ঢাকা, সোমবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:৪৭ পূর্বাহ্ন
আগ্রাসন চিনের রক্তে নেই, কারও এক ইঞ্চি জমিও দখল করেনি! বাইডেনকে জিনপিং
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

আগ্রাসন চিনের রক্তে নেই, কারও এক ইঞ্চি জমিও দখল করেনি! বাইডেনকে জিনপিং

 ছয়ের দশকে ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে পড়েছিল চিনা সেনাবাহিনী (chinese army)। ১৯৬২ সালে ভারত-চিন  (india china war) সীমান্ত সংঘর্ষের কথা এদেশের কেউ ভোলেনি।  হাতের কাছেই দৃষ্টান্ত আছে ডোকালাম, গালোয়ানের। অরুণাচল প্রদেশকেও ভারতীয় ভূখণ্ড নয়, দক্ষিণ তিব্বত বলে দাবি করে বেজিং। সেই চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের (xi jinping)   দাবি, চিন (china) শান্তিপূর্ণ (peace) রাষ্ট্র, কখনও নিজে থেকে যুদ্ধ (war) শুরু করেনি বা অন্য দেশের এক ইঞ্চি জমিও দখল (capture) করেনি! মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে ভার্চুয়াল সামিটে এমন কথা বলে তাঁর সংযোজন, চিনা জনগণ সবসময় শান্তি  ভালবাসে,  তাকে মূল্য দেয়। আগ্রাসন (aggression) বা আধিপত্য কায়েম চিন দেশের রক্তে নেই!

অথচ এই চিনের বিরুদ্ধেই শুধু ভারত কেন, পড়শী দেশগুলির অনেকেই গা জোয়ারি, আগ্রাসী মনোভাব দেখানোর অভিযোগ তুলে থাকে। শি যথারীতি তা লঘু করে দেখানোর চেষ্টা করেন। ভারতের সঙ্গে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর, দক্ষিণ  চিন সমুদ্র বা জাপানের সঙ্গে জলসীমা নিয়ে বিরোধ-সব ক্ষেত্রেই বিতর্কিত ভূখণ্ডে চিন নিজের অধিকার দাবি করে থাকে এবং সেজন্য আগ্রাসী আচরণ করে। দক্ষিণ চিন সমুদ্রে চিনের সঙ্গে বিরোধ রয়েছে ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া,ফিলিপিন্স, ব্রুনেই, তাইওয়ানের। সেখানে নিজের দখলদারি কায়েমের লক্ষ্যে কৃত্রিম দ্বীপ বানিয়েছে চিন। পূর্ব চিন সমুদ্রে সেনকাকু দ্বীপপুঞ্জ নিয়েও চিনের সঙ্গে জাপানের ঝামেলা চলছে। কিন্তু যাবতীয় সমলোচনার পাল্টা চিনা প্রেসিডেন্ট মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বলেছেন, গণপ্রজাতন্ত্র স্থাপন হওয়া থেকেই চিন একটিও যুদ্ধ বা সংঘাতের সূচনা করেনি, অন্য  কোনও দেশ থেকে এক ইঞ্চি জমিও ছিনিয়ে নেয়নি।খবর দ্য ওয়ালের/২০২১/এনবিএস/একে 

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: