ঢাকা, শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৩৭ পূর্বাহ্ন
এবার তালিবান হয়তো যুক্তির কথা শুনবে, আশা ব্রিটিশ সেনাপ্রধানের
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

এবার তালিবান হয়তো যুক্তির কথা শুনবে, আশা ব্রিটিশ সেনাপ্রধানের

ন’য়ের দশকে ক্ষমতায় এসে আফগানিস্তানে ব্যাপক অত্যাচার চালিয়েছিল তালিবান। বিরোধীদের পাথর ছুড়ে হত্যা করা হত। মহিলাদেরও কার্যত ঘরবন্দি করে ফেলা হয়েছিল। কিন্তু ব্রিটিশ সেনাপ্রধান নিক কার্টার আশা করছেন, এবার ক্ষমতায় এসে তারা সেরকম করবে না। বরং যুক্তির পথে চলবে। মঙ্গলবার তালিবানের মুখপাত্র জাবিউল্লা মুজাহিদও মন্তব্য করেন, গত ২০ বছরে তাঁরা অনেক পরিণত হয়ে উঠেছেন। বুধবার নিক কার্টার কার্যত বুঝিয়ে দিয়েছেন, তিনি তালিবান মুখপাত্রের কথায় আস্থা রাখছেন।

বুধবার ব্রিটিশ সেনাপ্রধান বলেন, তালিবানকে সুযোগ দেওয়া উচিত। তারা সরকার গঠন করুক। হয়তো দেখা যাবে, যাদের আমরা সন্ত্রাসবাদী মনে করি, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তারা অনেক যুক্তিবাদী হয়ে উঠেছে। তালিবানের পক্ষ থেকেও এদিন জানানো হয়, এবার তাদের নেতারা প্রকাশ্যে আসবেন। একসময় তাঁরা গোপনে থাকতেন। নিক কার্টার জানান, আফগানিস্তানের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাইয়ের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ আছে। কারজাই বুধবার তালিবানের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন।

নিক কার্টার বলেন, “আমাদের ধৈর্য ধরতে হবে। সাহস হারালে চলবে না।” একইসঙ্গে তিনি বলেন, “তালিবানের মধ্যে সকলের দৃষ্টিভঙ্গি একরকম নয়। আফগানিস্তানের একটি জনজাতির মধ্যে থেকে তালিবানের জন্ম হয়েছিল। তারা মূলত গ্রামের মানুষ। তারা পাশতুন জনজাতির নিয়ম কানুন মেনে চলে।”
ব্রিটেনের কয়েকজন প্রাক্তন সেনাপ্রধান অবশ্য নিক কার্টারের থেকে ভিন্নমত পোষণ করেন। প্রাক্তন সেনাকর্তা চার্লি হারবার্ট বলেন, “তালিবান অনেক ভাল ভাল কথা বলছে বটে কিন্তু তাতে বিশ্বাস করা উচিত নয়।” ন্যাটোর উপদেষ্টা হারবার্ট মন্তব্য করেন, “তালিবান আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি চায়। তারা হিংসার পথে ক্ষমতায় এসেছে। এখন স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য তারা বলছে, মহিলাদের সমান অধিকার দেবে।”
তালিবান কট্টরপন্থা ত্যাগ করেছে বলে হারবার্ট মনে করেন না। তিনি বলেন, “তালিবান অপেক্ষা করছে। আমরা কাবুল ছেড়ে এলেই তারা রক্তপাত শুরু করবে।”
গত সপ্তাহে রাষ্ট্রপুঞ্জ জানায়, তালিবানের হাতে ১ হাজার নিরীহ মানুষ মারা গিয়েছেন। রেড ক্রসের আন্তর্জাতিক কমিটি জানায়, ১ অগাস্ট থেকে ১৫ টি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ৪০৪২ জন আহতের চিকিৎসা হচ্ছে।
তালিবানের হাত থেকে পালানোর জন্য কাবুল বিমান বন্দরে ঢুকতে চাইছে নারী ও শিশুরা। পশ্চিমী সংবাদ মাধ্যমের তোলা ছবিতে দেখা যায়, ধারালো অস্ত্র নিয়ে তালিবান যোদ্ধারা তাদের তাড়া করছে। বিমান বন্দর থেকে ভিড় হটানোর জন্য গুলিও চালিয়েছে তালিবান।
লস এঞ্জেলিস টাইমসের সাংবাদিক মার্কাস ইয়াম বুধবার টুইটারে কয়েকটি ছবি আপলোড করে জানিয়েছেন, অন্তত আধ ডজন নারী ও শিশু তালিবানের হামলায় আহত হয়েছে। বিমান বন্দরে ঢোকার জন্য অনেকে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। লাঠি ও চাবুক হাতে ভিড় নিয়ন্ত্রণ করছে তালিবান যোদ্ধারা।
ফক্স নিউজে দেখা গিয়েছে, কাবুলের রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে তালিবান যোদ্ধারা। প্রাক্তন সরকারি কর্মীদের দেখলে গুলি চালাচ্ছে। তাখার প্রদেশে মাথা না ঢেকে রাস্তায় বেরোনর জন্য এক মহিলা তালিবানের হাতে খুন হয়েছে । খবর  দ্য ওয়ালের/ এনবিএস/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *