ঢাকা, শনিবার ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ন
টিকাকরণে রেকর্ড ভারতের, ১০০ কোটির লক্ষ্যমাত্রা পূর্ণ হল, পিছিয়ে নেই বাংলাও
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :


টিকাকরণে রেকর্ড ভারতের, ১০০ কোটির লক্ষ্যমাত্রা পূর্ণ হল, পিছিয়ে নেই বাংলাও

কোভিড টিকাকরণে (Vaccine) ফের রেকর্ড তৈরি হল। বিশ্বের বৃহত্তম টিকাকরণ কর্মসূচী ভারতেই হয়েছে বলে দাবি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। গত ১৬ জানুয়ারি দেশে করোনার টিকাকরণ পর্ব শুরু হওয়ার পর থেকে গতকাল ২০ সেপ্টেম্বর অবধি দেশে টিকাকরণ হয়েছে ১০০ কোটি, যা ঐতিহাসিক বলেই দাবি করা হচ্ছে।

গত সেপ্টেম্বর মাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জন্মদিনের দিনেই টিকাকরণে নজির গড়েছিল ভারত। একদিনে আড়াই কোটির লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হয়েছিল। কোউইন পোর্টালের তথ্য বলছে, এই দশ মাসে ১০০ কোটি মানুষকে টিকার অন্তত ফার্স্ট ডোজ দেওয়া শেষ হয়েছে। গতকাল রাত ১১টা অবধি কোউইনের ডেটা বলছে মোট ৯৯.৭ কোটি টিকাকরণ হয়েছে ভারতে। এর মধ্যে ৭৫ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক টিকার ফার্স্ট ডোজ ও ৩১ শতাংশ দুটি ডোজই পেয়েছেন।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মনসুখ মাণ্ডবিয়া বলছেন, টিকাকরণের ঐতিহাসিক জার্নি স্মরণীয় করে রাখতে লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। তাছাড়া দেশের প্রত্যন্ত এলাকাগুলিতে টিকাকরণে সাধারণ মানুষকে উৎসাহিত করার জন্য আরও জোরকদমে প্রচার চলবে। গ্রামগুলিতে ১০০ শতাংশ টিকাকরণ শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।


এদিকে কোভিড টিকাকরণে পিছিয়ে নেই পশ্চিমবঙ্গও। দুদিন আগেই রাজ্যের কোভিড পরিস্থিতি ও টিকাকরণ নিয়ে নবান্নে উচ্চপর্যায়ের বৈঠক করে মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী। তিনি জানান, ডিসেম্বরের মধ্যে ১৮ ঊর্ধ্ব সাত কোটিকে টিকার অন্তত একটি ডোজ দেওয়া শেষ হবে। তারই পরিকল্পনা চলছে জোরকদমে। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যাণ বলছে, চলতি বছর ১৬ জানুয়ারি থেকে সারা দেশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গেও টিকাকরণ শুরু হয়। সেই দিন থেকে গত ৩০ এপ্রিল অবধি এক কোটি টিকাকরণ হয় বাংলায়। আর এখন সেই সংখ্যাই ৬ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্যে টিকার ফার্স্ট ডোজ নিয়েছেন ৪ কোটি ৯০ লক্ষ, সেকেন্ড ডোজ ১ কোটি ৮৫ লক্ষ। কলকাতায় এখনই ১ লক্ষ ৭৯ হাজার জন টিকার ফার্স্ট ডোজ পেয়েছেন, সেকেন্ড ডোজ প্রাপকের সংখ্যাও লাখের বেশি। খবর দ্য ওয়ালের/এনবিএস/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *