ঢাকা, রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন
আফগানিস্তান ছাড়লেন সদ্যপ্রাক্তন প্রেসিডেন্ট আশরফ গনি, চলছে শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তর
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

আফগানিস্তান ছাড়লেন সদ্যপ্রাক্তন প্রেসিডেন্ট আশরফ গনি, চলছে শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তর

তালিবানের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করে, পদত্যাগ করার পরে, এবার আফগানিস্তানও ছাড়লেন সদ্যপ্রাক্তন প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। সঙ্গে রয়েছেন তাঁর ঘনিষ্ঠ কয়েক জন। রবিবার সন্ধেয় এমনটাই দাবি করল আফগান সংবাদমাধ্যম টোলো নিউজ।

তালিবানের মুখপাত্র জাবিউল্লা মুজাহিদ বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছেন, “শান্তিপূর্ণ ভাবে কাবুল আত্মসমর্পণ করছে। কাবুলের বাইরে তালিবান যোদ্ধারা তৈরি আছে। ক্ষমতার হস্তান্তরে কোনও রকম বিঘ্ন ঘটলেই তারা ভেতরে ঢুকবে।”


আফগান সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে। অ্যাক্টিং ইন্টেরিয়র মিনিস্টার আব্দুল সাত্তার মির্জাকাওয়াল বলেন, “শহরের উপর কোনও হামলা ঘটবে না। শান্তিপূর্ণ হস্তান্তরের বিষয়ে দু’পক্ষ একমত হয়েছে।”


তালিবানের রাজনৈতিক প্রধান মুল্লাহ আবদুল গনি বরাদর ইতিমধ্যেই দোহা থেকে কাবুলের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন বলে জানা গেছে। কাবুলের পরিস্থিতি এখন থমথমে। গোটা শহরের দখল তলািবানের হাতে। রাস্তা অবরুদ্ধ। অনেকে দেশ ছাড়ার বিমান ধরতে গিয়ে আটকে গেছেন। এয়ারপোর্টের দিকে হাঁটতে দেখা গেছে বহু নাগরিককে।

গত দেড়মাস ধরেই দুরন্ত তালিবানি হামলা চলছে আফগানিস্তান জুড়ে। তালিবান-আমেরিকা চুক্তি অনুযায়ী এ বছর ৯ মার্চ থেকে আফগানিস্তান থেকে সেনা সরাতে শুরু করে আমেরিকা। তার পরেই ঝাঁপিয়ে পড়ে তালিবান। জুন মাসের শেষে আফগান বাহিনীর সঙ্গে সরাসরি সংঘর্ষ বাঁধে তাদের।

এর পরে গত সপ্তাহ থেকে একের পর এক বড় শহর দখল করতে শুরু করে তালিবান। গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দেশের ৩৪টি প্রদেশের মধ্যে ১৮টি তাদের হাতে ছিল। কিন্তু এর পর ঝড়ের গতিতে এগোতে শুরু করে তালিবান। কুন্দুজ, গজনী, কান্দাহার, হেরাটের পরে কাবুলের দিকে এগিয়ে আসছিল তারা। গতকাল রাতে দখল হয়ে যায় কাবুলের প্রবেশপথ মাজার-ই-শরিফ। এর পরে আজ, রবিবার বেলা গড়াতেই রাজধানী কাবুল দখল করে ক্ষমতা বুঝে নিল তালিবান।

আগাম আশঙ্কা আঁচ করে আগে থেকেই কাবুলের সমস্ত সরকারি দফতর খালি করে দিয়েছিল আশরফ গনি সরকার। বিভিন্ন দেশও নিজেদের দূতাবাস থেকে সদস্যদের সরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল। ফলে একরকম ফাঁকা শহরে এসে, বিনাবাধায় নিজেদের আধিপত্য কায়েম করেছে তালিবান।

এমনই পরিস্থিতিতে বহু মানুষ মরিয়া দেশ ছাড়তে। দেশজুড়ে বিশৃঙ্খলা ক্রমেই বাড়ছে। তাতে মিশে আছে আতঙ্ক, প্রাণের ভয়। কোনও না কোনও ভাবে পালাতে চান তাঁরা, চান প্রাণে বাঁচতে।

এ অস্থিরতা, আতঙ্ক তো নতুন নয় আফগানিস্তানে। নিরাপত্তার অভাব মাথায় নিয়ে সেই কবে থেকে বাঁচছেন আফগানরা। ১৯৯৬ সালে আফগানিস্তান দখল করে তালিবান। তার পর ২০০১ সালে আমেরিকায় টুইন টাওয়ার হামলার পর থেকে শুরু সমস্যা। আলকায়েদার ওই হামলার পরে ‘সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে’ লড়তে গিয়ে যেন এক নতুন লড়াই শুরু করে আমেরিকা। পশ্চিমের বেশিরভাগ দেশই তাদের সমর্থন করে।

আলকায়েদাকে আশ্রয় ও প্রশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে আফগানিস্তানে হামলা চালায় আমেরিকা। আফগানিস্তানের ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হয় তৎকালীন শাসক তালিবান। একসময় বিদেশি বাহিনীর সহায়তায় প্রায় পুরো দেশই তালিবান-মুক্ত হয়, আফগান সরকার ক্ষমতায় বসে। এবার ফের পাশা উল্টে গেল । খবর দ্য ওয়ালের /এনবিএস/২০২১্একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *