ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১২:০৪ পূর্বাহ্ন
আমেরিকার অসংলগ্ন আচরণ বহাল রেখে সংলাপে বসে লাভ নেই’
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

আমেরিকার অসংলগ্ন আচরণ বহাল রেখে সংলাপে বসে লাভ নেই’


ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির-আব্দুল্লাহিয়ান বলেছেন, ভিয়েনায় পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের সংলাপের ভবিষ্যত আমেরিকার আচরণের ওপর নির্ভর করছে। ইরান ওই সংলাপে ফিরে যাওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

জাতিসংঘের বার্ষিক সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে নিউ ইয়র্ক সফররত আব্দুল্লাহিয়ান শুক্রবার এক  সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান।

তিনি বলেন, মার্কিনীরা একদিকে পরমাণু সমঝোতায় ফিরে আসার আগ্রহ প্রকাশ করে ইরানকে আলোচনার টেবিলে যাওয়ার আহ্বান জানাচ্ছে অন্যদিকে একই সময়ে তেহরানের বিরুদ্ধে নতুন নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে। আমেরিকার এ আচরণকে তিনি ‘অসংলগ্ন’ উল্লেখ করে বলেন, এই আচরণ চলতে থাকলে সংলাপে বসে লাভ নেই।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জো বাইডেন আমেরিকার প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে তার মুখে অসংলগ্ন ও অসঙ্গত কথাবার্তা ছাড়া পরমাণু সমঝোতার ব্যাপারে ওয়াশিংটনের পক্ষ থেকে বাস্তবসম্মত কোনো পদক্ষেপ চোখে পড়েনি। কাজেই ভিয়েনা সংলাপে ফেরার ব্যাপারে বাইডেনের আচরণ পর্যবেক্ষণ করে সিদ্ধান্ত নেবে তেহরান।

আব্দুল্লাহিয়ান বলেন, ইরানে নয়া সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে পরমাণু সমঝোতায় প্রত্যাবর্তন ও ভিয়েনা সংলাপকে স্বীকৃতি দেয়াসহ এই সমঝোতার ব্যাপারে সুস্পষ্ট ইতিবাচক অবস্থান নিয়েছে। তবে ইরানের পক্ষ থেকে এই সদিচ্ছার জানালা সব সময় খোলা থাকবে না।

এর আগে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইরানকে উদ্দেশ করে বলেছিলেন, ভিয়েনা সংলাপ আবার শুরু করার সুযোগ চিরকাল খোলা থাকবে না। এছাড়া, আমেরিকাসহ পরমাণু সমঝোতায় স্বাক্ষরকারী পশ্চিমা দেশগুলো ভিয়েনা সংলাপে ফিরে যাওয়ার জন্য ব্যাপকভাবে ইরানের ওপর চাপ প্রয়োগ করছে। কিন্তু তেহরান বলছে, দেশটির স্বার্থ রক্ষিত না হলে কারো সঙ্গে কোনো আলোচনায় বসবে না ইরান।পাশাপাশি ইরানি কর্মকর্তারা সব সময় একথা বলে এসেছেন যে, দেশটি কখনও কারো চাপের মুখে নতিস্বীকার করে না। খবর পার্সটুডে/এনবিএস/২০২১/একে

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শুক্রবারের বক্তব্য থেকে একথা স্পষ্ট হয়েছে যে, শিগগিরই ভিয়েনায় প্রতিনিধিদল পাঠাচ্ছে না তেহরান

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *