ঢাকা, শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১১:২১ পূর্বাহ্ন
ভারতীয় কূটনীতিকরা কাবুল ছেড়ে যান, চায়নি তালিবান, দিয়েছিল নিরাপত্তার আশ্বাসও
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

ভারতীয় কূটনীতিকরা কাবুল ছেড়ে যান, চায়নি তালিবান, দিয়েছিল নিরাপত্তার আশ্বাসও

 কাবুল থেকে ভারতীয় কূটনীতিকরা চলে আসার আগে কাতার থেকে দিল্লিতে নির্দিষ্ট বার্তা পাঠিয়েছিল তালিবান। কাতারে তালিবানের রাজনৈতিক শাখার প্রধান আব্বাস স্তানিকজাইয়ের অফিস থেকে পাঠানো ঐ বার্তা কাবুল হয়ে নয়াদিল্লিতে আসে। তাতে বলা হয়েছিল, কাবুলে ভারতীয় কূটনীতিকদের নিরাপত্তা অক্ষুণ্ণ থাকবে। লস্কর ই তৈবা অথবা জৈশ ই মহম্মদের মতো জঙ্গি গোষ্ঠীও ভারতীয় দূতাবাসে হামলা করবে না।

ভারত অবশ্য তালিবানের প্রতিশ্রুতিতে বিশ্বাস করেনি। তাছাড়া গোয়েন্দারাও জানিয়েছিলেন, কাবুলে ভারতীয় কূটনীতিকদের বিপদের আশঙ্কা আছে। তাই তাঁদের ফিরিয়ে আনা হয়।


কূটনীতিকদের ফেরানোর জন্য সোমবার রাতে অত্যন্ত গোপনীয়তার সঙ্গে অপারেশন চালায় ভারতীয় বায়ুসেনা। সোমবার সকালে এয়ার ইন্ডিয়ার একটি বিমান কাবুলের উদ্দেশে রওনা দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তা যেতে পারেনি। তবে ১৫ ও ১৬ অগস্টের মাঝে গভীর রাতে কাবুলে পৌঁছে গিয়েছিল ভারতীয় বায়ুসেনার দুটি সি-সেভেনটিন ট্রান্সপোর্ট এয়ারক্রাফট। সেই মিশনে সামিল হয়েছিল ইন্দো-টিবেট বর্ডার পুলিশের একটি টিম। তারা ছিল নিরাপত্তার দায়িত্বে। কিন্তু সেই রাতে কাবুলে নিরাপত্তা পরিস্থিতি এতোটাই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে যে ভারতীয় দূতাবাসে আটকে থাকা কর্মীদের বিমানবন্দরের আনা সম্ভবই হচ্ছিল না। কাবুলের ভারত সহ বিভিন্ন দেশের দূতাবাস যেখানে রয়েছে তাকে বলে গ্রিন জোন। সেই গ্রিন জোনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা আগেই তছনছ হয়ে গিয়েছিল। ভারতীয় দূতাবাসের উপর কঠোর নজর রাখছিল তালিবানও।

এমনকি আফগানিস্তান থেকে ভারতে আসার জন্য যে ভিসা এজেন্সি ভিসা দেওয়ার ব্যবস্থা করে সেখানেও হানা দিয়েছিল তালিবান। শাহির ভিসা এজেন্সির অফিস লণ্ডভণ্ড করে দেওয়া হয়।

এই অবস্থায় গতকাল রাতে ৪৫ জন ভারতীয়কে নিয়ে প্রথম ব্যাচকে উদ্ধারের চেষ্টা করে বায়ুসেনা। কিন্তু বিমানবন্দরে যাওয়ার পথে তাঁদের পথ আটকায় তালিবান। কিছু দূতাবাস কর্মীর ব্যক্তিগত জিনিসপত্রও কেড়ে নেওয়া হয়। ওদিকে কাবুল বিমানবন্দরে তখন তুলকালাম চলছে। মার্কিন বায়ুসেনার একটি বিমানের চাকা ধরে পর্যন্ত দুজন ঝুলে পড়ে। বিমান টেক অফ করলে তাঁরা উপর থেকে পড়ে মারা যান। এই অবস্থায় প্রথম ব্যাচকে নয়াদিল্লি ফেরত আনা ছিল অতি কঠিন চ্যালেঞ্জ। সেই বিমান রাতে এসে নয়াদিল্লিতে পৌঁছয়।

কিন্তু বাকিদের ফেরানোর মুশকিল হয়ে পড়েছিল। তখনও ভারতীয় দূতাবাসে রয়েছেন হাইকমিশনার রুদ্রেন্দ্র টন্ডন। কিন্তু এরই মধ্যে রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে যোগ দিতে গতকাল নিউইয়র্ক গিয়ে পৌঁছন বিদেশ মন্ত্রী এস জয়শংকর। তিনি মার্কিন বিদেশ সচিব অ্যান্টনি ব্লিনকেনের সঙ্গে কথা বলেন। মনে করা হচ্ছে, তার পর মার্কিন সহযোগিতাতেই দূতাবাসে আটকে পড়া ভারতীয় রাষ্ট্রদূত সহ ১২০ জন মঙ্গলবার সকালে বিমানবন্দরে পৌঁছন।। খবর দ্য ওয়ালের/এনবিএস/২০২১/একে
 

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *