ঢাকা, শনিবার ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৫৫ পূর্বাহ্ন
মুসলিম ব্যক্তিকে কানপুরের রাস্তায় মারধর, বাবাকে বাঁচানোর জন্য কান্না শিশুকন্যার
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

মুসলিম ব্যক্তিকে কানপুরের রাস্তায় মারধর, বাবাকে বাঁচানোর জন্য কান্না শিশুকন্যার
৪৫ বছর বয়সী এক মুসলিম ধর্মাবলম্বী ব্যক্তিকে রাস্তা দিয়ে নিয়ে যাচ্ছে জনতা। তাঁকে মারধর করা হচ্ছে। ‘জয় শ্রীরাম’ বলতে বাধ্য করা হচ্ছে। ওই ব্যক্তির শিশুকন্যা কাঁদতে কাঁদতে জনতার কাছে আবেদন করছে, তার বাবাকে যেন না মারা হয়। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া এক ভিডিও ফুটেজে এমনই দেখা গিয়েছে। আক্রান্ত ব্যক্তিকে পরে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

উত্তরপ্রদেশের কানপুরে এক ব্যক্তিকে ওইভাবে মারধর করা হচ্ছিল। শহরে বুধবার বজরং দল এক জনসভা করে। তাদের অভিযোগ, একটি হিন্দু মেয়েকে স্থানীয় মুসলিমরা ধর্মান্তরের চেষ্টা করছেন। বজরং দলের সভার পরে ওই ব্যক্তিকে মারধর করা হয়।


বৃহস্পতিবার কানপুর পুলিশ বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, এক ব্যক্তি ও তাঁর ১০ সঙ্গীর বিরুদ্ধে দাঙ্গা করার অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। ওই ব্যক্তি একটি ম্যারেজ ব্যান্ড চালান। তবে ওই ব্যক্তি বজরং দলের সদস্য কিনা পুলিশ জানায়নি।


আক্রান্ত ব্যক্তি ই-রিকশ চালান। তিনি বলেছেন, বেলা তিনটের সময় আমি ই রিকশ চালাচ্ছিলাম। আচমকা একদল লোক আমাকে মারধর করতে থাকে। তারা আমাকে ও আমার পরিবারকে খুন করবে বলে হুমকি দেয়। ওই ব্যক্তির কয়েকজন আত্মীয়ের সঙ্গে হিন্দু প্রতিবেশীদের আইনি লড়াই চলছে। কানপুর পুলিশ জানিয়েছে, হিন্দুদের তরফ থেকেও অভিযোগ করা হয়েছে, এক মহিলার শ্লীলতাহানির চেষ্টা হয়েছিল।

একটি সূত্রে জানা যায়, একটি হিন্দু ও একটি মুসলিম পরিবারের বিবাদে সম্প্রতি জড়িয়েছে বজরং দল। তাদের অভিযোগ, মুসলিম পরিবারটি একটি হিন্দু মেয়েকে জোর করে ধর্মান্তরের চেষ্টা করেছিল।

ইতিমধ্যেই জোর করে ধর্মান্তরিত করার বিরুদ্ধে আইন নিয়ে এসেছে উত্তরপ্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশ সরকার। দুটিই বিজেপি শাসিত রাজ্য। বিজেপি শাসিত আরও একাধিক রাজ্য যেমন হরিয়ানা, অসম, কর্নাটকও এই আইন আনার কথা ভাবছে। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ স্পষ্ট বলেছেন, লাভ জিহাদ হল হিন্দু মেয়েদের জোর করে মুসলিম ধর্মে ধর্মান্তরিত করার জন্য দক্ষিণপন্থীদের চক্রান্ত।

উত্তরপ্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশে যে আইন নিয়ে আসা হয়েছে তাতে স্পষ্ট বলা রয়েছে, কোনও মহিলা যদি স্বেচ্ছায় ধর্ম পরিবর্তন করতে চান তাহলে তাঁকে অন্তত দু’মাস আগে আবেদন করতে হবে। একবার আবেদন মঞ্জুর হয়ে গেলে তিনি সেটা করতেই পারেন। কিন্তু জোর করে কাউকে ধর্মান্তরিত করা যাবে না। নইলে সর্বোচ্চ ১০ বছরের জেল কিংবা সর্বাধিক ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা হতে পারে। বিজেপি শাসিত একাধিক রাজ্য এই আইন পাশ করলেও অবশ্য কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের এই ধরনের কোনও পরিকল্পনা নেই বলেই জানিয়ে দিল তারা। খবর দ্য ওয়ালের / এনবিএস/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *