ঢাকা, বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪২ অপরাহ্ন
পুজোর মরশুমে তৃতীয় ঢেউয়ের সতর্কতা জারি, হাই-রিস্কে শিশুরা, বাংলায় কী ব্য়বস্থা নেওয়া হচ্ছে
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

পুজোর মরশুমে তৃতীয় ঢেউয়ের সতর্কতা জারি, হাই-রিস্কে শিশুরা, বাংলায় কী ব্য়বস্থা নেওয়া হচ্ছে

 কোভিডের তৃতীয় ঢেউ আসবে কিনা সে নিয়ে এতদিন চর্চা চলছি বিজ্ঞানীমহলে। দেশের নামী গামি গবেষক, চিকিৎসকরা বলছিলেন থার্ড ওয়েভ আসতে পারে তবে সেকেন্ড ওয়েভের মতো এতটা প্রাণঘাতী হবে না। তৃতীয় ঢেউয়ের ঝাপটায় শিশুদের তেমন কোনও ভয়ের কারণ নেই বলেই আশ্বস্ত করা হয়েছিল।

 কিন্তু সাম্প্রতিক রিপোর্ট অন্য কথা বলছে। কেন্দ্রের অধীনস্থ জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের (এনআইডিএম) তত্ত্বাবধানে তৈরি টিম তাদের রিপোর্টে বলেছে, এ বছর অক্টোবরেই কোভিডের তৃতীয় ঢেউ মারাত্মক চেহারা নিয়ে আছড়ে পড়তে পারে। শিশুরাও রেহাই পাবে না। তার জন্য এখন থেকে চিকিৎসা পরিকাঠামো ঢেলে সাজানোর জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে আর্জিও জানিয়েছে এআইডিএম।

নীতি আয়োগের সদস্য (স্বাস্থ্য) ডক্টর ভি কে পল বলছেন, গত বছর সেপ্টেম্বর থেকে কোভিড সংক্রমণের কার্ভ শীর্ষে উঠেছিল। প্রতি ১০০ জনের মধ্যে ২৩ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করার দরকার পড়ছিল। এ বচর দ্বিতীয় ঢেউয়ের সংক্রমণকালে এই সংখ্যা আরও বাড়ে।

 এর মধ্যে তৃতীয় ঢেউ এলে পরিস্থিতি আরও বিপজ্জনক হতে পারে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে জমা দেওয়া রিপোর্টে এনআইডিএমের টিম জানিয়েছে, অক্টোবরে থার্ড ওয়েভ আসার সম্ভাবনা প্রবল। সংক্রমণের এই ঢেউ শিশুদের বেশি আক্রান্ত করতে পারে। তেমন পরিস্থিতি তৈরি হলে শিশুদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে, নার্সিংহোমে যে পরিকাঠামো থাকা দরকার বা যতজন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ, মেডিক্যাল স্টাফ দরকার তা এই মুহূর্তে দেশে নেই। কাজেই ভবিষ্যতের কথা ভেবে আগাম প্রস্তুতি নেওয়া দরকার এখন থেকেই।

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভাইরাসের মিউটেশন খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বিশেষ করে এই ভাইরাসের ক্ষেত্রে। আসলে করোনাভাইরাস নতুন নয়, আগেও ছিল। সর্দি-কাশির মতো রোগ হত এই ভাইরাসের কয়েকটি প্রজাতির সংক্রমণে। এখন যে সার্স-কভ-২ ছড়িয়েছে বিশ্বে তাতে মিউটেশন বা জিনগত বদলটা ঘন ঘন হচ্ছে। সেই কারণেই ভাইরাসের এত নতুন প্রজাতি আসছে, তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ঢেউ আসার সম্ভাবনাও তৈরি হয়েছে। বিশ্বের কিছু দেশ কিন্তু এখনই কোভিডের কয়েকটা ঢেউ পার করে ফেলেছে। প্রতিটা ঢেউয়ে ভাইরাসের সংক্রমণ ক্ষমতা কমতে থাকে। দুর্বল হতে থাকে ভাইরাল স্ট্রেন। তাই ডেল্টা প্লাস ভাইরাসের মিউটেশন হলেও সেটা লাগামছাড়া হবে না বলেই আশা করা যায়। 

যদি কোনওভাবে এই তৃতীয় ঢেউ মারাত্মক বড় আকারে ছড়িয়ে পড়ে, মৃত্যুহার ভয়ানকভাবে বাড়ে, তাহলে বুঝতে হবে ভাইরাস ফের তার রূপ বদলে ফেলেছে। ইতিমধ্যেই করোনার ডেল্টার মতোই অতি সংক্রামত ল্যামডা প্রজাতিও ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে। তার পর মানুষজন কোভিড বিধি মানছেন না ঠিক করে, তাই তৃতীয় ঢেউয়ের সম্ভাবনা আরও জোরালো হচ্ছে। শিশুদের টিকাকরণ যেহেতু শুরুই হয়নি, তাই সিঁদুরে মেঘ দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। বিশিষ্ট হার্ট সার্জন দেবী শেঠিও একই সম্ভাবনার কথা বলেছিলেন যে, কোভিডের তৃতীয় ঢেউ আদৌ যদি আসে, তা হলে সবথেকে বিপন্ন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে শিশুদের। যাদের বয়স ২ থেকে ১২ বছর পর্যন্ত । খবর দ্য ওয়ালের/এনবিএস/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *