ঢাকা | সোমবার | ২১ জুন, ২০২১ | ৭ আষাঢ়, ১৪২৮ | ১০ জিলকদ, ১৪৪২ | English Version | Our App BN | বাংলা কনভার্টার
  • Main Page প্রচ্ছদ
  • করোনাভাইরাস
  • বিদেশ
  • বাংলাদেশ
  • স্বদেশ
  • ভারত
  • অর্থনীতি
  • বিজ্ঞান
  • খেলা
  • বিনোদন
  • ভিডিও ♦
  • ♦ আরও ♦
  • ♦ গুরুত্বপূর্ণ লিংক ♦
    • NBS » ৩ শিরোনাম » পরীমনিকে ধর্ষণ চেষ্টা: একে একে বেড়িয়ে আসছে অমি’দের গোপন সব কীর্তিকলাপ


    ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

    ৯ মাসে ইলেকট্রনিক্স পণ্য রপ্তানি বেড়েছে সাড়ে ৮ গুণ, আয়ের ৬৭.২১ শতাংশ ওয়ালটনের
    এনবিএস | Monday, May 31st, 2021 | প্রকাশের সময়: 5:45 pm

    ৯ মাসে ইলেকট্রনিক্স পণ্য রপ্তানি বেড়েছে সাড়ে ৮ গুণ, আয়ের ৬৭.২১ শতাংশ ওয়ালটনের৯ মাসে ইলেকট্রনিক্স পণ্য রপ্তানি বেড়েছে সাড়ে ৮ গুণ, আয়ের ৬৭.২১ শতাংশ ওয়ালটনের

    রাইজিংবিডি.কম – 

    বাংলাদেশে তৈরি কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স পণ্যের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি, উচ্চ মান ও সাশ্রয়ী মূল্য জয় করছে বিশ্ব ক্রেতাদের আস্থা। ইউরোপসহ বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ ট্যাগযুক্ত ইলেকট্রনিক্স পণ্যের নতুন রপ্তানি বাজার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারি দুর্যোগের মধ্যেও বাংলাদেশের কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স পণ্য রপ্তানিতে এসেছে দুর্দান্ত সাফল্য। চলতি অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে (জুলাই, ২০২০-মার্চ, ২০২১) ইলেকট্রনিক্স পণ্য রপ্তানির পরিমাণ আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে প্রায় সাড়ে ৮ গুণ বেড়ে ১২.৩৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে। মোট রপ্তানি আয়ের প্রায় ৬৭.২১ শতাংশই এককভাবে অর্জন করেছে দেশের ইলেকট্রনিক্স জায়ান্ট ওয়ালটন।

    রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশের কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স পণ্য রপ্তানি তালিকায় আছে রেফ্রিজারেটর, ফ্রিজার, এলইডি টেলিভিশন, এয়ার কন্ডিশনার, ওয়াশিং মেশিন, ব্লেন্ডার, রাইস কুকার, গ্যাস স্টোভ, ইন্ডাকশন কুকার, ফ্যান, হট প্লেট, রেফ্রিজারেটর কম্প্রেসর ও কম্প্রেসর তৈরির যন্ত্রাংশ।

    ইপিবি’র প্রকাশিত পণ্যভিত্তিক তথ্য অনুসারে, গত বছরের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত দেশের কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছে প্রায় ১ কোটি ২২ লাখ বা ১২.২২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। আগের অর্থবছরের (২০১৯-২০) একই সময়ে এ খাতের রপ্তানি আয়ের পরিমাণ ছিল প্রায় ১৪ লাখ ৩৮ হাজার বা ১.৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। সে হিসাবে চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে দেশের ইলেকট্রনিক্স ও হোম অ্যাপ্লায়েন্স পণ্যে রপ্তানি বেড়েছে সাড়ে ৮ গুণ।

    খাত সংশ্লিষ্টদের মতে, সরকারের কাছ থেকে রপ্তানি প্রণোদনা ও অন্যান্য নীতি সহায়তা পেলে দেশীয় ইলেকট্রনিক্স ইন্ডাস্ট্রিজ পোশাক শিল্পের মতো আরেকটি বড় রপ্তানি খাত হয়ে উঠার সম্ভাবনা আছে। ইতোমধ্যে স্থানীয় বাজারে বিদেশি ব্র্যান্ডের দৌরাত্ম্য দূর করে মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে নিজেদের একচেটিয়া আধিপত্য বিস্তারের মাধ্যমে দেশীয় ইলেকট্রনিক্স ব্র্যান্ডগুলো সামর্থ্যরে প্রমাণ দেখিয়েছে। 

    আন্তর্জাতিক বাজার বিশেষজ্ঞদের মতে, বিশ্ব কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স বাজারে নেতৃত্ব দেওয়ার যথেষ্ট সামর্থ্য আছে বাংলাদেশি ব্র্যান্ডের। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্য উত্তেজনা তৈরি হওয়ায় বেশিরভাগ গ্লোবাল ব্র্যান্ড এখন অন্যান্য এশিয়ান দেশগুলোর সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক স্থাপনের দিকে ঝুঁকছে। এই সুযোগ লুফে নিয়ে বিশ্ব কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স পণ্যের হাব হয়ে ওঠার ব্যাপক সামর্থ্য আছে বাংলাদেশের।

    ইপিবি’র তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ইলেনকট্রনিক্স খাতের রপ্তানি আয় বৃদ্ধির পাশাপাশি এই শিল্পকে সম্ভাবনাময় নতুন রপ্তানি খাত করে তোলার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে দেশের শীর্ষ ইলেকট্রনিক্স প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন। ২০২০ সালের জুলাই থেকে ২০২১ সালের মার্চ, এই ৯ মাসে ৮.৩২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমূল্যের কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স ও হোম অ্যাপ্লায়েন্স পণ্য রপ্তানি করেছে ওয়ালটন। যা মোট রপ্তানির প্রায় ৬৭.২১ শতাংশ।

    চলতি অর্থবছরের মার্চ পর্যন্ত ৯ মাসে ওয়ালটন রপ্তানি করেছে প্রায় ১৮ লাখ ৩৬ হাজার মার্কিন ডলারের রেফ্রিজারেটর, প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলারের ফ্রিজার, প্রায় ১৭ লাখ ৬ হাজার মার্কিন ডলারের এয়ার কন্ডিশনার, প্রায় ৩৮ লাখ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের এলইডি টেলিভিশন, প্রায় ৬ লাখ ৬৬ হাজার মার্কিন ডলারের রেফ্রিজারেটর কম্প্রেসর ও আনুষঙ্গিক যন্ত্রাংশ, প্রায় ১ লাখ ১৮ হাজার মার্কিন ডলারের ওয়াশিং মেশিন, প্রায় ১০ হাজার ২৬৬ মার্কিন ডলারের ব্লেন্ডার, প্রায় ৩৭ হাজার ৮০০ মার্কিন ডলার মূল্যের গ্যাস স্টোভ, প্রায় ২৭ হাজার ৮০০ মার্কিন ডলারের রাইস কুকার, ৪ হাজার ৪০০ মার্কিন ডলারের ইন্ডাকশন কুকার, ১৭ হাজার ৬০০ ডলারের ফ্যান এবং ২ হাজার ২০০ ডলারের হট প্লেট।

    সূত্র জানায়, বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারির ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যেও বাংলাদেশি ইলেকট্রনিক্স পণ্যের রপ্তানি বাণিজ্যে দুর্দান্ত সাফল্য অর্জন করেছে ওয়ালটন। ইউরোপের জার্মানি, গ্রিস, আয়ারল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া, স্পেন, পোল্যান্ড, রোমানিয়া, ইতালির মতো বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতে ওয়ালটন পণ্যের নতুন রপ্তানিবাজার তৈরি হয়েছে। ফলে, চলতি অর্থবছরে জুলাই থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ১০ মাসে ওয়ালটনের পণ্য রপ্তানি আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে প্রায় নয় গুণ বেড়ে ১০.৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে। এদিকে, এ বছরের জানুয়ারি থেকে এপ্রিল মাসে প্রায় ৭.৩৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছে ওয়ালটন। আগের বছরের একই সময়ে তাদের রপ্তানির পরিমাণ ছিল মাত্র ০.৫৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।   

    ওয়ালটনের মতো দেশের অন্য ইলেকট্রনিক্স পণ্য উৎপাদন প্রতিষ্ঠানগুলোকেও রপ্তানি বাণিজ্যে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ইপিবি’র ভাইস-চেয়ারম্যান এ এইচ এম আহসান।

    তিনি বলেন, ‘বিশ্বে বাংলাদেশি কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্সের সম্ভাবনাময় বাজার আছে। বিশ্ববাজরে প্রতিযোগী মূল্যে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও উচ্চ মানের পণ্য দেওয়ার যথেষ্ট সামর্থ্যও আছে দেশীয় ইলেকট্রনিক্স ব্র্যান্ডের।’

    সে ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক বাজারে শতভাগ সফলতা পেতে বৈশ্বিক বাজার বিশ্লেষণ, ক্রেতা গবেষণা ও পারস্পরিক ব্যবসায়িক যোগাযোগ স্থাপনের প্রতি বিশেষ জোর দেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

    দেশীয় ইলেকট্রনিক্স পণ্যের রপ্তানি বাজার সম্প্রসারণ ও নতুন বাজার সৃষ্টিতে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা প্রসঙ্গে ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী গোলাম মুর্শেদ বলেন, ‘কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্সের আন্তর্জাতিক বাজারকে টার্গেট করে ওয়ালটন নিয়েছে ‘‘ভিশন ২০৩০’’। অর্থাৎ ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বের অন্যতম সেরা গ্লোবাল ব্র্যান্ড হয়ে উঠবে ওয়ালটন। লক্ষ্য পূরণে দীর্ঘ ও স্বল্প মেয়াদি পরিকল্পনার সমন্বয়ে তৈরি করা হয়েছে রোডম্যাপ। এরই অংশ হিসেবে ২০২১-২২ অর্থবছরে পণ্য রপ্তানি ১২ মিলিয়ন থেকে ৩৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত করা এবং ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স ও হোম অ্যাপ্লায়েন্স রপ্তানির টার্গেট। নিজস্ব ব্র্যান্ড বিজনেস বাড়ানোর পাশাপাশি ওইএম (অরিজিনাল ইক্যুইপমেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার) হিসেবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ব্র্যান্ডের নামে পণ্য তৈরির মাধ্যমেও রপ্তানি বাণিজ্য সম্প্রসারণ করছে ওয়ালটন।’

    ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজের ডিরেক্টর নিশাত তাসনিম শুচি জানান, পণ্যের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি, দীর্ঘস্থায়িত্ব, প্রতিযোগী মূল্য ও যুগোপযোগী ডিজাইন— আন্তর্জাতিক বাজার প্রতিযোগী সক্ষমতার এই মৌলিক বিষয়গুলোতে যেকোনো ব্র্যান্ডের চেয়ে এগিয়ে আছে বাংলাদেশি ব্র্যান্ড ওয়ালটন। ফলে ওয়ালটনের তৈরি ফ্রিজ, টিভি, এসি, কম্প্রেসর, ওয়াশিং মেশিন ইত্যাদি প্রযুক্তি পণ্যে অল্প সময়ের মধ্যে জয় করে নিচ্ছে বিশ্ব ক্রেতাদের আস্থা। এর পরিপ্রেক্ষিতে করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যেও ইউরোপের বিভিন্ন উন্নত দেশে ওয়ালটন পণ্যের রপ্তানি বাজার বেড়েছে।

    জানা গেছে, একসময় স্থানীয় চাহিদা মেটাতে এসব পণ্য বিদেশ থেকে আমদানি করা হতো। তবে, ২০০৮ সালে ওয়ালটন স্থানীয়ভাবে ইলেকট্রনিক্স পণ্য উৎপাদন শুরুর পর বাজারের চিত্র দ্রুত পাল্টে যায়। কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স, ইলেকট্রিক্যাল ও হোম অ্যাপ্লায়েন্স পণ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন স্বয়ংসম্পূর্ণ। ওয়ালটনের পাশাপাশি এ খাতে গড়ে ওঠে মিনিস্টার, যমুনা, আরএফএলসহ কয়েকটি দেশীয় শিল্প প্রতিষ্ঠান।

    বর্তমানে স্থানীয় বাজারে ইলেকট্রনিক্স, ইলেকট্রিক্যাল ও হোম অ্যাপ্লায়েন্সের চাহিদার ৯০ ভাগেরও বেশি পূরণ করছে দেশীয় ব্র্যান্ডগুলো। এসবের মধ্যে ফ্রিজের প্রায় ৭৫ ভাগ মার্কেট শেয়ার এখন ওয়ালটনের। পাশাপাশি, টেলিভিশনের প্রায় ৫০ শতাংশ বাজার এবং এককভারে এসির চাহিদা পূরণেও ওয়ালটন শীর্ষে। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা ও ইউরোপের প্রায় ৪০টি দেশে কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স ও হোম অ্যাপ্লায়েন্স পণ্য রপ্তানি করছে ওয়ালটন।


    আপনার মন্তব্য লিখুন...

    nbs24new3 © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
    নিউজ ব্রডকাস্টিং সার্ভিস - এনবিএস
    ২০১৫ - ২০২০

    সিইও : আব্দুল্লাহ আল মাসুম
    সম্পাদক ও প্রকাশক : সুলতানা রাবিয়া
    চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান : মোঃ রাকিবুর রহমান
    -------------------------------------------
    বংশাল, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
    ফোন : +৮৮ ০১৭১৮ ৫৮০ ৬৮৯
    Email : news@nbs24.org, thenews.nbs@gmail.com

    ইউএসএ অফিস: ৪১-১১, ২৮তম এভিনিউ, স্যুট # ১৫ (৪র্থ তলা), এস্টোরিয়া, নিউইর্য়ক-১১১০৩, 
    ইউনাইটেড স্টেইটস অব আমেরিকা। ফোন : ৯১৭-৩৯৬-৫৭০৫।

    প্রসেনজিৎ দাস, প্রধান সম্পাদক, ভারত।
    যোগাযোগ: সেন্ট্রাল রোড, টাউন প্রতাপগড়, আগরতলা, ত্রিপুরা, ভারত। ফোন +৯১৯৪০২১০৯১৪০।

    Home l About NBS l Contact the NBS l DMCA l Terms of use l Advertising Rate l Sitemap l Live TV l All Radio

    দেশি-বিদেশি দৈনিক পত্রিকা, সংবাদ সংস্থা ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল থেকে সংগৃহিত এবং অনুবাদকৃত সংবাদসমূহ পাঠকদের জন্য সাব-এডিটরগণ সম্পাদনা করে
    সূত্রে ওই প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে প্রকাশ করে থাকেন। এ জাতীয় সংবাদগুলোর জন্য এনবিএস কর্তৃপক্ষ কোনো প্রকার দায়-দায়িত্ব গ্রহণ করবেন না।
    আমাদের নিজস্ব লেখা বা ছবি 'সূত্র এনবিএস' উল্লেখ করে প্রকাশ করতে পারবেন। - Privacy Policy l Terms of Use