ঢাকা, শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫৮ অপরাহ্ন
আফগানিস্তানের মসনদে বসতে পারেন হিবাতুল্লা আখুন্দজাদা, খুব তাড়াতাড়ি ঘোষণা করবে তালিবান
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

আফগানিস্তানের মসনদে বসতে পারেন হিবাতুল্লা আখুন্দজাদা, খুব তাড়াতাড়ি ঘোষণা করবে তালিবান

তালিবান-রাজ প্রতিষ্ঠিত। কে হবে তালিবানি (Taliban) আফগানিস্তানের সরকারের মুখ। সে নিয়ে এতদিন চাপানউতোর চলছিলই। আফগানিস্তানের তখত দখলের পরে তালিবানের বিভিন্ন স্তরের নেতাদের আনাগোনা বেড়েছে কাবুলে। আন্তর্জাতিক মহলের সঙ্গে যোগাযোগও রাখছেন অনেকে। সরকারে কে বসবেন, তা এখনও নিশ্চিত করে বলতে পারেনি তালিবান। এতদিনে সে নাম সামনে এসেছে। তালিবান নেতৃত্বের কথাবার্তা থেকে যা মনে করা হচ্ছে, মসনদে বসতে পারেন তালিবান প্রধান হিবাতুল্লা আখুন্দজাদাই (Hibatullah Akhundzada)।

তালিবান কালচারাল কমিশনের সদস্য আনামুল্লা সামানগানি বলেছেন, নতুন সরকারের মুখ হতে পারে হিবাতুল্লাই। তাঁর অধীনেই থাকবেন প্রধানমন্ত্রী ও প্রেসিডেন্ট। তালিবানের রাজনৈতিক সংগঠনের প্রধান শের মহম্মদ আব্বাস জানিয়েছেন, সরকার ঘোষণা হতে আর দিন দুয়েকের মধ্যেই।


আগে খবর রটেছিল, আফগানিস্তানের নয়া তালিবান নেতৃত্বাধীন সরকারের নেতৃত্বে দেখা যেতে পারে তালিবান নেতা মোল্লা আবদুল গনি বরাদরকে। যদিও সেই সরকার শুধুমাত্র তালিবান প্রতিনিধিদের নিয়ে গড়া হবে না কি অন্য গোষ্ঠীগুলিও ক্ষমতার ভাগ পাবে, তা নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা রয়েছে। এখন উঠে এসেছে হাবিতুল্লার নাম।


তালিব নেতাদের মধ্যে বরাবরই ব্যতিক্রমী হাবিতুল্লা আখুন্দজাদা। অন্তরালে থাকতেই পছন্দ করেন। সচরাচর তাঁকে প্রকাশ্যে দেখা যায় না। তালিবানের তরফে আখুন্দজাদার একটি ছবি প্রকাশকে বাদ দিলে তাঁর সম্পর্কে আর তেমন কিছু জানা যায় না। তিনি কোথায় রয়েছেন, কী করছেন,  সবটাই ধোঁয়াশা। চলতি মাসের মাঝামাঝি কাবুল দখলের পরেও তাঁকে সামনাসামনি দেখা যায়নি।

একসময় তালিবানের শীর্ষস্থানীয় কয়েকজন নেতা নিহত হয়েছিলেন। তারপর জানা যায়, সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা ওমরের মৃত্যু হয়েছে। এর ফলে তালিবানের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে হতাশ হয়ে পড়ে জেহাদিদের অনেকে। হিবাতুল্লা কীভাবে সংগঠনকে ঢেলে সাজিয়েছিলেন, তা এখনও স্পষ্ট নয়। তিনি কখনও প্রকাশ্যে আসেন না। বছরে কয়েকবার বিবৃতি দেন মাত্র।

তালিবানের শীর্ষ নেতারা বরাবর গোপনে থাকেন। এর আগে তালিবান যখন ক্ষমতায় এসেছিল, তখনও মোল্লা ওমর থাকতেন লোকচক্ষুর অন্তরালে। তিনি কয়েকবার মাত্র কাবুলে এসেছিলেন। শোনা যায়, মোল্লা ওমর থাকতেন কন্দহরে এক সুরক্ষিত স্থানে। দর্শনার্থীরাও অনেক সময় তাঁর সাক্ষাৎ পেতেন না।

হিবাতুল্লাও তালিবানের প্রতিষ্ঠাতার মতো প্রকাশ্যে আসেন না। নিরাপত্তার জন্যই তিনি গোপনে থাকেন। তাঁর আগে যিনি তালিবানের প্রধান ছিলেন, সেই মোল্লা আখতার মনসুরকে হত্যা করেছিল আমেরিকা। পর্যবেক্ষকদের ধারণা, তালিবান সরকার গড়ার পরে হিবাতুল্লা একবার প্রকাশ্যে আসতে পারেন। কিন্তু তাঁকে নিয়মিত প্রকাশ্যে দেখা যাবে না। একবার সকলকে দেখা দিয়ে তিনি ফের আত্মগোপন করবেন । খবর দ্য ওয়া্রেলর/এনবিএস/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *