ঢাকা, বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:১৫ অপরাহ্ন
 নিমরোজ প্রদেশের রাজধানী তালিবান দখলে, মার্কিন বাহিনী প্রত্যাহারের পর প্রথম
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

 নিমরোজ প্রদেশের রাজধানী তালিবান দখলে, মার্কিন বাহিনী প্রত্যাহারের পর প্রথম

 মার্কিন নেতৃত্বাধীন সেনাবাহিনী আফগানিস্তান ছাড়া শুরু করতেই নির্বিচার তাণ্ডব শুরু তালিবানের। যেদিন তারা আফগান সরকারের মিডিয়া তথ্য দপ্তরের প্রধানকে হত্যার দায় নেয়, সেদিনই তারা নিমরোজ প্রদেশের রাজধানী জারাঞ্জ দখল করেছে বলে খবর। বিদেশি সেনারা বিদায় নিতেই আফগান সরকারকে নিশানা করে হামলা শুরুর পর তাদের কোনও প্রাদেশিক রাজধানী দখল এই প্রথম।  সেখানকার ডেপুটি গভর্নর রোহ গুল খায়েরজাদ সংবাদ সংস্থাকে জারাঞ্জ তালিবানের দখলে চলে যাওয়ার কথা জানিয়েছেন। ‘বিনা যুদ্ধে’ই তারা ওই এলাকা কব্জা করেছে। জায়গাটা দক্ষিণপশ্চিম আফগানিস্তানে ইরান সীমান্তের কাছে। সোস্যাল মিডিয়ায় তালিবান সন্ত্রাসবাদীদের রাস্তায় রাস্তায় দাপিয়ে বেড়ানোর, স্থানীয় বাসিন্দাদের উল্লাসের ছবি দেখা যাচ্ছে। যদিও সেই ভিডিও সত্যতা যাচাই করা সম্ভব হয়নি। এদিকে আফগানিস্তানের ঘটনাবলী  নিয়ে নিউইয়র্কে আলোচনায় বসতে চলেছে রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদ।

তাদের ওপর লাগাতার বিমান হামলার পাল্টা শীর্ষ প্রশাসনিক কর্তাদের টার্গেট করবে বলে বুধবারই জানিয়ে দেয় তালিবান। সেইমতো সরকারের সামনের সারির অন্যতম প্রধান মুখ দাওয়া খান মেনাপালকে খুন করে তারা।  তার আগের দিনই তাদের সঙ্গে রক্তাক্ত সংঘর্ষ হয় সরকারি বাহিনীর। মেনাপালের প্রয়াণে গভীর শোক প্রকাশ করে আফগান অভ্যন্তরীণ মন্ত্রকের মুখপাত্র মিরওয়েইস স্তানিকজাই বলেছেন, দুর্ভাগ্যর কথা, বন্য সন্ত্রাসবাদীগুলি ফের কাপুরুষের মতো কাজ করল। শহিদ হলেন এক দেশপ্রেমিক আফগান।


সোস্যাল মিডিয়ায় তালিবানকে আক্রমণ, কখনও কখনও ব্যঙ্গবিদ্রুপও করতেন স্তানিকজাই। মিডিয়া মহলে যথেষ্ট জনপ্রিয় ছিলেন।  তার হত্যার দায় নিয়ে তালিবান মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ মিডিয়াকে পাঠানো বার্তায় বলেছে, মুজাহিদদের বিশেষ হামলায় সে নিহত হয়েছে।  এর আগেরদিন বোমা-গুলি হামলায় প্রতিরক্ষামন্ত্রী বিসমিল্লাহ মহম্মদি কোনওমতে প্রাণে বাঁচেন।

আফগানিস্তানে গত মে থেকে দীর্ঘদিনের সংঘাত তীব্র চেহারা নেয়, যখন বিদেশি বাহিনী বিদায় নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করে। তালিবান দেশের প্রত্যন্ত এলাকার বেশিরভাগ দখল করে এখন একাধিক প্রদেশে সরকারি বাহিনীকে চ্যালেঞ্জ করছে। পাল্টা সরকারি বাহিনীও তালিবানি ঘাঁটিগুলির ওপর বিমান হানা, কম্যান্ডো অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। প্রতিরক্ষামন্ত্রক শুক্রবার গত ২৪ ঘন্টায় ৫০০র বেশি তালিবান সদস্যকে খতম করার দাবি করেছে। তালিবান, সরকারি বাহিনীর লড়াইয়ের মধ্যে চরম বিপদে পড়েছে সাধারণ মানুষ। পশ্চিমের হেরাট প্রদেশে তালিবানি ঘাঁটির ওপর সরকারি বাহিনীর আক্রমণের আশঙ্কায় ঘরবাড়ি ফেলে নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে বেরিয়ে পড়েছে লোকজন। আহমেদ জিয়া নামে শহরের এক বাসিন্দা বলেছেন, আমরা সব ছেড়েছুড়ে  বেরিয়ে পড়েছি। কোথায় যাব, তা অবশ্য জানি না। দ্য ওয়ালের / এনবি এস /২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: