ঢাকা, রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৩ পূর্বাহ্ন
পাকিস্তানের পাঁচ জেলায় কোভিড ভ্যাকসিন না নিলে মোবাইলের সিম কার্ড ব্লক
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

পাকিস্তানের পাঁচ জেলায় কোভিড ভ্যাকসিন না নিলে মোবাইলের সিম কার্ড ব্লক


 ৩১ অগাস্টের আগে কোভিড ভ্যাকসিন নিতে হবে পাকিস্তানের পেশোয়ার, মহমান্দ, খাইবার, চারসাদ্দা এবং নৌশেরা জেলার প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ককে। নাহলে তাঁদের মোবাইলের সিম কার্ড ব্লক করে দেবে খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের সরকার। শনিবার জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ওই প্রদেশে কোভিডে মারা গিয়েছেন ২০ জন। তাঁদের মধ্যে ন’জন ছিলেন পেশোয়ার জেলার বাসিন্দা। চারজন ছিলেন অ্যাবোতাবাদের, তিনজন কোহাতের, দু’জন সোয়াতের এবং দু’জন বান্নু জেলার বাসিন্দা।

গত ২৪ ঘণ্টায় খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৫৯ জন। সেখানে এখন কোভিড অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা ৭৩৭৯। গত শুক্রবার ওই প্রদেশের কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে উচ্চপর্যায়ের বৈঠক হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন প্রদেশের মুখ্য সচিব কাজিম নিয়াজ। পেশোয়ার ডিভিশনের কমিশনার রিয়াজ খান মেহসুদ জানান, বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, যে জেলাগুলিতে সংক্রমণের হার বেশি, সেখানে টিকাকরণের হার বাড়ানো হবে। তখনই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বলা হয়, ৩১ অগাস্টের মধ্যে যাঁরা টিকা নেবেন না, তাঁদের মোবাইলের সিম যেন ব্লক করে দেওয়া হয়।


রিয়াজ খান মেহসুদ বলেন, শনিবার পেশোয়ার ডিভিশনে বাড়ি বাড়ি ঘুরে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। শুক্রবারের বৈঠকের পরে পাঁচ জেলার ডেপুটি কমিশনার ও হেলথ অফিসারদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, তাঁরা যেন টিকাকরণের জন্য নির্দিষ্ট পরিকল্পনা করেন। মেহসুদের কথায়, “মানুষ যাতে কোভিড বিধি মেনে চলে, তা জেলা প্রশাসনকেই নিশ্চিত করতে হবে। মানুষকে মাস্ক পরতে বাধ্য করা হবে। লক্ষ রাখতে হবে যেন তাঁরা সামাজিক দূরত্ব মেনে চলেন।”

পাঁচটি জেলার স্বাস্থ্য অধিকর্তারা জানান, যে অঞ্চলগুলিতে মানুষের যাতায়াত বেশি, সেখানেই কোভিড সংক্রমণ ছড়িয়েছে অধিক হারে। মুখ্যসচিব নির্দেশ দেন, চলতি মাসের শেষে যাতে টিকাকরণ ৪০ শতাংশ বৃদ্ধি পায়, তার ব্যবস্থা করতে হবে। একইসঙ্গে স্বাস্থ্য অধিকর্তারা বলেন, যাঁরা এখনও টিকা নেননি, তাঁরা নিজে থেকে ভ্যাকসিনেশন সেন্টারে আসবেন, এমন সম্ভাবনা কম। যাঁরা টিকা নিতে আগ্রহী, তাঁরা ইতিমধ্যে ভ্যাকসিন নিয়েছেন। তখনই স্থির হয়, যাঁরা টিকা নেবেন না, তাঁদের সিম কার্ড ব্লক করে দেওয়া হবে।

খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের প্রশাসন জানায়, বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য ৬৪০ জন স্বাস্থ্যকর্মীকে নিয়োগ করা হয়েছে। প্রদেশে খোলা হয়েছে মোট ৮০০ টিকাকরণ কেন্দ্র। প্রাদেশিক প্রশাসন স্থির করেছে, যে জেলাগুলিতে টিকাকরণের হার ৩০ শতাংশের কম, সেখানে সমাজকর্মীরা মানুষকে টিকা নেওয়ার জন্য বোঝাবেন।খবর দ্য ওয়ালের /এনবিএস/২০২১/একে 

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *