ঢাকা, সোমবার ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫৫ পূর্বাহ্ন
সপ্তাহে ৫৫ ঘণ্টার বেশি কাজ করেন! সাঙ্ঘাতিক বিপদ ডেকে আনছেন শরীরে ও মনে
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

সপ্তাহে ৫৫ ঘণ্টার বেশি কাজ করেন! সাঙ্ঘাতিক বিপদ ডেকে আনছেন শরীরে ও মনে

আধুনিক জীবনযাপন ও পরিবর্তিত অভ্যাসের জেরে যে সমস্ত সমস্যা নিয়ে আমরা প্রায়ই আতঙ্কে থাকি, তা হল দীর্ঘসময় এক জায়গায় বসে কাজ। অফিসের কাজ থেকে মুখ তোলার উপায় নেই। কোনওমতে নাকেমুখে গুঁজেই বসে পড়া। ঘণ্টার পর ঘণ্টা একটানা কাজ। মাঝে সীমিত সময়ের বিরতি, তাও হয়তো জোটে না অনেক সময়। কেরিয়ারের জন্য অতিরিক্ত পরিশ্রম করতেই পারেন, কিন্তু শরীরেরও বিশ্রাম দরকার। নাগাড়ে কাজ করতে করতে নিজের অজান্তেই বিপদ বাড়ছে। শরীরে জটিল রোগ ডেকে আনছেন না তো?

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সমীক্ষা বলছেন, বিরামহীনভাবে কাজ করেন যাঁরা, তাঁরা নিজের শরীরেরই চরম ক্ষতি করে ফেলেন। প্রথমে বোঝা যায় না। ক্লান্তি বাড়ে, মানসিক চাপ বাড়ে, উদ্বেগ-উৎকণ্ঠাও বাড়ে। ধীরে ধীরে এই স্ট্রেস সারা শরীরকে কাবু করে ফেলে। নানারকম রোগব্যধি হতে শুরু করে। হু-র গবেষণা বলছে, ২০১৬ সালের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, শুধুমাত্র দীর্ঘসময় একটানা কাজ করার জন্য বিশ্বজুড়ে মৃত্যু হয়েছে ৭ লাখ ৪৫ হাজার মানুষের। প্রত্যেকেই সপ্তাহে ৫৫ ঘণ্টা বা তার বেশি সময় ধরে কাজ করেছিলেন।

হু-র পরিসংখ্যাণ রীতিমতো চমকে দেবে। ২০০০ সালেও এমন একটা সমীক্ষা করা হয়েছিল। তাতে দেখা গিয়েছিল একটানা কাজ ও স্ট্রেসের কারণে প্রায় ৬ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। অতিরিক্ত পরিশ্রম আর স্ট্রেসের কারণে কেউ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন, কারও মানসিক চাপ অত্যাধিক বেড়ে ব্রেন স্ট্রোকের পর্যায়ে চলে গিয়েছিল। তাছাড়া কম ঘুম, অনিদ্রা বা ইনসমনিয়া, অপুষ্টি, ওবেসিটি, থাইরয়েড, ডায়াবেটিস ইত্যাদির সমস্যাতেও জেরবার হয়েছিলেন অনেকে। ২০১৬ সালে স্ট্রেসজনিত কারণে স্ট্রোকে মৃত্যু হয়েছিল প্রায় সাড়ে তিন লাখের, কার্ডিওভাস্কুলার রোগে মৃত্যু চার লাখের কাছাকাছি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই দীর্ঘ সময় এক জায়গায় বসে থাকার কারণে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবিটিস, মেদবাহুল্য, রক্তে অতিরিক্ত কোলেস্টেরল, হার্টের রোগ হানা দেয় শরীরে। ব্রেন স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ে ৩৫ শতাংশ, হার্টের রোগের সম্ভাবনা বাড়ে প্রায় ১৭ শতাংশ। সপ্তাহে ৩৫-৪০ ঘণ্টা কাজ করেন যাঁরা তাঁদের তুলনায় সপ্তাহে ৫৫ ঘণ্টা বা তার বেশি কাজ করেন যাঁরা, তাঁদের নানারকম অসুখবিসুখের ঝুঁকি বেশি। তবে  জীবিকা ছেড়ে দেওয়া তো সম্ভব নয়, আবার একটানা বসে থাকলে তা শরীরের জন্যও ভাল নয়। তাই যাঁদের টানা কাজ করতে হয় তাঁরা নিয়মিত শারীরিক কসরত করুন। প্রতি দু’ঘণ্টায় কয়েক পা হেঁটে নিন বা স্পট জগিং করে নিন। বসে থেকেও দুই পায়ের ব্যায়াম করা যায়, এতে রক্ত সঞ্চালন ঠিক থাকে। চেষ্টা করুন কাজের ফাঁকে কিছু সময় বের করে একটু হেঁটে আসার, এতে শরীর ও মন দুই ভাল থাকবে।

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *