ঢাকা, বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৫১ অপরাহ্ন
শিক্ষা নেই, গ্রাস করছে দারিদ্র্য, ত্রিপুরায় বিলুপ্তির পথে কার্বং উপজাতি
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :


শিক্ষা নেই, গ্রাস করছে দারিদ্র্য, ত্রিপুরায় বিলুপ্তির পথে কার্বং উপজাতি

একসময় তাঁদের গোষ্ঠীর নেতারা ডাক পেতেন ত্রিপুরার (Tripura) রাজ সভাঘরে। সভাকক্ষ আলো করে থাকতেন তাঁদের প্রতিনিধিরা। রাজকার্যেও তাঁদের ভূমিকা কম ছিল না। কিন্তু ত্রিপুরার এই প্রাচীন জনগোষ্ঠী কার্বংরা আজ বিপন্ন। তাঁরা দিন দিন বিলুপ্তির পথে এগোচ্ছেন, যা নিয়ে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে বিশেষজ্ঞদের কপালে।

ত্রিপুরার হালাম কমিনিটির একটি উপজাতি গোষ্ঠীর নাম কার্বং। পশ্চিম ত্রিপুরাতেই ছিল মূলত তাঁদের বাস। এখনও পশ্চিম ত্রিপুরা এবং ধালাই জেলায় গেলে দেখা মেলে এই কার্বংদের। তবে একসময় যাদের কোলাহলে মুখর হয়ে থাকত গোটা এলাকা, এখন তাদের সংখ্যাটা একেবারেই নগন্য। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এখন পশ্চিম ত্রিপুরার আনাচে কানাচে রয়েছে মাত্র ২৫০ কার্বং।

স্মৃতির পাতা হাতড়ে পুরনো দিনের কথা মনে করছিলেন বিশুরাই কার্বং। বয়স হয়েছে অনেক। বলছেন, আমার এখনও আবছা মনে পড়ে, প্রতি বছর দুর্গাপুজোর সময় আমরা আগরতলায় উজ্জয়ন্ত রাজ প্রাসাদে যেতাম, সেসময় রাজা ছিলেন বীর বিক্রম কিশোর মানিক্য বাহাদুর। তিনিই নাকি এই কার্বংদের একসময় শিক্ষার আলোয় আলোকিত করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তাঁর উদ্যোগ খুব একটা সফল হয়নি।


পশ্চিম ত্রিপুরায় এখন খুব বেশি হলে ৪০ থেলে ৫০ কার্বং পরিবারের বাস। তাঁদের দিন আনি দিন খাই অবস্থা ক্রমে আরও খারাপ হয়ে চলেছে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পানীয় জলটুকুর পরিষেবাও জোটে না তাঁদের। প্রকৃত শিক্ষার অভাব, ভিন-জাতে বিবাহ আর দারিদ্র্যকেই বিলুপ্তির কারণ হিসেবে তুলে ধরছেন কার্বংরা।

কার্বংদের আলাদা করে উপজাতি গনণায় ধরাও হয় না। ১৯৪০ সালের তথ্য বলছে ত্রিপুরায় ১৯টি উপজাতি রয়েছে। হালাম গোষ্ঠীর মধ্যেই সেখানে কার্বংদের ধরা হয়েছিল। পরে কেন্দ্র সরকার এই কার্বংদের তফশিলি উপজাতির মর্যাদা দিয়েছে। খবর দ্য ওয়ালের/২০২১/এনবিএস/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: