ঢাকা, সোমবার ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন
বিমানে চড়ে দেশ ছেড়ে পালানোর জন্য এয়ারপোর্টে হাজার হাজার আফগান, শূন্যে গুলি ছুড়ল মার্কিন সেনা
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

বিমানে চড়ে দেশ ছেড়ে পালানোর জন্য এয়ারপোর্টে হাজার হাজার আফগান, শূন্যে গুলি ছুড়ল মার্কিন সেনা

রবিবার কাবুল দখল করেছে তালিবান। আফগানিস্তান থেকে দ্রুত কয়েক হাজার মার্কিন নাগরিককে ফিরিয়ে আনার জন্য বিমান পাঠিয়েছে আমেরিকা। তালিবানের কবল থেকে পালানোর জন্য সেই বিমানে উঠতে চেয়েছিলেন আফগানরাও। সেই উদ্দেশ্যে সোমবার কয়েক হাজার স্থানীয় মানুষ কাবুল বিমান বন্দরে জড়ো হন। কিন্তু মার্কিন সেনা তাঁদের হটাতে শূন্যে গুলি ছোড়ে।

সোমবার পেন্টাগন ও আমেরিকার বিদেশ দফতর থেকে বিবৃতি দিয়ে বলা হয়, আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আফগানিস্তান থেকে প্রত্যেক মার্কিন নাগরিককে ফিরিয়ে আনা হবে। তাঁদের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে ৬ হাজার মার্কিন সেনা।


এদিন কয়েক ডজন দেশ বিবৃতি দিয়ে বলেছে, যারা আফগানিস্তানে ক্ষমতায় এসেছে, তারা যেন বিদেশিদের দেশ ছেড়ে চলে যেতে দেয়। যে আফগানরা দেশ ছেড়ে যেতে চাইছেন, তাঁদেরও যেন বাধা না দেওয়া হয়। সীমান্ত যেন খোলা থাকে।


এদিন এক বিদেশি টিভি চ্যানেলে দেখা যায়, কাবুলে প্রেসিডেন্টের প্রাসাদে ঘুরে বেড়াচ্ছে সশস্ত্র তালিবান জঙ্গিরা।

মার্কিন প্রশাসন আন্দাজ করেছিল, ন্যাটো সরে আসার পরে আফগানিস্তানে তালিবান আরও সক্রিয় হয়ে উঠবে। কিন্তু এত দ্রুত তারা রাজধানী অবধি চলে আসবে ভাবতে পারেনি। আপাতত জানা গিয়েছে, আমেরিকার মদতে যিনি আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন, সেই আশরাফ গনি দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন। তালিবান ঘোষণা করেছে, দেশের নতুন নাম হবে আফগানিস্তানের ইসলামি আমিরশাহি।

ইতিমধ্যে গুজব ছড়িয়েছে আফগানিস্তানের নতুন প্রেসিডেন্ট হতে চলেছেন তালিবান কম্যান্ডার মোল্লা আবদুল গনি বরাদর। আপাতত সেখানে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার তৈরি হবে। তার শীর্ষে থাকবেন আলি আহমেদ জালালি নামে এক রাজনীতিক। পরে তিনি মোল্লা আবদুল গনি বরাদরের হাতে ক্ষমতা ছেড়ে দেবেন।

তালিবানের কাবুল দখলের পরেই মোল্লা আবদুল গনি বরাদর কয়েকজন প্রতিনিধিকে নিয়ে বিদায়ী আফগান সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। প্রেসিডেন্ট প্যালেসে হওয়া ওই বৈঠকে ক্ষমতার হস্তান্তর নিয়ে কথা হয়।

মোল্লা বরাদরকে আগে আফগানিস্তানের বাইরে বেশি লোক চিনতেন না। কিন্তু আচমকা তিনি চলে এসেছেন সংবাদ শীর্ষে। পাশ্চাত্যের সংবাদপত্রগুলি বলছে, আফগানিস্তানে ২০ বছরের যুদ্ধে কেউ যদি সবচেয়ে বেশি লাভবান হয়ে থাকেন, তিনি হলেন মোল্লা বরাদর।

তালিবানের সংগঠন মূলত পাশতুন জাতির লোকজনকে নিয়ে গঠিত। মোল্লা বরাদরও সেই জাতির মানুষ। তিনি পোপালজাই উপজাতির সদস্য। আফগানিস্তানের আর এক প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাইও ওই উপজাতির সদস্য ছিলেন। ইন্টারপোল জানিয়েছে, ১৯৬৮ সালে উরুজগান প্রদেশের দেহরাউদ জেলায় উইতমাক গ্রামে তাঁর জন্ম হয়। একসময় তিনি গ্রামে ছাগল চরাতেন। আটের দশকে সোভিয়েত সেনার বিরুদ্ধে তথাকথিত জেহাদে যোগ দেন।

১৯৯৪ সালে যে চারজন তালিবান নামে একটি জঙ্গি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, মোল্লা বরাদর তাঁদের অন্যতম। বরাদরের সঙ্গী ছিলেন মোল্লা ওমর। যুদ্ধ চলাকালীনই তাঁর মৃত্যু হয়েছে। মোল্লা ওমরের সঙ্গে পারিবারিক সম্পর্ক ছিল মোল্লা বরাদরের। মোল্লা ওমরের বোনকে তিনি বিবাহ করেছিলেন  ।খবর দ্য ওয়ালের/এনবিএস/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *