ঢাকা, রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:১৭ পূর্বাহ্ন
কুম্ভে ভক্তদের ভুয়ো কোভিড টেস্টিং, ইডি তল্লাশি একাধিক ল্যাবে
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

কুম্ভে ভক্তদের ভুয়ো কোভিড টেস্টিং, ইডি তল্লাশি একাধিক ল্যাবে

কলকাতার কসবায় ভুয়ো কোভিড ১৯ রোধী ভ্যাকসিন শিবির বসিয়ে শিরোনামে এসেছেন অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেব। কীভাবে পুলিশ, প্রশাসনের নাকের ডগায় তিনি জাল ভ্যাকসিনের কারবার চালাচ্ছিলেন  ভুয়ো আইএএস অফিসার পরিচয়ে, তার পর্দাফাঁসে তদন্ত চলছে। তার মধ্যেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে কুম্ভমেলায় যোগদানকারী লাখ লাখ ভক্তের ভুয়ো করোনা পরীক্ষার খবর ফাঁস হওয়ায়। জানা গিয়েছে, উত্তরাখন্ড, হরিয়ানা, দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ থেকে দলে দলে পূণ্যার্থীরা কুম্ভে গিয়েছেন নকল করোনা টেস্টের রিপোর্ট দেখিয়ে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে আদৌ কোনও পরীক্ষাই হয়নি। এ ব্যাপারে শুক্রবার অভিযানে নেমেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)।

তদন্তকারী সংস্থা তাদের সরকারি হ্যান্ডলে ট্যুইট করেছে, হরিদ্বারের কুম্ভমেলার সময় ভুয়ো কোভিড পরীক্ষা কেলেঙ্কারির ব্যাপারে তারা একাধিক  প্যাথলজিকাল ল্যাবরেটরির দপ্তর, তাদের মালিকদের বাড়িতে হানা দিয়ে তল্লাশি চালিয়েছে। নোভাস পাথ ল্যাবস, ডিএনএ ল্যাবস, ম্যাক্স কর্পোরেট সার্ভিসেস, ডঃ লাল চন্দানি ল্যাবসের দেহরাদুন,হরিদ্বার, দিল্লি, নয়ডা, হিসারের  কার্য্যালয়ে অভিযান হয়েছে। বাজেয়াপ্ত হয়েছে ৩০.৯ লাখ টাকা, সম্পত্তি বিষয়ক নথিপত্র, মোবাইল ফোন, ভুয়ো বিল ও বেশ কিছু আপত্তিকর নথিপত্র। ল্যাবগুলি কোনও নমুনাই পরীক্ষা না করে কোভিড ১৯ টেস্ট রিপোর্টের সংখ্যা বাড়িয়ে দেখানোর জন্য একটিই মোবাইল নম্বর ব্যবহার করেছে বা ভুয়ো মোবাইল নম্বর দেখিয়েছে, একাধিক ব্যক্তির ক্ষেত্রে একটিই ঠিকানা দেখানো হয়েছে।


অভিযুক্ত টেস্টিং ল্যাব কোম্পানি ও সেগুলির ডিরেক্টরদের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই বেআইনি আর্থিক লেনদেন রোধ আইনের (পিএমএলএ) ধারায় ফৌজদারি মামলা রুজু করেছে ইডি।


কুম্ভমেলায় যোগদানকারী ভক্তদের কোভিড ১৯ পরীক্ষায় অনিয়মে অভিযুক্ত একটি কোম্পানি ও দুটি প্যাথলজি ল্যাবের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই রুজু  হওয়া এফআইআরে ৪৬৭ ধারা যুক্ত করেছে সিট।  গত মাসে মামলা রুজু করা হয়েছে ১৮৯৭ এর মহামারী আইন, ২০০৫ এর বিপর্যয় মোকাবিলা আইন, ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪২০ (জালিয়াতি), ৪৬৮, ৪৭১, ১২০ বি, ১৮৮, ২৬৯ ও ২৭০ ধারায়। তবে দুটি প্যাথলজি কোম্পানির মালিকরা চলতি তদন্তে সহযোগিতার শর্তে উত্তরাখন্ড হাইকোর্ট থেকে গ্রেফতারির ওপর স্থগিতাদেশের রায় বের করে নিয়েছেন।

উত্তরাখন্ড পুলিশের দায়ের করা এফআইআরের ভিত্তিতে প্রথমে বেআইনি আর্থিক লেনদেনের তদন্ত শুরু করে ইডি। তদন্তে নেমে ইডি জানতে পারে, ওই ল্যাবগুলিকে এবছর কুম্ভ মেলার সময় কোভিড পরীক্ষার জন্য রাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট ও আরটি-পিসিআর টেস্ট করানোর বরাত দিয়েছিল উত্তরাখন্ড সরকার। কিন্তু কার্যতঃ কোনও কোভিড পরীক্ষাই করেনি ল্যাবগুলি, উল্টে কোভিড টেস্টিংয়ের ভুয়ো এন্ট্রি দেখিয়ে ভুতুড়ে বিল করে আংশিক পেমেন্ট বাবদ রাজ্য সরকারের কাছ থেকে ৩.৪ কোটি টাকা আদায় করেছে। খবর ওয়ালের / এনবিএস /২০২১/ একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *