ঢাকা, মঙ্গলবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৩৩ অপরাহ্ন
কেন্দ্রকে আক্রমণ, বাংলার সরকারের সাফল্য, পুরভোটের ঘণ্টা বাজালেন মমতা
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

কেন্দ্রকে আক্রমণ, বাংলার সরকারের সাফল্য, পুরভোটের ঘণ্টা বাজালেন মমতা

 একুশের ভোট হয়ে গিয়েছে। বিজেপির কড়া ট্যাকল ডিঙিয়ে ২১৩ আসন নিয়ে তৃতীয়বার নবান্নে পৌঁছেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপর চার মাস কেটে গিয়েছে। শনিবার তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠা দিবসের মঞ্চ থেকে তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যা বললেন তাকে অনেকেই নির্বাচনী বক্তৃতা হিসেবে দেখতে চাইছেন।

পর্যবেক্ষকদের অনেকে বলেন, ভোটের ব্যাপারে মমতা এবং মোদী-শাহের ডিএনএ খানিকটা একইরকম। একটা ভোট শেষ হলেই তাঁরা পরের ভোটের প্রস্তুতি শুরু করে দেন। শনিবার দিদি যা বললেন তা চুম্বকে ধরলে দেখা যাবে একদিকে তিনি তীব্র আক্রমণ শানালেন কেন্দ্রীয় সরকার, নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহকে। অন্যদিকে ফিরিস্তি দিলেন বাংলায় তিনি কী করেছেন বা করবেন।
একথা কারওরই অজানা নয় সাত কেন্দ্রের উপনির্বাচন নিয়ে তৃণমূল কতটা উদগ্রীব। দু’দিন আগেই কমিশনকে সাত কেন্দ্রের কোভিড গ্রাফ দিয়ে শাসকদল জানিয়েছে, ভোট করতে কোনও সমস্যা নেই। তা ছাড়া কলকাতা কর্পোরেশন-সহ শতাধিক পুরসভার ভোটও বকেয়া রয়েছে।

শনিবাসরীয় বক্তৃতায় দিদি যে ভাবে বিজেপির বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়েছেন এবং একইসঙ্গে তাঁর সরকারের সাফল্য তুলে ধরতে চেয়েছেন তা দেখে অনেকেই মনে করছেন, দলের মধ্যে ভোটের ঘণ্টা বাজিয়ে দিলেন মমতা। বুঝিয়ে দিতে চাইলেন, প্রস্তুতি নিন। ভোট আসছে। তৃণমূলের অনেকে এও বলছেন, সাত উপনির্বাচন নিয়ে দিল্লির নির্বাচন কমিশন গড়িমসি করলে নবান্ন না পুর ভোট ঘোষণা করে দেয়।

শনিবার সকালেই জানা গিয়েছিল, কয়লা কাণ্ডে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তাঁর স্ত্রী রুজিরাকে সমন পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় তদন্ত এজেন্সি এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। তারপর দুপুরে টিএমসিপিএর মঞ্চ থেকে তা নিয়ে রণংদেহি মেজাজে দেখা যায় মমতাকে। তিনি বলেন, “কয়লা চুরিতে শুধু তৃণমূলকে ধরলে হবে? কয়লা তোমার সিআইএসএফ-এর দায়িত্বে। কয়লা জাতীয় সম্পদ। আসানসোলে কেন্দ্রের মন্ত্রীরা এসে লুটেপুটে খেয়েছে। আমার কাছে সব তথ্য আছে, কারা এসে কোল মাফিয়াদের হোটেলে ছিল।” এ ব্যাপারে ইস্ট-ওয়েস্ট নামের একটি হোটেলের কথাও উল্লেখ করেন মমতা।

একদিকে যখন এজেন্সি লেলিয়ে দেওয়ার অভিযোগ তুলে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে সরব হলেন দিদি পাশাপাশি দেখা গেল জাতীয় প্রেক্ষাপটের দিকে নজর রেখে তেইশে ত্রিপুরা ও চব্বিশে দিল্লিতে খেলা হবে বলে অক্সিজেন দিতে চাইলেন দলকে। এরসঙ্গেই আবার বললেন, “বাংলাকে আমি যে ভাবে গড়ে দিচ্ছি তাতে কারও অসুবিধা হবে না। অনেকে চাকরি পেয়েছেন। বাকিরাও আগামী দিনে পাবেন।”

তিনি আরও বলেন, “শিক্ষক নিয়োগ চলছে। কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক নিয়োগ হচ্ছে। আর ত্রিপুরায় শিক্ষকদের চাকরি চলে গেছে। সরকারি কর্মচারীরা ওখানে ঠিক মতো মাইনে পান? কোথাও পান না। অসম, ত্রিপুরা, উত্তরপ্রদেশ কোথাও না।”

মমতা দাবি করেন, বাংলায় বেকারত্ব ৪০ শতাংশ কমে গেছে। সেই সঙ্গে তাঁর জমানায় কোন কোন জায়গায় কী ভাবে কত কর্মসংস্থান তৈরি হয়েছে তারও খতিয়ান শোনান তিনি। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, বানতলা লেদার কমপ্লেক্সে পাঁচ লক্ষ কর্মসংস্থান তৈরি হচ্ছে। সিলিকন ভ্যালির জন্য ১০০ একর জমি দিয়েছিলাম, ফুরিয়ে গেছে। আবার ১০০ একর দিচ্ছি। তথ্যপ্রযুক্তির সুফল সারা রাজ্যে ছড়িয়ে দিতে আরও চারটি আইটি পার্ক শুরু হচ্ছে। গতিধারা প্রকল্পে ৪৪ হাজার ছেলে-মেয়েকে গাড়ি কেনার টাকা দেওয়া হয়েছে। ৯০ লক্ষ এমএসএমই ইউনিট তৈরি হয়েছে বাংলায়।

ছাত্র ফ্রন্টকে দিদির নির্দেশ, বাংলায় তাঁর সরকার যা যা কাজ করেছে তা লিফলেট ছাপিয়ে প্রচার করতে।

ভোট প্রসঙ্গে সিপিএমের এক নেতা বলেন, “আমরা প্রস্তুত রয়েছি। যেদিন খুশি ভোট হতে পারে। কিন্তু একথা মনে রাখতে হবে, কোভিডের দোহাই দিয়ে পুর ভোট পিছিয়ে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রীই। হাওড়া কর্পোরেশনের যখন মেয়াদ ফুরিয়েছিল তখন পৃথিবীতে করোনা ব্যাপারটাই আসেনি। তাও ভোট করতে দেননি মমতা। এখন ভোট ভোট করে গণতন্ত্রের জন্য কুমিরের কান্না কেঁদে লাভ আছে?”

বিজেপি মুখপাত্র সায়ন্তন বসু কটাক্ষ করে বলেন, “দিদি ভোটের ঘণ্টা বাজাতে চাইছেন ভাল কথা। কিন্তু ওঁর ভাইপোর বাড়িতে ইডি-র ঘণ্টা বাজছে। দেখা যাক কোথাকার জল কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়। খবর দ্য ওয়ালের /এনবিএস/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *