ঢাকা, মঙ্গলবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:০২ পূর্বাহ্ন
প্রবল টিকা সংকট, আগামিকাল থেকে শহরে কোথাও মিলবে না কোভিশিল্ড
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

প্রবল টিকা সংকট, আগামিকাল থেকে শহরে কোথাও মিলবে না কোভিশিল্ড

রাজ্যে প্রকট ভ্যাকসিন সংকট। আগামিকাল থেকে কোথাও মিলবে না কোভিশিল্ড টিকা। কলকাতার কোথাও কোভিশিল্ড টিকা পাওয়া যাবে না বলে জানানো হয়েছে। আগেই টিকা সংকট িনয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কড়া ভাষায় চিঠি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। কবে থেকে কোভিশিল্ড টিকা মিলবে তাও কেউ বলতে পারছেন না। এক কথায় অনির্দিষ্ট কালের জন্যই কোভিশিল্ড িটকা মিলবে না বলে জানানো হয়েছে। এতে চরম সমস্যায় পড়বেন সাধারণ মানুষ।

শহরে কোভিশিল্ড টিকার ভাঁড়ার শূন্য। যার জেরে আগামিকাল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ থাকছে শহরের কোভিশিল্ডের টিকা করণ। কলকাতা পুরসভার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে ১৫২টি কেন্দ্রে করোনা কোভিশল্ডের টিকাকরণ চলছিল সেটা বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়েছে। কলকাতা পুরসভার ১০২ হেলথ সেন্টারে কোভিশিল্ড টিকা দেওয়া হত। দিনে ২০০ জন করে সেখানে কোভিশিল্ড টিকা নিতেন। এর পাশাপাশি ৫০ টি মেগা সেন্টারেও কোভিশিল্ড দেওয়া হত। সেখানে দিনে পাঁচশো থেকে ২০০০ জন এই কোভিশিল্ড টিকা পেতেন। শুধু কলকাতা নয় জেলাতেও কোভিশিল্ডের ভাঁড়ারে টান পড়েছে।

কোভিশিল্ড না পাওয়া গেলেও কোভ্যাক্সিনের টিকাকরণ চলবে বলে জানানো হয়েছে কলকাতা পুরসভার পক্ষ থেকে। পুরসভার ৩৯ টি হেলথ সেন্টার ও ১ টি মেগা সেন্টারে অন্যান্য দিনের মতোই দেওয়া হবে কোভ্যাক্সিনের দুটি ডোজ। সকাল থেকে দেওয়া হবে দ্বিতীয় ডোজ। আর দুপুরের পর থেকে দেওয়া হবে কোভ্যাক্সিনের প্রথম ডোজ। এদিকে বৃহস্পতিবারও সকাল থেকে জেলায় জেলায় ভ্যাকসিন নিয়ে বিক্ষোভ হয়েছে। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়েও মানুষ করোনা টিকা পাচ্ছেন না। আগের দিন রাত থেকে অনেকেই লাইনে দাঁড়াচ্ছেন টিকার জন্য। প্রবল সংকট তৈরি হয়েছে গোটা রাজ্যে।

বৃহস্পতিবার বিকেলেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে করোনা টিকা নিয়ে কড়া চিঠি লিখেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। টিকা বণ্টন নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বঞ্চনার অভিযোগ তুলেছেন িতনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চিঠিতে অভিযোগ করেছেন বিজেপি শাসিত উত্তর প্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, গুজরাত, কর্নাটকে বেশি করে করোনা টিকা দেওয়া হচ্ছে। জন ঘনত্ব অনুযায়ী টিকা বন্টনের কথা বলেিছল মোদী সরকার। কিন্তু বাস্তবে সেটা হচ্ছে না। টিকা বণ্টন নিয়ে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে রাজনৈিতর পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কড়া ভাষায় টিকা সরবরাহ নিয়ে বার্তা দিয়েছেন মমতা। তিনি বলেছেন ভ্যাকসিন নিয়ে বাংলাকে বঞ্চনা করা হলে তিনি চুপ করে বসে থাকবেন না। রাজ্যেকে দৈনির ৪ লক্ষ হিসেবে টিকা পাঠাচ্ছে মোদী সরকার। সেখানে রাজ্য দিনে ১১ লক্ষ টিকা দিতে সক্ষম।

দিল্লিতে গিয়েও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করে করোনা টিকা নিয়ে দরবার করে এসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী । দিল্লিতে তিনি বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে বাংলার জন্য আরও করোনা টিকা চেয়েছিলেন তিনি। ভোটের আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেছিলেন েকন্দ্রের কাছে আগে টিকা কেনার অনুমতি চেয়েছিল রাজ্য সরকার কিন্তু মোদী সরকার সেটা হতে দেয়নি। এমনকী মমতা অভিযোগ করেছেন গুজরাতের বিজেপি পার্টি অফিস ঠিক করে দিচ্ছে কোন রাজ্য কত করোনা টিকা পাবে। করোনা টিকার পৃথক দাম নিেয়ও সরব হয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কেন্দ্র রাজ্য দামের ফারাক কেন হবে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন তিনি। মোদী সরকারের বিরুদ্ধে টিকা নিয়েও রাজনীতির অভিযোগে সরব হয়েছিলেন মমতা। খবর ওয়ান ইন্ডিয়ার /এনবিএস/২০২১/একে 

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *