ঢাকা, বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:০১ অপরাহ্ন
একটি শর্তেই আমি সংসদে সমর্থন করব বিজেপিকে, ঘোষণা মায়াবতীর
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

একটি শর্তেই আমি সংসদে সমর্থন করব বিজেপিকে, ঘোষণা মায়াবতীর
 পেগাসাস বিতর্কে সংসদে বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে একজোট হয়েছে ১৪ টি বিরোধী দল। এই পরিস্থিতিতে শুক্রবার বিএসপি নেত্রী মায়াবতী ঘোষণা করলেন, একটি শর্তে তিনি সংসদের ভিতরে ও বাইরে বিজেপি সরকারকে সমর্থন করতে রাজি আছেন। তা হল, অন্যান্য পশ্চাৎপদ শ্রেণির জনগণনা করতে হবে। হিন্দিতে টুইট করে মায়াবতী বলেন, “বিএসপি চায়, দেশ জুড়ে ওবিসিদের জনগণনা করা হোক। কেন্দ্রীয় সরকার যদি এই লক্ষ্যে ইতিবাচক পদক্ষেপ নেয়, বিএসপি নিশ্চয় সংসদের ভিতরে ও বাইরে তাদের সমর্থন করবে,”

এর আগে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারও দাবি করেন, তাঁর রাজ্যে জাতপাতভিত্তিক জনগণনা করতে হবে। বৃহস্পতিবার নীতীশ বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করার জন্য তিনি সময় চেয়েছিলেন। কিন্তু বৃহস্পতিবার নীতীশ জানালেন, প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে কোনও সাড়াশব্দ পাননি। কিছুদিন আগে নীতীশের জেডি ইউ-এর সাংসদরাও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে পারেননি। তাঁদের বলা হয়েছিল, প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে দেখা করা সম্ভব নয়। তাঁরা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করতে পারেন।

নীতীশ এদিন বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার জাতপাতের ভিত্তিতে জনগণনা করবে কিনা, তা তাদের ব্যাপার। আমাদের কাজ, নিজেদের দৃষ্টিভঙ্গি সরকারের সামনে পেশ করা। অনেকে ভাবছেন, জাতপাতের ভিত্তিতে গণনা হলে একটি জাতের সুবিধা হবে, অন্য জাতগুলির অসুবিধা হবে। এই ধারণা অমূলক। জাতপাতের ভিত্তিতে জনগণনা হলে সকলেরই সুবিধা হবে।

বিহারের মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “ব্রিটিশ আমলেও জাতপাতের ভিত্তিতে জনগণনা হত। এভাবে জনগণনা হলে সমাজের সব স্তরের মানুষই লাভবান হবে।” নীতীশের প্রস্তাবের বিরোধিতা করেছে তাঁরই জোটশরিক বিজেপি। বিহার বিজেপির প্রধান সঞ্জয় জয়সোয়াল বলেন, এর ফলে সমাজে অশান্তি সৃষ্টি হতে পারে।

এর আগে পেগাসাস নিয়ে বিজেপি সরকারের সঙ্গে ভিন্নমত পোষণ করেছিলেন নীতীশ। তিনি দাবি করেন, পেগাসাস স্পাইওয়ারের সাহায্যে ফোনে আড়ি পাতা নিয়ে তদন্ত করতে হবে।

নীতীশ বলেছেন, কাউকে হয়রান করার জন্য তাঁর ফোনে আড়ি পাতা উচিত নয়। সব কিছু প্রকাশ্যে জানানো উচিত।
ফোনে আড়ি পাতার বিষয়টা প্রথম সামনে আসে যখন একটি ডেটাবেস লিক হয়ে যায়। তাতেই সরকার ও বিরোধী পক্ষের একাধিক নেতা-মন্ত্রী, সাংবাদিক, আমলা, মানবাধিকার কর্মী, আইনজীবী, শিল্পপতি সহ প্রায় ৩০০ জনের ফোন নম্বর লেখা ছিল। তা থেকেই সন্দেহ জাগে, তাহলে কি এইসব নম্বর হ্যাক করে ফোনে আড়ি পাতা হচ্ছে।  খবর দ্য ওয়ালের /এনবিএস /২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: