ঢাকা, শুক্রবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:১৮ পূর্বাহ্ন
মন্ত্রিসভার রদবদল নিয়ে আমি খুশি, জানালেন শচীন পাইলট
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

মন্ত্রিসভার রদবদল নিয়ে আমি খুশি, জানালেন শচীন পাইলট

গত বছরেই রাজস্থানে দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেছিলেন কংগ্রেস নেতা শচীন পাইলট (Sachin Pilot)। অনেকে ধরে নিয়েছিলেন তিনি শীঘ্রই বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন। কিন্তু শেষ মুহূর্তে কংগ্রেস হাইকম্যান্ড আশ্বাস দেয়, তাঁর দাবিদাওয়ার কথা সহানুভূতির সঙ্গে বিবেচনা করা হবে। রবিবার রাজস্থানে মন্ত্রিসভার বড় ধরনের রদবদল হয়। তারপরে শচীন পাইলট বলেন, মন্ত্রিসভার রদবদলের সময় হাইকম্যান্ড কংগ্রেস কর্মীদের নানা অভিযোগের কথা বিবেচনা করেছে। এতে আমি খুশি। ২০২৩ সালে কংগ্রেস ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিজেপির মোকাবিলা করবে।

৪৪ বছর বয়সী শচীন বলেন, “নতুন মন্ত্রিসভা এদিনই শপথ নেবে। কয়েকদফা আলোচনার পরে নেতারা মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ নিয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এর ফলে রাজ্য জুড়ে ইতিবাচক বার্তা পৌঁছবে।” রাজস্থানের মন্ত্রিসভায় এখন নতুন মন্ত্রীর সংখ্যা ১৫। তাঁদের মধ্যে চারজন হয়েছেন প্রতিমন্ত্রী। নতুন মন্ত্রিসভায় আদিবাসী দলিতদের প্রতিনিধি আছেন বেশি সংখ্যায়। শচীনের পাঁচজন অনুগামী মন্ত্রিসভায় স্থান পেয়েছেন। শচীন অবশ্য বলেছেন, “কংগ্রেস এখন সোনিয়া গান্ধী, রাহুল গান্ধী ও প্রিয়ঙ্কা গান্ধীর নেতৃত্বে চলে। দলের মধ্যে কোনও গোষ্ঠী নেই। মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত যৌথভাবে নেওয়া হয়েছে।”

শচীন ইঙ্গিত দেন, আগামী দিনে মন্ত্রিসভায় আরও রদবদল হতে পারে। তাঁর কথায়, “আর ২২ মাস পরেই রাজ্যে নির্বাচন হবে। এই পরিস্থিতিতে দলকে আরও চাঙ্গা করে তোলা প্রয়োজন। সেজন্য সবসময়ই পরিবর্তন করতে হবে।” মোদী সরকারের কৃষি আইন বাতিল করার কথা তুলে তিনি বলেন, বিজেপির রাজনীতিকে মানুষ প্রত্যাখ্যান করছে। ব্যাপক রাজনৈতিক চাপের মুখেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কৃষি আইন বাতিল করতে বাধ্য হয়েছেন।

নতুন মন্ত্রিসভায় চারজন দলিত স্থান পেয়েছেন। সেকথা উল্লেখ করে শচীন বলেন, দীর্ঘদিন রাজস্থানে কোনও দলিত মন্ত্রী হননি।

সম্প্রতি দিল্লিতে সনিয়া গান্ধীর সঙ্গে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের বৈঠক হয়। তার পরেই বোঝা যাচ্ছিল এবার মন্ত্রিসভার রদবদল হতে চলেছে মরুরাজ্যে। মন্ত্রিসভায় শচীনের অনুগামীদের মধ্যে আছেন হেমারম চৌধুরী, রমেশ মীনা, বিশ্ববেন্দ্র সিং। তাঁদের মধ্যে বিশ্ববেন্দ্র এবং রমেশ আগে মন্ত্রী ছিলেন। গত বছর জুলাই মাসে এই দুই মন্ত্রীকে মন্ত্রিসভা থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। তার পরেই শচীন বিদ্রোহ করেন। তখন হাইকম্যান্ড তাঁকে বলে, ভোটের আড়াই বছর আগে মন্ত্রিসভায় ব্যাপক রদবদল করা হবে। খবর দ্য ওয়ালের /২০২১/এনবিএস/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: