ঢাকা, মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০২:২৫ অপরাহ্ন
তালিবানের সঙ্গে সকলে যোগযোগ রাখুক, তাদের পথ দেখাক, আবেদন চিনের
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

তালিবানের সঙ্গে সকলে যোগযোগ রাখুক, তাদের পথ দেখাক, আবেদন চিনের

 আফগানিস্তানের (Afganistan) পরিস্থিতির মৌলিক পরিবর্তন ঘটেছে। এই সময় সকলেরই তালিবানের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা উচিত। তাদের ‘সক্রিয়ভাবে’ পথ দেখানো উচিত। আমেরিকাকে এমনই অনুরোধ করল চিন। তাঁদের আশঙ্কা, আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা অপসারণের পরে সেখানে বিভিন্ন সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠীর পুনরুজ্জীবন ঘটতে পারে। গত রবিবার আমেরিকার বিদেশ সচিব অ্যান্টনি ব্লিনকেনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন চিনের বিদেশমন্ত্রী ওয়াং ই। তাঁরা আফগানিস্তানের পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। চিন-আমেরিকা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়েও কথা হয়।

পরে চিনের সরকার নিয়ন্ত্রিত সংবাদ সংস্থা শিনহুয়া জানায়, বিদেশমন্ত্রী বলেছেন, ‘সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষেরই’ তালিবানের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা উচিত। চিনের মতে, আফগানিস্তানে ত্রাণের কাজ চালানোর জন্য আন্তর্জাতিক মহলের সঙ্গে আমেরিকার সহযোগিতা করা উচিত। ওয়াং ই বলেন, আফগানিস্তানের প্রশাসন যাতে স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে পারে, সেদেশে সামাজিক নিরাপত্তা থাকে, মুদ্রার অবমূল্যায়ন না হয় এবং শান্তিপূর্ণ পথে পুনর্গঠন হয়, সেজন্য সকলেরই তালিবানকে সাহায্য করা উচিত।


ব্লিনকেনকে ওয়াং বলেছেন, “আরও একবার প্রমাণিত হল, আফগানিস্তানে যুদ্ধ করে সন্ত্রাসবাদীদের নির্মূল করা যায় না। আমেরিকা ও ন্যাটো যেভাবে দ্রুত আফগানিস্তান থেকে চলে আসছে, তাতে বিভিন্ন সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী নতুন করে জোট বাঁধার সুযোগ পাবে।

এর মধ্যে কাবুলে আমেরিকার ড্রোন হামলা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে তালিবান। গত রবিবার কাবুলে এক সন্দেহভাজন আত্মঘাতী বোমারুর উদ্দেশে ড্রোন হামলা চালায় আমেরিকা। তালিবানের অভিযোগ, তাঁদের না জানিয়েই কাবুলে হামলা চালানো হয়েছে। তাতে কয়েকজন নিরীহ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। তালিবানের মুখপাত্র জাবিহুল্লা মুজাহিদ চিনের সরকার নিয়ন্ত্রিত টেলিভিশনে বলেন, বিদেশে আমেরিকার এই আক্রমণ বেআইনি। তাঁর কথায়, “আমেরিকা যদি মনে করে, আফগানিস্তানে তাদের কোনও বিপদের সম্ভাবনা আছে, তাহলে আগে আমাদের জানানো উচিত ছিল। মার্কিন সেনা কাবুলে একতরফা হামলা চালিয়েছে। তাতে নিরীহ মানুষ মারা গিয়েছেন।”

পেন্টাগনের তরফে বলা হয়েছে, “এক আত্মঘাতী জঙ্গি বিস্ফোরকভর্তি গাড়ি নিয়ে কাবুল বিমান বন্দরে হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। তার আগেই ওই জঙ্গিকে হত্যা করা গিয়েছে।” মার্কিন সেন্ট্রাল কম্যান্ড থেকে বলা হয়েছে, কোনও নিরীহ মানুষ নিহত হয়েছেন কিনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পেন্টাগনের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “আমরা জানি, বিস্ফোরকভর্তি গাড়িটি ধ্বংস হওয়ার সময় বড় ধরনের বিস্ফোরণ হয়েছিল। তাতে কয়েকজনের মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে।”

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনাবাহিনী ও মিত্র বাহিনী সেদেশে বসবাসকারী মার্কিন নাগরিকদের বিমানে ফেরানোর তোড়জোড়ের মধ্যেই সোমবার কাবুল বিমানবন্দরে রকেট হামলা হয়। পাঁচটি রকেট ছোঁড়া হয়েছে, তবে সবগুলিই এয়ারপোর্টের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরোধী সিস্টেমে ধাক্কা খেয়ে ধ্বংস হয়েছে বলে দাবি করেন ঘটনাস্থলে উপস্থিত জনৈক  তালিবান নেতা। কোনও প্রাণহানির খবর নেই। খবর দ্য ওয়ালের /২০২১/এনবিএস/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *