ঢাকা, শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:০২ অপরাহ্ন
আফগান শিখ, হিন্দুদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য বদলান নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন, মোদীর কাছে আর্জি অকালি সাংসদের
bangla24bd news

আফগান শিখ, হিন্দুদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য বদলান নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন, মোদীর কাছে আর্জি অকালি সাংসদের

আফগানিস্তান থেকে শুধু হিন্দু ও শিখদের পালাতে সাহায্য করলেই চলবে না। তাঁরা যাতে শান্তিতে ভারতে থাকতে পারেন, তার ব্যবস্থা করতে হবে। সেজন্য বদলাতে হবে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন। বুধবার কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে এমনই আর্জি জানালেন অকালি দলের সাংসদ হরসিমরত কাউর বাদল। তিনি বলেন, তালিবান ক্ষমতায় আসার পরে হাজার হাজার মানুষ আফগানিস্তান ছেড়ে পালাতে চাইছেন। ভারতের উচিত, আফগান শিখ ও হিন্দুদের পুনর্বাসনে সাহায্য করা। তাঁদের ভারতে নিরাপদ আশ্রয় দেওয়া।

হরসিমরত কাউর বাদল এদিন টুইট করে বলেন, ‘আমাদের কেবল শিখ ও হিন্দু ভাইদের উদ্ধার করলেই চলবে না। তাঁরা যাতে নিরাপদে এদেশে থাকতে পারেন, তার ব্যবস্থা করতে হবে। আমি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কাছে আর্জি জানাচ্ছি, তাঁরা যেন নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পরিবর্তন করেন।’

তালিবানের হাত থেকে পালিয়ে যাঁরা ভারতে আশ্রয় নিয়েছেন, তাঁদের নাগরিকত্ব দেওয়ার দাবি মঙ্গলবার তোলেন অকালি দলের নেতা মনজিন্দর সিং সিরসাও। দিল্লি শিখ গুরুদোয়ারা ম্যানেজমেন্ট কমিটির প্রধান সিরসা বলেন, ২০২০ ও ২০২১ সালে আফগানিস্তান থেকে পালিয়ে যে শিখ ও হিন্দুরা ভারতে আশ্রয় নিয়েছেন, তাঁদের নাগরিকত্ব দেওয়া হোক। সেজন্য বদলানো হোক নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন।


দেশ জুড়ে প্রতিবাদের মধ্যে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পাশ হয়। তাতে বলা হয়েছিল, পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের মতো মুসলিম প্রধান দেশ থেকে ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা যদি পালিয়ে ভারতে আশ্রয় নেন, তাঁদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। ২০২০ সালের ১০ জানুয়ারি ওই আইন কার্যকরী হয়। কিন্তু ওই আইনের অধীনে বিধিগুলি এখনও বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানানো হয়নি।

অকালি দল সংসদে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের পক্ষে ভোট দিয়েছিল। তখন ওই দল ছিল এনডিএ-র সদস্য। অকালি দল অবশ্য মুসলিমদেরও নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলেছিল। গত রবিবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরি বলেন, “আফগানিস্তানের অস্থিতিশীল পরিস্থিতি দেখলে বোঝা যায়, কেন নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন দরকার।”

যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান থেকে এখনও পর্যন্ত ভারতে ফিরিয়ে আনা হয়েছে ৬২৬ জনকে। তাঁদের মধ্যে ২২৮ জন ভারতীয়। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হরদীপ পুরি জানান, যাঁদের উদ্ধার করে আনা হয়েছে, তাঁদের মধ্যে ৭৭ জন আফগান শিখ। ভারত সরকার আগেই বলেছিল, যাঁরা আফগানিস্তান ছেড়ে আসতে চান তাঁদের সাহায্য করা হবে। এক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে হিন্দু ও শিখদের।  ​খবর দ্য ওয়ালের/এনবিএস/২০২১/এক

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *