ঢাকা, রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫৪ অপরাহ্ন
প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মোদীর সমর্থনে বড় ধস! প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে উঠে আসছেন মমতা, সমীক্ষায় তথ্য 
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মোদীর সমর্থনে বড় ধস! প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে উঠে আসছেন মমতা, সমীক্ষায় তথ্য 

প্রধানমন্ত্রী মোদীর (narendra modi) সমর্থনে বড় ধস। ইন্ডিয়া টুডের (india today) করা মুড অফ দ্য নেশন (mood of the nation) সমীক্ষায় এমনটাই ধরা পড়েছে। গতবছর পর্যন্ত পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সেখানে মোদীকে পছন্দ করছিলেন ৬৬ শতাংশ মানুষ, সেই সমর্থনের ভিত্তি ২৪ শতাংশে নিমে গিয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে সমীক্ষায়। এর পিছনে বড় কারণ হিসেবে উঠে এসেছে, দেশে করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গের মোকাবিলা। 

যেভাবে কেন্দ্র দ্বিতীয় তরঙ্গের মোকাবিলা করেছে এবং আর্থিক পরিস্থিতি সামাল দিয়েছে, তাতে খুশি নয় সাধারণ মানুষ। মোদীকে পছন্দ ২৪%-এর ইন্ডিয়া টুডের সমীক্ষায় বলা হয়েছে, দেশের ২৪% মানুষ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মোদীকে পছন্দর করেন। এক বছরের মধ্যে মোদীর সমর্থন ৬৬% থেকে কমে ২৪% হয়েছে। জানুয়ারিতেও মোদীর এই সমর্থন ছিল ৩৮ শতাংশের মতো। সমীক্ষায় উঠে এসেছে, দেশের মুদ্রাস্ফীতির পরিস্থিতি থেকে আর্থিক উন্নতির জন্য মোদী চেষ্টা করছেন না এমন মানুষের সংখ্যা প্রায় ৬০ শতাংশ। ২০২১-এর জানুয়ারিতে এই সংখ্যাটা ছিল ৩৫ শতাংশের মতো। মোদীর প্রতিদ্বন্দ্বী যোগী ১১% শতাংশের সমর্থন পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন, উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। ১০% মানুষ পছন্দ করছেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকে। যোগী আদিত্যনাথ এবং রাহুল গান্ধী উভয়ের ক্ষেত্রেই জন সমর্থন বেড়েছে। যোগীর ক্ষেত্রে বেড়েছে ৩ শতাংশ এবং রাহুলের ক্ষেত্রে বেড়েছে ৮ শতাংশের মতো।

 অনেকেই বলেন, মোদী সরে গেলে প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসার সম্ভাবনা অমিত শাহের। কিন্তু সমীক্ষায় উঠে এসেছে অমিত শাহের থেকে লোকে উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীকে প্রধানমন্ত্রীর আসনে দেখতে পছন্দ করছেন। মমতা, কেজরিওয়াল রয়েছেন এক জায়গায় সমর্থন বৃদ্ধির দিক থেকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল রয়েছেন একই জায়গায়। গতবছরের অগাস্টে অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে যেখানে ৩ শতাংশ মানুষ সমর্থন করতেন, সেই জায় এখন তাঁকে ৮ শতাংশ মানুষ সমর্থন করছেন। মধ্যে জানুয়ারিতে তাঁকে ৫ শতাংশ মানুষ সমর্থন করতেন।

 অন্যদিকে গত অগাস্টে যেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ২ শতাংশ মানুষ সমর্থন করতেন, সেখানে এখন তাঁকে ৮ শতাংশ মানুষ সমর্থন করছেন। মধ্যে জানুয়ারিতে তাঁকে সমর্থন করেছেন ৪ শতাংশ মানুষ। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে পছন্দের নিরিখে সমর্থন কমেছে অমিত শাহের। গত জানুয়ারিতে যেখানে তাঁকে ৮ শতাংশ মানুষ সমর্থন করতেন, এখন সেই সমর্থনের ভিত্তি ৭ শতাংশ। তবে সমর্থনের নিরিখে সোনিয়া গান্ধী এবং প্রিয়ঙ্কা গান্ধী কার্যত একই জায়গায় রয়েছেন। উভয়কেই সমর্থন করেছেন ৪ শতাংশ করে মানুষ। জনপ্রিয় মুখ্যমন্ত্রী তামিলনাড়ুর স্ট্যালিন নিজের রাজ্যে জনপ্রিয় মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে সবার আগে রয়েছেন তামিলনাড়ুর স্ট্যালিন।

 তাঁকে সমর্থন করেছেন ৪২ শতাংশ মানুষ। তারপরেই রয়েছেন ওডিশার নবীন পট্টনায়েক। তাঁকে ৩৮ শতাংশ মানুষ সমর্থন করেছেন। তারপরে যথাক্রমে রয়েছেন কেরলের পিনারাই বিজয়ন (৩৫%), মহারাষ্ট্রের উদ্ধব ঠাকরে (৩১%), পশ্চিমবঙ্গের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (৩০%), অসমের হিমন্ত বিশ্বশর্মা (২৯%), উত্তর প্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ (২৯%) এবং রাজস্থানের অশোর গেহলট (২২%), দিল্লির অরবিন্দ কেজরিওয়াল (২২%)। দেশের সমস্যা ইন্ডিয়া টুডের সমীক্ষায় উঠে এসেছে দেশের সব থেকে বড় সমস্যার মধ্যে রয়েছে মুদ্রাস্ফীতি এবং বেকারি। এবাছরের জানুয়ারিতে যেখানে দেশের ১৭ শতাংশ মানুষ মতে করতেন দেশের অর্থনীতি খারাপ জায়গায় রয়েছে, তার ঠিক ছয়মাস পরে সেই সংখ্যাটা বেড়ে হয়েছে ৩২ শতাংশ। 

অন্যদিকে আবার ২৮ শতাংশ মানুষ মনে করেন তাঁদের অর্থনৈতিক অবস্থা ভাল হয়েছে মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরে। করোনা পরিস্থিতি নিয়েও ক্ষোভ সমীক্ষায় উঠে এসেছে দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ক্ষোভের কথাও। দেশে করোনায় আক্রান্ত ও মৃতদের সরকারি তালিকা যে সঠিক নয়, সেই কথা বলেছেন অনেকেই। সমীক্ষার সেই মতকে সমর্থন করেছেন প্রায় ৭১ শতাংশ মানুষ। ২৭ শতাংশ মানুষ মনে করেন, দ্বিতীয় তরঙ্গে জমায়েত থেকে করোনা ছড়িয়েছে। ১০ শতাংশ মানুষ সরাসরি রাজ্য সরকারগুলিকে দ্বিতীয় তরঙ্গ ছড়িয়ে পড়ার জন্য দায়ী করেছেন। ১৩ শতাংশ মানুষ দায়ী করেছেন কেন্দ্রকে আর ৪৪ শতাংশ মানুষ কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারগুলিকে একসঙ্গে দায়ী করেছেন ।খবর ওয়ান ইন্ডিয়ার  /এনবিএস/২০২১/একে 
 

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *