ঢাকা, শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন
গত ১০-১৫ বছর ধরেই শক্তি বাড়াচ্ছিল তালিবান, বলছেন মার্কিন বিশেষজ্ঞরা
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

গত ১০-১৫ বছর ধরেই শক্তি বাড়াচ্ছিল তালিবান, বলছেন মার্কিন বিশেষজ্ঞরা

 আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের প্রায় দোরগোড়ায় পৌঁছে গিয়েছে তালিবান। আফগান প্রেসিডেন্ট আশরফ গনি শনিবার সকালে টিভিতে এক ভাষণে বলেছেন, তিনি ফের ছত্রভঙ্গ হওয়া সেনাকে সংগঠিত করবেন। কিন্তু গুজব শোনা যাচ্ছে, তিনি তলে তলে পদত্যাগের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তালিবানের ভয়ে ইতিমধ্যে গা ঢাকা দিয়েছেন তাঁর সরকারের কয়েকজন কর্তাব্যক্তি। এই পরিস্থিতিতে মার্কিন সমর বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গত ১০-১৫ বছর ধরেই ধীরে ধীরে শক্তি বাড়িয়েছে তালিবান। মার্কিন প্রশাসন যে একথা জানত না তা নয়। কিন্তু কোনও প্রেসিডেন্টই প্রকাশ্যে সেকথা স্বীকার করেননি। বরং তাঁরা যুদ্ধের এক উজ্জ্বল চিত্র তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন।

দুই দশক ধরে চলা আফগান যুদ্ধে আমেরিকা খরচ করেছে প্রায় ৬০ হাজার কোটি টাকা। নিহত হয়েছেন প্রায় আড়াই হাজার মার্কিন সেনা। আহত হয়েছেন ২০ হাজারের বেশি। ৬৪ হাজার আফগান সেনা ও পুলিশ মারা গিয়েছেন। ১ লক্ষ ১১ হাজার নিরীহ মানুষ মারা গিয়েছেন। এর পরে যেভাবে তালিবান ফের আফগানিস্তানের বিস্তীর্ণ অংশ দখল করে নিয়েছে, তাকে আমেরিকার পরাজয় বলেই দেখছেন অনেকে।


২০০১ সালে ন্যাটো বাহিনীর আক্রমণে তালিবান কাবুল থেকে পালাতে বাধ্য হয়। তখন টিভিতে দেখা গিয়েছিল, তালিবানের হাত থেকে রেহাই পেয়ে অনেক আফগান আনন্দ করছেন। কিন্তু বাস্তবে কখনই তালিবানকে পুরোপুরি পরাস্ত করতে পারেনি আমেরিকা। কাবুল এবং অন্যান্য বড় শহর তালিবানের হাতছাড়া হয়েছিল ঠিকই কিন্তু আফগানিস্তানের দক্ষিণের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে এবং উত্তরে হেলমন্দ, কান্দাহার, উরুজগান ও জাবুল প্রদেশে ছিল তাদের শক্ত ঘাঁটি। সেখানে তারা প্রতি মাসে মার্কিন বাহিনীর ওপরে হামলা চালাত।


 

২০১৭ সালের একটি বিদেশি সংবাদ মাধ্যমের সমীক্ষায় জানা যায়, আফগানিস্তানের বেশ কয়েকটি জেলা তালিবানের দখলে রয়েছে। তার মধ্যে কয়েকটি জেলায় আফিমের চাষ হয়। মাদক বিক্রি করে কোটি কোটি ডলার রোজগার হয় তালিবানের।

আমেরিকার মেরিল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তথা নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ আসিম ইউসুফজাই বলেছেন, মার্কিন সেনা মূলত আফগানিস্তানের শহরগুলি দখলে রাখার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তালিবান শক্তিবৃদ্ধি করছিল গ্রামাঞ্চলে। ২০১৯ সালে ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ সংবাদপত্রে ক্রেগ হুইটলক নামে এক সাংবাদিক লিখেছিলেন, মার্কিন প্রশাসন মুখে বলছে, আফগানিস্তানে শীঘ্রই তালিবান পরাজিত হবে। কিন্তু বাস্তবে প্রশাসনের কর্তারা জানেন, একথা সত্যি নয়।

বারাক ওবামা প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন আফগানিস্তানে সৈন্যের সংখ্যা অনেক বেশি বাড়িয়েছিলেন। একসময় সেখানে ১ লক্ষের বেশি মার্কিন সেনা মোতায়েন করা ছিল। ২০০৯ সাল নাগাদ অনেক এলাকা হাতছাড়া হয়েছিল তালিবানের। কিন্তু সেই বিজয় বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হয়ে আফগানিস্তানে বিমান হানা বাড়িয়ে দেন। এর ফলে সাধারণ মানুষের মৃত্যুর সংখ্যা তিন গুণের বেশি বেড়ে যায়। জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হওয়ার পরে বলেন, ২০২১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সব সেনা ফিরিয়ে আনবেন। আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, আফগান সৈন্যের সংখ্যা এখন তিন লক্ষ। তারা দেশকে রক্ষা করতে পারবে। কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি। পর্যবেক্ষকরা বলছেন, তালিবানের কাবুল দখল এখন সময়ের অপেক্ষা ।খবর দ্য ওয়ালের/এনবিএস/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *