ঢাকা, সোমবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন
স্কুল খোলার পরেও ফোনে মশগুল, মা-বাবার বকা খেয়ে অভিমানে আত্মঘাতী একাদশের ছাত্রী
এনবিএস ওয়েবডেস্ক :

স্কুল খোলার পরেও ফোনে মশগুল, মা-বাবার বকা খেয়ে অভিমানে আত্মঘাতী একাদশের ছাত্রী

 স্কুল খুলে গেছে। ক্লাস শুরু হয়ে গেছে পুরোদমে। এখনও ফোন নিয়েই মেতে রয়েছে মেয়ে। পড়াশোনার বালাই নেই। রাগ করে তাই বকুনি দিয়েছিলেন বাবা-মা। তাতেই বিশাল অভিমান হয় কিশোরীর। অভিমান এতটাই যে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা (Suicide) করে সেই মেয়ে। বেহালার পর্ণশ্রীতে এই ঘটনা ঘটেছে শুক্রবার রাতে।


গত কয়েকদিনে পর পর এমন কয়েকটি ঘটনা ঘটে গেছে। মা-বাবার বকা খেয়ে আত্মঘাতী হয়েছে বজবজের এক কিশোরী। তারপর বেহালাতেও একই ধরনের ঘটনা ঘটল। মেয়েটি একাদশ শ্রেণির ছাত্রী। তার মা জানিয়েছেন, ফোন নিয়েই সবসময় মেতে থাকত। পড়াশোনা করতে বললে ফোন নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করত। কথা শুনত না। তাই মাঝেমাঝে বকাবকি করতেন। কিন্তু তার জন্য মেয়ে এমন একটা পদক্ষেপ নেবে তা স্বপ্নেও ভাবেননি কেউ।

বৃহস্পতিবার রাতে বাবার সঙ্গে সামান্য কথা কাটাকাটি হয় মেয়েটির। তারপর থেকেই নাকি গম্ভীর হয়ে গিয়েছিল সে। কারও সঙ্গে কথা বলছিল না। গতকাল শুক্রবার বাড়ি ফাঁকা ছিল। সেই সুযোগে গলায় ওড়নার ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। বাড়ি ফিরে মেয়ের ঝুলন্ত দেহ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন বাবা-মা।

কিছুদিন আগে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বজবজ পুরসভার বালুরঘাটে দশম শ্রেণির এক ছাত্রী আত্মঘাতী হয়। সেই মেয়েটিকেও ফোন নিয়ে মেতে থাকার জন্য বকুনি দিয়েছিলেন তাঁর মা। অনলাইন ক্লাসের জন্য তাকে ফোন কিনে দেওয়া হয়েছিল। সেই ফোন নিয়েই সারাক্ষণ খুটখুট করত মেয়েটি। বারণ করায় এতটাই অভিমান হয় তার যে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলে পড়ে। মনোবিদরা বলছেন, এখনকার ছেলেমেয়েরা মানসিক দিক থেকে অনেক বেশি স্পর্শকাতর হয়ে পড়ছে। সামান্য বকাবকিতেই ধৈর্য হারাচ্ছে। আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছে অনেকেই। অবসাদ বাসা বাঁধছে কম বয়স থেকেই। কোনও কিছু পাওয়ার জেদ বেশি চেপে বসছে, সেই ইচ্ছা পূরণ না হলেই ভয়ঙ্কর পদক্ষেপ নিতেও পিছপা হচ্ছে না এখনকার তরুণ প্রজন্ম। মনোবিদরা বলছেন, এখনকার ছোট পরিবারগুলিতে ছেলেমেয়েদের আবদার অনেক বেশি পূরণ করা হয়। সে জন্যে অল্পেই ধৈর্যচ্য়ুতি হচ্ছে কমবয়সী ছেলেমেয়েদের । খবর দ্য ওয়ালের /২০২১/এনবিএস/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: