ঢাকা, শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:১৮ পূর্বাহ্ন
মুন্সীগঞ্জের বহুল আলোচিত মিন্টু মিয়া হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটিত
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

মুন্সীগঞ্জের বহুল আলোচিত মিন্টু মিয়া হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটিত

মুন্সীগঞ্জ জেলার সদর থানার মানিকপুর এলাকার বহুল আলোচিত মিন্টু মিয়া (৩৫) হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন, আসামী গ্রেফতার করলো পিবিআই, মুন্সীগঞ্জ জেলা।

মামলার ঘটনার সাথে প্রত্যক্ষ ভাবে জড়িত ১। আসামী মারুফ শরিফ হাসান জান উরফে মো: শরিফ মিজি (২৪) পিতা-মো: আলী আকবর, সাং-পশ্চিম রামদাসদী (বোয়রা বাজার সংলগ্ন) থানা+জেলা-চাঁদপুর, এ/পি-১০নংগলি, ০৯নংবাড়ী আলী নগর মাছ বাজার থানা-কামরাঙ্গীরচর ডিএমপি ঢাকাকে ২৪ আগস্ট ২০২১ তারিখ বিকাল অনুমান সাড়ে ৩টার দিকে কামরাঙ্গীরচর এলাকার আলীনগর এর মাছবাজার এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

গত ২ অক্টোবর ২০১৮ তারিখ রাত অনুমান ১০টার দিকে প্রতিদিনের ন্যায় ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা নিয়ে বাড়ী থেকে বাহির হইয়া যায়। ৩ অক্টোবর ২০১৮ তারিখ ভোর অনুমান সাড়ে ৫টার দিকে সংবাদ পায় যে, মুন্সীগঞ্জ থানাধীন মানিকপুর সাকিনস্থ জনৈক আনোয়ার হোসেনের ৩ তলা বাড়ীর সামনে পাকা রাস্তার উপর বাদীর ছোট ভাই মিন্টু মিয়ার মৃতদেহ পড়িয়া আছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে বাদী (মো: মজিবর)  দ্রুত সেখানে উপস্থিত হয়ে দেখতে পায় যে, কে বা কারা ২ অক্টোবর ২০১৮ তারিখ রাত ১০টা থেকে ৩ অক্টোবর ২০১৮ তারিখ ভোর অনুমান সাড়ে ৫টার মধ্যে যেকোন সময় বাদীর ছোট ভাই মিন্টু মিয়াকে পূর্ব-পরিকল্পিতভাবে ধারালো চাকু দিয়া বুকে, পেটে উপুর্যপরি আঘাত করে হত্যা করিয়া লাশ ফেলিয়া রাখিয়া মৃত মিন্টু মিয়ার ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা নিয়া গিয়াছে। এই সংক্রান্তে নিহতের ভাই বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ থানায় অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।

মামলাটি মুন্সীগঞ্জ সদর থানা পুলিশ ০৫ মাস তদন্ত করে এবং তদন্তাধীন অবস্থায় পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স এর মাধ্যমে পিবিআই মুন্সীগঞ্জ জেলায় পরবর্তী তদন্তের জন্য প্রেরন করে।

ডিআইজি পিবিআই বনজ কুমার মজুমদারের সঠিক তত্ত্বাবধান ও দিকনির্দেশনায় পিবিআই মুন্সীগঞ্জ ইউনিট ইনচার্জ অতিরিক্তি পুলিশ সুপার ফজলে রাব্বির সার্বিক সহযোগিতায় মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মোঃ মনিরুজ্জামান সেখ মামলাটি তদন্ত করেন। পরবর্তীতে তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মোঃ মনিরুজ্জামান সেখ গত ২১ জানুয়ারি ২০২১ তারিখ পর্যন্ত মামলাটি তদন্ত করেন। বনির্ত তদন্তকারী কর্মকর্তার বদলী জনিত কারণে ২১ জানুয়ারি ২০২১ তারিখ পিবিআই মুন্সীগঞ্জ ইউনিট ইনচার্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ারুল হক মামলাটির তদন্তভার পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ শামীম আহমেদের উপর অর্পন করেন। পিবিআই মুন্সীগঞ্জ ইউনিট ইনচার্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ারুল হকের সার্বিক সহযোগিতায় তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ শামীম আহমেদ মামলাটি তদন্ত করেন।

আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, এটি একটি ৩ বছর আগের ঘটনা। ঘটনার রাত সাড়ে ১০টা/পৌনে ১১টার দিকে আসামী অজয় ডোম উরফে জয়, তুহিন উরফে পারভেজ (২৩) এবং মারুফ শরিফ হাসান জান উরফে মো: শরিফ মিজি (২৪) মিলিত ভাবে ঘটনাস্থলে ভিকটিম মিন্টু মিয়া(৩৫) এর ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সার গতিরোধ করে টাকা ও মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টাকালে আসামী অজয় ডোম উরফে জয়(২২) এর সহিত ধস্তাধস্তি হয়। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে অজয় ডোম উরফে জয় (২২) তার পকেটে থাকা টিপ চাকু বাহির করে ভিকটিম মিন্টু মিয়া (৩৫) বুকে ও পেটে বেশকয়েকবার স্টেপ করে। এতে ভিকটিম মাটিতে পড়ে যায়। তখন অজয় ডোম উরফে জয়(২২) ও মারুফ শরিফ হাসান জান উরফে মো: শরিফ মিজি (২৪) দৌড় দেয় এবং তুহিন উরফে পারভেজ (২৩) ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সাটি নিয়ে চলে যায়। পরবর্তীতে তুহিন উরফে পারভেজ (২৩) ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সাটি বিক্রয় করে সকল আসামী টাকা ভাগ করে নেয়।

এ বিষয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলার পিবিআই এর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ারুল হক বলেন, মারুফ শরিফ হাসান জান উরফে মো: শরিফ মিজি (২৪) আসামীকে ২৫/০৮/২০২১ তারিখ বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ্দ করা হলে আসামী মারুফ শরিফ হাসান জান উরফে মো: শরিফ মিজি (২৪), পিতা-মো: আলী আকবর, সাং-পশ্চিম রামদাসদী (বোয়রা বাজার সংলগ্ন) থানা+জেলা-চাঁদপুর, এ/পি-১০নংগলি, ০৯নং বাড়ী আলীনগর মাছ বাজার, থানা-কামরাঙ্গীরচর, ডিএমপি, ঢাকা নিজেকে এবং ঘটনার সাথে জড়িত অপর আসামীদ্বয়ের নাম উল্লেখ করে বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করে। উক্তআসামীর দেওয়া স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে আসামী অজয় ডোম উরফে জয় (২২) ও আসামী তুহিন উরফে পারভেজ (২৩) দ্বয়কে গ্রেফতার করা হয়।

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *