ঢাকা, সোমবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন
সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন করা পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় নীতি, রাষ্ট্রপুঞ্জে তোপ ভারতের
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন করা পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় নীতি, রাষ্ট্রপুঞ্জে তোপ ভারতের

পাকিস্তানের মদতপুষ্ট সন্ত্রাসবাদীরা (Militants) নিয়মিত সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে ঢোকার চেষ্টা চালাচ্ছে। ভারত সরকার তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবে। মঙ্গলবার রাষ্ট্রপুঞ্জে এমনই জানিয়ে দিল ভারত। রাষ্ট্রপুঞ্জে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি কাজল ভাট বলেন, দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের উপযুক্ত পরিস্থিতি তৈরি করতে হবে পাকিস্তানকেই। কেবল সন্ত্রাসমুক্ত পরিবেশেই ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে আলোচনা হতে পারে।

রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদে কাজল ভাট বলেন, “ভারত চায় পাকিস্তান সহ প্রতিটি প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলতে। পাকিস্তানের সঙ্গে যে কোনও বিরোধ সিমলা চুক্তি ও লাহোর ঘোষণা অনুযায়ী মিটিয়ে নেওয়া হবে।”

এর আগে নিরাপত্তা পরিষদে কাশ্মীর ইস্যু তোলে পাকিস্তান। ভারতের প্রতিনিধি বলেন, “এর আগেও পাকিস্তানের দূত এই মঞ্চটির অপব্যবহার করেছেন। তাঁরা নিরাপত্তা পরিষদে আমার দেশের বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচার করেন।” ভারতের অভিযোগ, পাকিস্তানের অবস্থা ক্রমশ শোচনীয় হয়ে উঠছে। সেখানে সংখ্যালঘুরা দুর্দশার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। জঙ্গিরা পাকিস্তানে অবাধে ঘোরাফেরা করে। এসবের থেকে বিশ্বের নজর ঘোরানোর জন্যই পাকিস্তান রাষ্ট্রপুঞ্জে বার বার কাশ্মীর প্রসঙ্গ তোলে।


গত কয়েক মাসে কাশ্মীরে জঙ্গি তৎপরতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এর মোকাবিলায় ৫৫০০ র ওপর অতিরিক্ত কেন্দ্রীয় সশস্ত্র পুলিশ (সিএপিএফ) উপত্যকায় পাঠানো হয়েছে বলে সরকারি সূত্রের খবর। একের পর এক হত্যাকাণ্ডের জেরে সেখানে বাহিনীর উপস্থিতি যাতে নজরে পড়ে, নিরাপত্তা জোরদার হয়, সেই কৌশলের অঙ্গ হিসাবেই বাড়তি কোম্পানি পাঠানো হল বলে জানিয়েছে সূত্রটি।

গত মাসেই নিরীহ নাগরিকদের টার্গেট করে হত্যার পরিপ্রেক্ষিতে সেখানে নতুন প্রায় ৫৫ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা উচিত বলে জানিয়েছিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। এই দফার শেষ ৫ কোম্পানি আগামী সপ্তাহের মধ্যে পৌঁছে যাবে। ২৫ কোম্পানি তৈরি হয়েছে সিআরপিএফ জওয়ানদের নিয়ে, বাকি কোম্পানিগুলিতে নেওয়া হয়েছে বিএসএফ জওয়ানদের। একটি সিএপিএফ কোম্পানিতে প্রায় ১০০ জন জওয়ান থাকে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও সন্ত্রাসবাদ দমনের কাজে জম্মু ও কাশ্মীরে ব্যাপক সংখ্যায় সিআরপিএফ জওয়ান মোতায়েন রয়েছে। প্রায় ৬০ ব্যাটালিয়ন সিআরপি আছে। প্রতিটি ব্যাটালিয়নের শক্তি হাজারখানেক জওয়ান। বিএসএফ সেনাবাহিনীর অপারেশন সংক্রান্ত কম্যান্ডের আওতায় ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত পাহারায় থাকে। তবে তাদের কিছু ইউনিট শহরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কাজেও নিযুক্ত হয়।খবর দ্য ওয়ালের /এনবিএস/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: