ঢাকা, শুক্রবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন
কোভিডিবিধি মেনেই যাত্রাপালার অনুমতি চায় শহরের যাত্রাপাড়া
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

কোভিডিবিধি মেনেই যাত্রাপালার অনুমতি চায় শহরের যাত্রাপাড়া

 করোনার প্রথম বছর ২০২০। সেই ২১ মার্চের পর থেকে লকডাউনের জেরে সেই পাড়া এক্কেবারে শুনশান। এখনও পরিস্থিতি তাই। যাত্রার (Theatre) মরশুম সামনেই। কিন্তু এখনও অনুমতি দেয়নি প্রশাসন। তাই করোনা পরিস্থিতিতে সামাজিক দূরত্ববিধির শর্তে আগামী দিনেও অন্ধকার কাটার আশা দেখছে না বাংলার এই সনাতন লোকশিল্প গোষ্ঠী।


রথযাত্রায় ধুমধাম করে চিৎপুরে শুরু হয় সিজনের বুকিং। খবরের কাগজের পাতায় পাতায় থাকে নতুন পালার বিজ্ঞাপন। এবার সে-সব হয়নি। অপেরাগুলি জানাচ্ছে, সব খুলে গিয়েছে। শুধু তাঁরাই অনুমতি পাচ্ছেন না। আর্থিক সঙ্কটে ভুগছেন প্রযোজকরাও। ফলে বড় শিল্পীদের সঙ্গ চুক্তি হয়নি এখনও। সেই সঙ্গে আশঙ্কা, অগ্রিম দিয়ে শিল্পীদের সঙ্গে চুক্তি হয়ে গেলে, তারপর যদি যাত্রার বুকিং না হয়? সামাজিক দূরত্ববিধি বজায় রেখে কি পালা করা সম্ভব, রিহার্সাল সম্ভব? নাকি দর্শক সমাবেশ সম্ভব?

‘খুব চিন্তায় আছি!”, বললেন যাত্রা সংস্থার নেপাল দত্ত। তাঁরা কোভিডবিধি মেনে যাত্রা করতে প্রস্তুত। কিন্তু সরকার অনুমতি দিচ্ছে না। তাই ধুঁকছেন যাত্রার দৈনিক রোজগার করা শিল্পীরাও। যাত্রাশিল্পী থেকে ম্যানেজার, সাজঘরের লোক থেকে ইলেকট্রিকের মিস্ত্রি, এদের চলবে কী করে, চিন্তায় কলকাতার যাত্রাপাড়া।


যাত্রার প্রয়োজক তাপস দাস জানালেন, যাত্রা অ্যাকাডেমির চেয়ারম্যান অরূপ বিশ্বাসকে আবেদন জানিয়েছি। নতুন বহু পালা তৈরি হয়েছে। কিন্তু সেগুলি মঞ্চস্থ করা যাবে কী না কে জানে। যদিও দক্ষিণ ২৪ পরগনা ও পুরুলিয়াতে অনুমতি ছাড়াই কিছু যাত্রা হচ্ছে। তবে সেগুলি বিনামূল্যে যাত্রা। স্থানীও ক্লাব ও সংগটনের উদ্যোগে।

দেবাঞ্জলি অপেরার নিরঞ্জন গুড়িয়া বললেন, আমরা বুকিং নেওয়া শুরু করেছি। আমাদের আশা শীতের মরশুমেই সরকার কোভিডিবিধি বজায় রেখে যাত্রার অনুমতি দেবে।খবর দ্য ওয়ালের/২০২১/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: