ঢাকা, সোমবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০১ অপরাহ্ন
ছুলির সমস্যা থেকে রেহাই মিলবে কীভাবে?
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

ছুলির সমস্যা থেকে রেহাই মিলবে কীভাবে?

ত্বকের খুব পরিচিত একটি সমস্যা হল ছুলি। বর্ষায় ছুলির বাড়বাড়ন্ত সবচেয়ে বেশি নজরে আসে। এই ছুলির জন্য আসলে দায়ী একপ্রকার ফাঙ্গাস বা ছত্রাক। চিকিৎসার পরিভাষায় একে বলে পিটিরিয়াসিস ভারসিকালার।

সাধারণত গ্রীষ্মের শেষ থেকে বর্ষা পর্যন্ত যখন বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বা আর্দ্রতা বেশি থাকে তখনই ত্বকের এই সমস্যা বেশি দেখা দেয়। ছুলি সাধারণত মুখে, বুকে ও পিঠে হলেও শরীরের যে কোনও উন্মুক্ত অংশেও হতে পারে।

কী কী লক্ষণ দেখে সতর্ক হবেন – সাধারণত সাদা রঙের গোল গোল আকারে চামড়ার ওপরে ছুলি দেখা দেয়। তবে হালকা বা আবছা সাদা ছাড়াও ছুলি হালকা বা গাঢ় বাদামি রঙেরও হতে পারে।

কাদের বেশি হয়  – শিশু:‌ যে সব শিশু ওভারওয়েট বা মোটাসোটা,‌ যাদের থাইরয়েড বা ডায়াবেটিসের সমস্যা আছে এবং যারা বেশি ঘামে।

প্রাপ্তবয়স্ক:‌ প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে যাঁরা অপুষ্টির শিকার, ডায়াবেটিসে আক্রান্ত, বেশি ঘামেন এবং যাঁদের পরিবারে ত্বকের এই রোগের বংশগত ইতিহাস রয়েছে।

চিকিৎসায় ছুলি সারে – চিকিৎসায় ছুলি সারে। বিভিন্ন অ্যান্টি–ফাঙ্গাল ক্রিম, পাউডার, সাবান ব্যবহারে করা যেতে পারে। তাতে না সারলে ত্বকরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শে নির্দিষ্ট ডোজে ফ্লুকোনাজোল অথবা কিটোকোনাজোল জাতীয় ট্যাবলেট এবং লাগানোর ওষুধ হিসেবে কিটোকোনাজোল বা জিঙ্ক পাইরিথিয়ন জাতীয় ক্রিম দেওয়া হয়।

প্রতিরোধে কী করণীয় – ১)‌ ছুলি আক্রান্ত অংশ সব সময় পরিচ্ছন্ন ও শুকনো রাখুন। ২)‌ রোগ সারার পরেও কিছুদিন আক্রান্ত অংশে অ্যান্টি–ফাঙ্গাল লোশন বা ক্রিম লাগান।

৩)‌ অনেক সময় মাথায় ছুলির ছত্রাক শরীরে বাসা বাঁধে। সেরকম ক্ষেত্রে কিটোকোনাজল শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন। ৪)‌ বছরের যে সময়ে ছুলির সমস্যা হয়, তখন প্রতি সপ্তাহে অন্তত একদিন শুতে যাওয়ার আগে অ্যান্টি–ফাঙ্গাল ক্রিম বা লোশন ব্যবহার করুন।

৫) গরম ও আর্দ্র দিনগুলোয় ঢিলেঢালা, পাতলা সুতি পোশাক পরুন। ৬)‌ শরীরের যে সব জায়গায় ঘাম বেশি হয়, সেইসব জায়গা পরিষ্কার রাখুন। ঘাম বসতে দেবেন না। ৭)‌ ঠান্ডা লাগার ধাত না থাকলে গরমে দু’থেকে তিন‌বার স্নান করতে পারেন। স্নানের পর গা শুকনো করে মুছুন।

৮) ঘর্মাক্ত অবস্থায় বেশিক্ষণ থাকবেন না। ঘামে ভেজা পোশাক যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পাল্টে নিন এবং না ধুয়ে ওই পোশাক ব্যবহার করবেন না। ৯) রোদে বেরলে ছাতা নিন এবং সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন। ১০) ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

১১) পুষ্টিকর খাবার এবং পরিমিত পরিমাণ জল খান। ১২) অন্যের ব্যবহার করা গামছা, তোয়ালে বা রুমাল ব্যবহার করবেন না। ১৩)‌ বৃষ্টিতে ভিজে গেলে ভাল করে গা, হাত, পা মুছে নিন।

মনে রাখুন, পরিষ্কার–পরিচ্ছন্নতাই ছুলি প্রতিরোধের সবচেয়ে বড় ওষুধ।

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *