ঢাকা, শুক্রবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৫৯ পূর্বাহ্ন
হুদায়দা উপকূল এলাকা থেকেও পালালো সৌদি ভাড়াটে সেনারা: চিন্তিত যুক্তরাষ্ট্র
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

হুদায়দা উপকূল এলাকা থেকেও পালালো সৌদি ভাড়াটে সেনারা: চিন্তিত যুক্তরাষ্ট্র

ইয়েমেনের সৌদিপন্থী পলাতক প্রেসিডেন্ট আব্দ রাব্বু মানসুর হাদির অনুগত সেনারা এবং তাদের সহযোগী সংযুক্ত আরব আমিরাতের সৈন্যরা ইয়েমেনের পশ্চিমাঞ্চলীয় কৌশলগত প্রদেশ আল হুদাইদার উপকূলীয় এলাকা থেকে পিছু হটে আল জুখে শহরের দিকে চলে গেছে। ইয়েমেনের হুথি যোদ্ধাদের প্রতিরোধের মুখে টিকতে না পেরে গত ১০ ও ১১ নভেম্বর সৌদি অনুগত সেনারা ওই এলাকা থেকে চলে যেতে বাধ্য হয় বলে জানা গেছে।

তবে গত এক সপ্তাহ ধরে সৌদি কর্মকর্তারা এ বিষয়ে কোনো কথা বলেননি এবং দেশটির গণমাধ্যমগুলো প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করে দাবি করেছে ২০১৮ সালের স্টকহোম সমঝোতা অনুযায়ী ওই সেনাদেরকে সরিয়ে আনা হয়েছে। অন্যদিকে ইয়েমেনে আগ্রাসী আরব জোট এক বিবৃতিতে দাবি করেছে পিছু হটে আসা ওই এলাকাটি আন্তর্জাতিক তত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে এবং স্টকহোম চুক্তিতে ওই এলাকাকে বেসামরিক হিসেবে ঘোষণা দেয়া হয়েছে যাতে বেসামরিক লোকজন নিরাপদে থাকে। তবে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের মুখপাত্র তুর্কি আল মালেকি দাবি করেছেন, মানসুর হাদির অনুগত এসব সেনাদের শুধুমাত্র সামরিক কৌশল হিসেবে জায়গা পরিবর্তন করা হয়েছে এবং ইয়েমেনের পদত্যাগকারী সরকারের সমর্থনে তারা যুদ্ধ চালিয়ে যাবে।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের মুখপাত্রের এ বক্তব্যের সাথে সৌদি গণমাধ্যমের দাবির কোনো মিল নেই। গণমাধ্যমের দাবি স্টকহোম সমঝোতা মেনে সেনারা পিছু হটেছে অথচ বাস্তবতা হচ্ছে তাদের ভিন্ন উদ্দেশ্য রয়েছে এবং তারা যুদ্ধ চালিয়ে যাবে। আরেকটি বিষয় হচ্ছে যেভাবে সৌদি সমর্থিত সেনারা পিছু হটে গেছে তা বহু পর্যবেক্ষককে এমনকি খোদ সৌদি জোটের সেনারাও বিস্মিত হয়েছে। এমনকি সেনাদের কেউ কেউ এটাকে বিশ্বাসঘাতকতা ও ষড়যন্ত্র হিসেবে দেখছে। কেননা মাত্র কয়েক বছর আগে প্রচণ্ড যুদ্ধের মাধ্যমে তারা ওই এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিতে পেরেছিল। কিন্তু এখন হুথি যোদ্ধারা আবারো ওই এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিল এবং কোনো সংঘাত ছাড়াই তারা সেখানে প্রবেশ করেছে। এর কিছুদিন আগে একইভাবে মাআরিব থেকেও সৌদি ভাড়াটে সেনারা পিছু হটতে বাধ্য হয়েছিল এবং সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের মুখপাত্র তুর্কি আল মালেকি এ কথার সত্যতা স্বীকার করেছিলেন।

আল মিয়াদিন টিভি চ্যানেল ইয়েমেনের এক সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, মূল ঘটনা হচ্ছে রাজধানী সানার উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় মাআরিব প্রদেশে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের ভয়াবহ বিপর্যয়ের পর যুক্তরাষ্ট্র ও সংযুক্ত আরব আমিরাত চিন্তিত হয়ে পড়ে এবং এ কারণে তারা পশ্চিমাঞ্চলীয় উপকূল এলাকা থেকে সেনা সরাতে বাধ্য হয়েছে। মাআরিব পুনরুদ্ধারের সময় ইয়েমেনের সেনাবাহিনী ও হুথি যোদ্ধারা তিন দিক থেকে অভিযান চালিয়ে সেখান থেকে সৌদি ভাড়াটে সেনাদের সরিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছিল। তারা এমনভাবে শহরটিকে ঘিরে রেখেছিল যে শত্রুরা পিছু হটতে বাধ্য হয়েছিল।খবর পার্সটুডে/২০২১/এনবিএস/একে 

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: