ঢাকা, বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫৯ অপরাহ্ন
বিপ্লবের বিরুদ্ধে ফোঁস সুদীপের, সরকারি চাকরিতে বাইরের লোক ঢোকাচ্ছে
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

বিপ্লবের বিরুদ্ধে ফোঁস সুদীপের, সরকারি চাকরিতে বাইরের লোক ঢোকাচ্ছে

সম্প্রতি ত্রিপুরার জয়েন্ট রিক্রুটমেন্ট বোর্ড গ্রুপ সি ও গ্রুপ ডি পদে লোক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। কিন্তু তাতে একাধিক গোলমাল রয়েছে বলে বিপ্লব দেব সরকারের বিরুদ্ধে বড় অভিযোগ তুললেন ত্রিপুরার প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী তথা বিজেপি বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মন।

একটি দীর্ঘ ফেসবুক পোস্টে সুদীপ একাধিক ছিদ্র চিহ্নিত করে প্রশ্ন তুলেছেন। যা নিয়ে ঘোর অস্বস্তিতে সরকার। কী লিখেছেন সুদীপ রায় বর্মন?


“সরকারি চাকরিতে নিয়োগ পরীক্ষা গ্রহণের জন্য ত্রিপুরা জয়েন্ট রিক্রুটমেন্ট বোর্ড সম্প্রতি গ্রুপ সি এবং গ্রুপ ডি পদে যে উদ্যোগ নিয়েছে তার বিধিমালা নিয়ে পরীক্ষার্থী মহলে বিভিন্ন অভিযোগ ওঠায় এনিয়ে পরীক্ষার স্বচ্ছতা প্রশ্নচিহ্নের মুখে এসে দাঁড়িয়েছে। বিশেষ করে গ্রুপ সি ও গ্রুপ ডি চাকরির ক্ষেত্রে স্থানীয় ভাষা হিসেবে বাংলা ও ককবরক বাধ্যতামূলক হওয়া যুক্তি সঙ্গত। তবে কোনভাবেই ইংরেজি স্থানীয় ভাষার মর্যাদা পেতে পারে না।”
ভাষার বিষয়টি ত্রিপুরায় খুবই স্পর্শকাতর। বাঙালিরা যেমন বাংলা ভাষায় কথা বলেন তেমন অধিকাংশ জনজাতি গোষ্ঠীর প্রশ্ন ভাষা ককবরক। উত্তর-পূর্বের এই রাজ্যটিতে ইংরাজির তেমন প্রচলন নেই। সুদীপ সেটাই উল্লেখ করতে চেয়েছেন বলে মত অনেকের।

৬ আগরতলার দীর্ঘদিনের বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মন আরও লিখেছেন, “বিশেষ করে গ্রুপ ডি চাকুরির ক্ষেত্রে আমাদের রাজ্যে কখনও বহিঃরাজ্যের প্রার্থীদের অংশগ্রহণের সুযোগ ছিল না এবং লিখিত পরীক্ষাও কোনওদিন হয়নি। কারণ, এই অংশের চাকুরি প্রার্থীরা অধিকাংশই সার্বিকভাবে দূর্বল হয়। কিন্তু এবারই এর ব্যতিক্রম হল। তবে কার স্বার্থে, কেন হল, জানার অধিকার রাজ্যবাসীর রয়েছে। এই সার্বিক প্রেক্ষাপটে আমি উল্লেখিত পরীক্ষা কর্মসূচি বাতিল করার জন্য ফের সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি এবং গোটা বিষটির তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।”

পরীক্ষার সিলেবাস নিয়েও একাধিক প্রশ্ন তুলেছেন সুদীপ। এমনিতে বিপ্লব-সুদীপের সম্পর্ক সাপে-নেউলের মতো। সুদীপের বাহিনী কী করছে মাঠে ময়দানে বা সোশ্যাল মিডিয়ায় তা প্রতিনিয়ত নজর রাখে বিপ্লব দেবের টিম। তার কাউন্টার প্রচারও চালায় মুখ্যমন্ত্রীর আইটি সেল। যা এই দুই নেতার কোন্দল নিয়ে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বও বিরক্ত। বহুবার চেষ্টা করেও তা মেটানো যায়নি। একদিকে যখন ত্রিপুরায় দৌত্য শুরু করে তৃণমূল প্রায় প্রতিদিন ত্রিপুরা সরকারকে ঝাঁকুনি দেওয়ার চেষ্টা করছে তখন সুদীপের এই পোস্ট নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। খবর দ্য ওয়ালের /এনবিএস/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *