ঢাকা, শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন
আবারও বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, ওয়াল স্ট্রিটে অফিস খোলা নিয়ে ব্যাপক বিভ্রান্তি
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

আবারও বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, ওয়াল স্ট্রিটে অফিস খোলা নিয়ে ব্যাপক বিভ্রান্তি

গত সোমবার গভীর রাতে ওয়াল স্ট্রিটে মরগ্যান স্ট্যানলের হিউম্যান রিসোর্স অফিস থেকে কর্মীদের একটি জরুরি বার্তা দেওয়া হয়। তাতে বলা হয়, সংস্থার দুই ভ্যাকসিনেটেড কর্মী কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন। পুরো এলাকা স্যানিটাইজ করতে হবে। তার আগে টাইমস স্কোয়ারে কোম্পানির হেডকোয়ার্টাসের ১৪ তলার অফিসের কোনও কর্মী যেন কাজে না আসেন। কিন্তু অনেক কর্মী ওই বার্তা লক্ষ করেননি। তাঁরা মঙ্গলবার সকালে যথাসময়ে অফিসে আসেন। অফিস বন্ধ দেখে তাঁদের অনেকে প্রশ্ন করেন, আবার কি মাস্ক পরে অফিস করতে হবে? কোম্পানি অবশ্য জানায়, এখনই মাস্ক পরার প্রয়োজন নেই।

ভ্যাকসিন না নিয়ে কেউ মরগ্যান স্ট্যানলির অফিসে ঢুকতেই পারেন না। কিন্তু করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়ান্ট যেভাবে ভ্যাকসিনেটেড মানুষের শরীরেও সংক্রমিত হচ্ছে, তাতেই সৃষ্টি হয়েছে বিভ্রান্তি। কর্মীদের অফিসে আসতে বলা উচিত হবে কিনা, তাই বুঝতে পারছে না কর্তৃপক্ষ। কোনও কোনও কোম্পানি অফিস চালু করেছে। কয়েকটি কোম্পানি এখনও ওয়ার্ক ফ্রম হোম চালিয়ে যাচ্ছে।

একসময় অফিস চালু করার পক্ষে জোরালো সওয়াল করেছিল গোল্ডম্যান সাচস গ্রুপ ইনকর্পোরেটেড এবং জে পি মর্গান চেস অ্যান্ড কোম্পানি। কিন্তু ডেল্টা ভ্যারিয়ান্ট ছড়ানোর পরে অফিস খোলা নিয়ে তারা দ্বিধাগ্রস্ত। অন্যান্য অনেক কোম্পানিই মনে করছে, আপাতত অফিস না খোলাই ভাল। পর্যবেক্ষকদের একদল বলছেন, গতবছরে দেখা গিয়েছে, বাড়ি থেকে কাজ করেও ওয়াল স্ট্রিটের কোম্পানিগুলি যথেষ্ট লাভ করেছে। কিন্তু বিভিন্ন কোম্পানির কর্তারা বলছেন, অনলাইনে দীর্ঘদিন কাজ চালানো সম্ভব নয়।

জুলাইয়ের মাঝামাঝি হু-র প্রধান তেদ্রোস আদহানম ঘেব্রেইসাস সকলকে সতর্ক করে বলেছিলেন, করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়ান্টের সংক্রমণ যেভাবে বাড়ছে, তাতে বলা যায়, আমরা অতিমহামারীর তৃতীয় ঢেউয়ের প্রাথমিক স্তরে পৌঁছে গিয়েছি। তাঁর কথায়, “দুর্ভাগ্যজনক ব্যাপার হল, আমরা এখন থার্ড ওয়েভের প্রাথমিক স্তরে রয়েছি।” হু প্রধানের মতে, নানা দেশে সামাজিক যোগাযোগ বেড়েছে। সর্বত্র কোভিড বিধি মেনে চলা হচ্ছে না। তাছাড়া অতি সংক্রামক ডেল্টা ভ্যারিয়ান্টের জন্যও সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

হু প্রধানের ওই সতর্কবার্তার পরে কেটে গিয়েছে ১৫ দিনের বেশি। এর মধ্যে ডেল্টা ভ্যারিয়ান্ট ছড়িয়ে পড়েছে নতুন নতুন অঞ্চলে।

ইউএন নিউজ অনুযায়ী, গত কয়েক মাস ধরে ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকায় টিকাকরণ বৃদ্ধি পেয়েছে। একসময় ওই সব অঞ্চলে সংক্রমণ ও মৃত্যু, দুই-ই কমেছিল। কিন্তু সম্প্রতি সংক্রমণ ফের বাড়ছে। করোনাভাইরাসের অভিযোজন অব্যাহত রয়েছে। নতুন ভ্যারিয়ান্ট আরও ছোঁয়াচে হয়ে উঠছে।

তেদ্রোস জানিয়েছিলেন, “১১১ টি দেশে ডেল্টা ভ্যারিয়ান্টের অস্তিত্ব লক্ষ করা গিয়েছে। মনে হয়, শীঘ্রই বিশ্ব জুড়ে এই ভ্যারিয়ান্টই প্রধান হয়ে দাঁড়াবে।” ১০ সপ্তাহ ধরে বিশ্ব জুড়ে কোভিডে মৃত্যু কমছিল। জুলাইতে ফের বেড়েছে মৃত্যু। খবর দ্য ওয়ালের

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *