ঢাকা, মঙ্গলবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৭ অপরাহ্ন
আমাকে উকিলের সঙ্গে কথা বলতে দেওয়া হয়নি, ‘ট্যাক্স সার্ভের’ পর জানালেন নিউজ লন্ড্রির প্রতিষ্ঠাতা
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :


আমাকে উকিলের সঙ্গে কথা বলতে দেওয়া হয়নি, ‘ট্যাক্স সার্ভের’ পর জানালেন নিউজ লন্ড্রির প্রতিষ্ঠাতা

 শুক্রবার দুপুরে দু’টি নিউজ ওয়েব সাইট ‘নিউজক্লিক’ (Newsclick) ও ‘নিউজলন্ড্রি’-র অফিসে হানা দেন আয়কর দফতরের অফিসাররা। অভিযোগ, ওই দু’টি নিউজ পোর্টাল ট্যাক্স ফাঁকি দিয়েছে। সেজন্য তাঁরা ‘ট্যাক্স সার্ভে’ করেন। প্রায় ১২ ঘণ্টা পরে আয়কর দফতরের অফিসাররা দু’টি সংবাদ মাধ্যমের অফিস ছেড়ে বেরিয়ে যান। শনিবার নিউজলন্ড্রির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা অভিনন্দন শেখরি টুইট করে বলেছেন, “আমাকে উকিলের সঙ্গে কথা বলতে দেওয়া হয়নি। আইনত আমি উকিলের সঙ্গে কথা বলতে পারি। আইনি পরামর্শ চাইতে পারি।”


শেখরির অভিযোগ, আয়কর অফিসাররা তাঁর ফোনটি চেয়ে নিয়েছিলেন। সেখানে যা তথ্য ছিল, সব তাঁরা ডাউনলোড করেছেন। এর ফলে তাঁর ব্যক্তিগত গোপনীয়তার অধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে।

শেখরি টুইটারে লিখেছেন, “১০ সেপ্টেম্বর বেলা ১২ টা বেজে ১৫ মিনিট নাগাদ আয়কর দফতরের কয়েকজন অফিসার নিউজলন্ড্রির রেজিস্টার্ড অফিসে উপস্থিত হন। আয়কর আইনের ১৩৩ এ ধারা অনুযায়ী তাঁরা সমীক্ষা করেন। রাত ১২ টা বেজে ৪০ মিনিটে তাঁরা অফিস থেকে বেরিয়ে যান। আমাকে বলা হয়েছিল, উকিলের সঙ্গে কথা বলবেন না। আমার ফোনটিও আয়কর অফিসারদের দিয়ে দিতে হয়েছিল।”


নিউজলন্ড্রির প্রতিষ্ঠাতার দাবি, আয়কর অফিসাররা তাঁদের অফিসের প্রতিটি কম্পিউটার খুঁজে দেখেছেন সেখানে কী তথ্য আছে। তাঁর মোবাইল, ল্যাপটপ এবং অফিসের আরও কয়েকটি যন্ত্র তাঁরা খতিয়ে দেখেছেন। সেখানে রক্ষিত যাবতীয় তথ্য ডাউনলোড করেছেন। পরে অবশ্য শেখরি জানান, আয়কর অফিসাররা কারও সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেননি। তাঁরা পেশাদারের মতোই নিজেদের কাজ করেছেন।

শেখরি বলেন, “আমাদের লুকোনর কিছু নেই। আমরা কোনও আইন ভাঙিনি। আমাদের সংস্থা সততার সঙ্গে ব্যবসা করে।”

নিউজক্লিক নামে সংস্থাটি এখনও আয়কর হানা নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানায়নি। আয়কর দফতরের অফিসাররা একটি সংবাদ সংস্থাকে জানিয়েছেন, দু’টি নিউজ পোর্টাল কী পরিমাণে কর জমা দিয়েছে, তা জানার জন্যই শুক্রবার সমীক্ষা করা হয়েছিল।

আয়কর আইন অনুযায়ী কেবলমাত্র ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানেই ‘সার্ভে’ করা যায়। কারও বাড়িতে সমীক্ষা করা যায় না। অফিস আওয়ারের মধ্যেই ওই কাজ করতে হয়। আয়কর অফিসাররা সংস্থার অ্যাকাউন্ট বুক এবং অন্যান্য নথিপত্র পরীক্ষা করতে পারেন। কিন্তু বাজেয়াপ্ত করতে পারেন না।

এর আগে জুন মাসে নিউজলন্ড্রির অফিসে আয়কর অফিসাররা হানা দিয়েছিলেন। তার কয়েক মাসের মধ্যে কেন ফের সমীক্ষা করার প্রয়োজন হল জানা যাচ্ছে না। গত ফেব্রুয়ারি মাসে নিউজক্লিকের অফিসেও হানা দিয়েছিলেন এনফোর্সমেন্ট ডায়রেক্টরেটের অফিসাররা। অভিযোগ, ওই সংস্থাটি টাকা তছরুপ করেছিল। খবর ওয়ালের / এনবিএস/২০২১/একে 

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *