংলা কনভার্টার
  • Main Page প্রচ্ছদ
  • করোনাভাইরাস
  • বিদেশ
  • বাংলাদেশ
  • স্বদেশ
  • ভারত
  • অর্থনীতি
  • বিজ্ঞান
  • খেলা
  • বিনোদন
  • ভিডিও ♦
  • ♦ আরও ♦
  • ♦ গুরুত্বপূর্ণ লিংক ♦
    • NBS » ৪ শিরোনাম » বাইডেনের পদক্ষেপ: জারিফ বলছেন নিঃশর্তভাবে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করতে হবে


    ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

    পরীক্ষাগারে তৈরি হলো মানবভ্রূণ
    এনবিএস | Wednesday, March 24th, 2021 | প্রকাশের সময়: 5:01 pm

    পরীক্ষাগারে তৈরি হলো মানবভ্রূণপরীক্ষাগারে তৈরি হলো মানবভ্রূণ

    অনলাইন ডেস্ক-  শুক্রাণু নেই, ডিম্বাণুও নেই। নিষেকও হয়নি। তা-ও জন্ম নিয়েছে মানবভ্রূণ। চিন্তা-ভাবনারও যা বাইরে, তা-ই করে ফেলেছেন বিজ্ঞানীরা। এই প্রথম গবেষণাগারে কৃত্রিমভাবে মানবভ্রূণের আদিদশা তৈরি করা হয়েছে। যে কোষ মায়ের গর্ভে বেড়ে মানবশিশুর চেহারা নেবে, তারই প্রাথমিক রূপটা তৈরি করে ফেলেছেন গবেষকরা। সোজা কথায় বলতে গেলে, কৃত্রিমভাবে মানুষ তৈরির প্রক্রিয়ার প্রথম সিঁড়িতে পা দিয়ে ফেলেছেন গবেষকরা।

    স্ত্রী ও পুরুষের শরীর থেকে নেওয়া ডিম্বাণু ও শুক্রাণুর মিলন ছাড়াই কৃত্রিমভাবে মানুষের ভ্রূণ তৈরি করার চেষ্টা চলছিল বহু বছর ধরেই। নানা রকম গবেষণা হয়েছে। কিন্তু বারবারই ব্যর্থতা এসেছে। সেই সঙ্গে নীতিগতভাবে নানা নিয়ম-কানুনের বাধাও টপকাতে হয়েছে। একই মানুষের প্রতিরূপ বা হিউম্যান ক্লোনিং নিয়ে বিস্তর তর্কবিতর্ক, আইনি ঝামেলা, প্রতিবাদ-আন্দোলন সবই হয়েছে। এই গবেষণার ওপর নিষেধাজ্ঞাও চাপানো হয়েছে। একই রকম সমস্যা ছিল কৃত্রিমভাবে মানবভ্রূণ তৈরির গবেষণা নিয়েও। তবে এই প্রথমবার এত বড় পরীক্ষায় সাফল্য এসেছে। অস্ট্রেলিয়ার মোনাশ ইউনিভার্সিটির গবেষকরা মানুষের ভ্রূণ তৈরির কোষ কৃত্রিমভাবে বানিয়ে ফেলেছেন। নেচার সায়েন্স জার্নালে এই গবেষণার খবর ছাপা হয়েছে।

    বিজ্ঞানীরা তৈরি করেছেন কৃত্রিম ‘এমব্রায়ো’ বা ভ্রূণ ‘ব্লাস্টয়েড’। এই ব্লাস্টয়েড থেকেই মানবশরীর, অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ তৈরি হবে। ব্যাপারটা খুলে বলা যাক। বিজ্ঞানীরা দুইভাবে এই পরীক্ষা করেছেন। প্রথমত, মানুষের ত্বকের কোষ নিয়ে তার মধ্যে জিনের গঠনবিন্যাস নতুন করে সাজিয়েছেন। মানে জেনেটিক্যালি রিপ্রগ্রাম করে সেই কোষকে ভ্রূণের প্রাথমিক চেহারা দেওয়া হয়েছে। ভ্রূণ ঠিক যেমন আকৃতির, সেই গোলাকার রূপ দিয়েছেন গবেষকরা। আর এই কোষ দেখতে হয়েছে অবিকল মানুষের ভ্রূণের কোষ ব্লাস্টোসিস্টের মতো।

    এখন প্রশ্ন হলো ব্লাস্টোসিস্ট কী? সহজ করে বলতে গেলে, স্তন্যপায়ী প্রাণীদের ভ্রূণ তৈরির আদিদশাকে বলে ব্লাস্টোসিস্ট। শুক্রাণু-ডিম্বাণুর মিলন হওয়ার পাঁচ দিন পরে যে কোষ প্রাথমিকভাবে তৈরি হয়, তাকেই ব্লাস্টোসিস্ট বলে। প্রথম পর্যায়ে ১৬টি কোষ নিয়ে গোলাকার বলের মতো গঠন তৈরি হয়। এর পরিধি হয় ০.১-০.২ মিলিমিটার। ধীরে ধীরে এই গোলাকার বলটা বড় হতে থাকে। ২০০ থেকে ৩০০ কোষ থাকে। এই কোষগুলোর আবার বিভাজন শুরু হয়। এরপর ব্লাস্টোসিস্ট জরায়ুর মধ্যে ইমপ্লান্ট হয় এবং ধীরে ধীরে পূর্ণাঙ্গ ভ্রূণের চেহারা নিতে থাকে। অস্ট্রেলিয়ার গবেষকরা এই ব্লাস্টোসিস্টই তৈরি করে ফেলেছেন।

    গবেষকরা বলছেন, কৃত্রিমভাবে তৈরি ব্লাস্টোসিস্টের মধ্যে এমন কোষও ঢোকানো হয়েছে, যার থেকে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ তৈরি হতে পারে। শুক্রাণু-ডিম্বাণুর নিষেকে তৈরি সাড়ে তিন দিন বয়সী একটি স্বাভাবিক ভ্রূণ থাকলে মাতৃজঠরে যা যা পরিবর্তন ঘটার কথা, এ ক্ষেত্রেও ঠিক তেমনই ঘটতে পারে। অর্থাৎ এই পরীক্ষা যদি শেষ পর্যন্ত সফল হয়, তাহলে গবেষণাগারেই কৃত্রিমভাবে প্রথম মানবশিশু তৈরি করা সম্ভব হবে। তবে সেই পর্যন্ত গবেষণা এগোতে এখন অনেক সময় লাগবে। 


    আপনার মন্তব্য লিখুন...

    nbs24new3 © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
    নিউজ ব্রডকাস্টিং সার্ভিস - এনবিএস
    ২০১৫ - ২০২০

    সিইও : আব্দুল্লাহ আল মাসুম
    সম্পাদক ও প্রকাশক : সুলতানা রাবিয়া
    চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান : মোঃ রাকিবুর রহমান
    -------------------------------------------
    বংশাল, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
    ফোন : +৮৮ ০১৭১৮ ৫৮০ ৬৮৯
    Email : [email protected], [email protected]

    ইউএসএ অফিস: ৪১-১১, ২৮তম এভিনিউ, স্যুট # ১৫ (৪র্থ তলা), এস্টোরিয়া, নিউইর্য়ক-১১১০৩, 
    ইউনাইটেড স্টেইটস অব আমেরিকা। ফোন : ৯১৭-৩৯৬-৫৭০৫।

    প্রসেনজিৎ দাস, প্রধান সম্পাদক, ভারত।
    যোগাযোগ: সেন্ট্রাল রোড, টাউন প্রতাপগড়, আগরতলা, ত্রিপুরা, ভারত। ফোন +৯১৯৪০২১০৯১৪০।

    Home l About NBS l Contact the NBS l DMCA l Terms of use l Advertising Rate l Sitemap l Live TV l All Radio

    দেশি-বিদেশি দৈনিক পত্রিকা, সংবাদ সংস্থা ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল থেকে সংগৃহিত এবং অনুবাদকৃত সংবাদসমূহ পাঠকদের জন্য সাব-এডিটরগণ সম্পাদনা করে
    সূত্রে ওই প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে প্রকাশ করে থাকেন। এ জাতীয় সংবাদগুলোর জন্য এনবিএস কর্তৃপক্ষ কোনো প্রকার দায়-দায়িত্ব গ্রহণ করবেন না।
    আমাদের নিজস্ব লেখা বা ছবি 'সূত্র এনবিএস' উল্লেখ করে প্রকাশ করতে পারবেন। - Privacy Policy l Terms of Use