ঢাকা, সোমবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:৫৯ পূর্বাহ্ন
‘ত্বকের স্পর্শ না হলে যৌন নিগ্রহ নয়’ পকসো আইন নিয়ে বম্বে হাইকোর্টে রায় খারিজ সুপ্রিম কোর্টের
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

‘ত্বকের স্পর্শ না হলে যৌন নিগ্রহ নয়’ পকসো আইন নিয়ে বম্বে হাইকোর্টে রায় খারিজ সুপ্রিম কোর্টের

 ‘ত্বকের স্পর্শ’ এই কথাটা খুব ঘৃণ্য অর্থে ব্যবহার করা হচ্ছে। ত্বকের স্পর্শ না হলে শিশুদের ওপর যৌন নিগ্রহের অভিযোগ দায়ের করা যাবে না, বম্বে হাইকোর্টের এই রায়ের সঙ্গে সহমত হল না সুপ্রিম কোর্ট। পকসো আইন ( POCSO ACT) নিয়ে বম্বে হাইকোর্টের ব্যাখ্যা মানতে নারাজ শীর্ষ আদালতের তিন বিচারপতির বেঞ্চ। বিচারপতিরা জানিয়েছেন, যৌন নিগ্রহের উদ্দেশ্য ছিল কিনা সেটাই বিচার্য বিষয়। সেখানে ত্বকের স্পর্শ না হলে পকসো আইন লাগু হবে না সেটা একেবারেই সঠিক সিদ্ধান্ত নয়।


শিশুদের ক্ষেত্রে যতক্ষণ না শরীর স্পর্শ করা হবে ততক্ষণ সেটা যৌন নির্যাতন নয়| ১২ বছর বা তার কম বয়সের শিশুদের পোশাকের ওপর দিয়ে কোনও রকম স্পর্শ বা হেনস্থা করা হলে তা যৌন নির্যাতন হিসেবে বিবেবিচত হবে না, পকসো আইনের একটি মামলার শুনানিতে এমনই রায় দিয়েছিল বম্বে হাইকোর্টের নাগপুর বেঞ্চ| সেই রায় নিয়ে বিতর্ক হয়েছিল। বম্বে হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিল জাতীয় মানবাধিকার কমিশন, শিশু অধিকার সুরক্ষা কমিশনের সদস্যরা। চলতি বছর জানুয়ারিতে সেই রায়ের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট।


শিশুদের পোশাকের ওপর দিয়ে যদি অন্যায় স্পর্শ করা হয়, তাদের হেনস্থা করা হয়, তাহলে কীভাবে সেটা যৌন নিগ্রহ হিসেবে বিবেচিত হবে না, এই নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছিল| বম্বে হাইকোর্টের নাগপুর বেঞ্চের মহিলা বিচারপতি পুষ্প গানেদিওয়ালা তাঁর রায়ে বলেছিলেন, ‘স্কিন টু স্কিন কনট্যাক্ট’ না হলে সেটা যৌন নির্যাতন নয়, অর্থাৎ শিশুদের জামাকাপড় খুলিয়ে বা জামাকাপড়ের ভিতরে হাত গলিয়ে তাদের বুক বা গোপনাঙ্গ স্পর্শ না করা হলে সেটা যৌন নির্যাতন নয়। এমন ঘটনা পকসো আইনের পর্যায়ে পড়বে না| তবে বিচারকের এও যুক্তি ছিল, নির্যাতন হিসেবে চিহ্নিত হওয়ার জন্য পেনিট্রেশন বা শিশুর শরীরে অঙ্গ প্রবেশ করতে হবে এমনটা নয়, যে কোনও যৌন-স্পর্শই নির্যাতন হিসেবে গৃহীত হবে, তবে তা পোশাকের উপর দিয়ে হলে নয়, ভিতর দিয়ে হলে তবেই।

আজ এই মামলার শুনানি ছিল সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি উদয় উমেশ ললিত, বিচারপতি এ রবীন্দ্র ভাট ও বিচারপতি বেলা এম ত্রিবেদীর বেঞ্চে। শুনানি চলার সময় বিচারপতি বেলা ত্রিবেদী বলেন, ত্বকের স্পর্শ বা শারীরিক স্পর্শ না হলে পকসো আইনের ধারা লাগু করা যাবে না, এটা একেবারেই সঠিক সিদ্ধান্ত নয়। বিচারপতির বক্তব্য, কী উদ্দেশ্য নিয়ে স্পর্শ করা হচ্ছে সেটাই বিচার্য বিষয়। জামাকাপড়ের ওপর দিয়েও যদি অন্যায়ভাবে খারাপ উদ্দেশ্যে শিশুর শরীর স্পর্শ করা হয় বা গোপনাঙ্গে হাত দেওয়ার চেষ্টা হয়, তাহলে তা অবশ্যই পকসো আইনের ধারায় অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে।

সুপ্রিম কোর্টের আজকের রায় প্রসঙ্গে রাজ্য মহিলা কমিশনের চেয়ারপার্সন সুনন্দা মুখোপাধ্যায় বলেছেন, “এই রায়কে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি। শিশুর ওপর যৌন নির্যাতন, হেনস্থা রোধ করার আইন পকসো অ্যাক্ট নিয়ে বম্বে হাইকোর্ট যা বলেছিল তা নিয়ে এতদিন বিচারবিবেচনা হচ্ছিল। এতদিনে একটা দিশা পাওয়া গেল। খবর দ্য ওয়ালের/২০২১/এনবিএস/একে 

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: