ঢাকা, মঙ্গলবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন
শক্তি বাড়িয়ে তছনছ করছে তালিবান, ৯০ দিনের মধ্যে দখল নেবে কাবুলের
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

শক্তি বাড়িয়ে তছনছ করছে তালিবান, ৯০ দিনের মধ্যে দখল নেবে কাবুলের

 একের পর এক প্রাদেশিক রাজধানী, শহর দখল করে নিচ্ছে তালিবান বাহিনী। জেল থেকে মুক্তি দিচ্ছে শয়ে শয়ে বন্দিকে। জঙ্গিদের দলে ঢুকিয়ে শক্তি বাড়িয়ে নিজেদের সাম্রাজ্য তৈরি করে চলেছে। আফগানিস্তানের প্রায় ৬৫ শতাংশই এখন তালিবানের দখলে। বাকিটা খুব তাড়াতাড়ি নিজেদের আয়ত্তে নিয়ে ফেলবে, এমনটাই আশঙ্কা করছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলি। মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতরের সাম্প্রতিক রিপোর্ট বলছে, আর মাস দুয়েকের মধ্যে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের পতন নিশ্চিত। সেই লক্ষ্যেই এগোচ্ছে তালিবান।

পেন্টাগনের এক কর্মকর্তা বলেছেন, তালিবান যেভাবে শক্তি সঞ্চয় করছে তাতে আর ৬০ দিনের মধ্যেই কাবুলকে গোটা দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলবে। মাস তিনেকের মধ্যে রাজধানীর আধিপত্য নিয়ে নেবে। আফগান সেনারা যদি তালিবান বাহিনীকে প্রতিহত করতে না পারে, তাহলে কাবুলের পতন রোখা সম্ভব হবে না।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের একটি সূত্র বলছে, আফগানিস্তানের বেশিরভাগ প্রদেশই তালিবানের দখলে। ১১টি প্রাদেশিক রাজধানীতে সাম্রাজ্য বিস্তার করেছে তারা। গত মঙ্গলবার বাদাকশান প্রদেশের ফৈজাবাদ দখল করে নিয়েছে। তার আগে রবিবার কুন্দুজ প্রদেশের দখল নিয়েছে। শুক্রবারই তারা দক্ষিণ-পশ্চিমের নিমরোজ প্রদেশের রাজধানী জারাঞ্জ দখল করে। জাওযান প্রদেশের শেবেরঘান শহরও তালিবানদের দখলে চলে গেছে। শহরের আধিপত্য নিয়েই সাতশোর বেশি জেলবন্দিকে মুক্তি দিয়েছে তালিবানরা। তাদের অনেকে আবার তালিবানে যোগও দিয়েছে। সেই মে মাস থেকে চলছে তালিবানদের এই আক্রমণ।

কুন্দু, শেবেরঘানও তালিবানদেরও আয়ত্তে চলে গেছে। গভর্নরের কার্যালয়, পুলিশের সদর দফতর ও কারাগারগুলির দখল নেওয়ার পরেই, বন্দিদের মুক্ত করতে শুরু করেছে তালিবানরা। জঙ্গি কার্যকলাপে যুক্ত থাকার অভিযোগে যারা জেল খাটছিল, তাদের বেশিরভাগই এখন মুক্ত। এদের মধ্যে অন্তত ৭০০ জন পুরুষ ও ৩০ জন মহিলা। এই বন্দিদের মধ্যে জেহাদিদের সংখ্যাই বেশি। তালিবান বাহিনীতে থাকা যুদ্ধাস্ত্র চালানোয় পারদর্শী অনেক জঙ্গিকেই গ্রেফতার করা হয়েছিল বিভিন্ন সময়। তারাও এখন মুক্ত। এই জেলবন্দিদের নিয়েই তালিবানরা নিজেদের বিশাল দল গড়ার লক্ষ্যে এগোচ্ছে বলেই মনে করা হচ্ছে। জানা গেছে, গত কয়েক মাসের তালিবান হামলায় প্রায় ৪০০০ আফগানিস্তান ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যান্ড সিকিউরিটি ফোর্সের জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে। জখম হয়েছেন ৭ হাজারেরও বেশি জওয়ান। আর ১৬০০-রও বেশি কর্মীকে পণবন্দি করেছে তালিবান। তালিবান হিংসায় মৃত্যু হয়েছে ২০০০ জন সাধারণ মানুষের। জখম হয়েছেন অন্তত ২২০০ জন।  খবর দ্য ওয়ালের / এনবিএস/ ২০২১/ একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *