ঢাকা, শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন
কীভাবে ট্যুইটারের শীর্ষে উত্থান মুম্বইয়ের পরাগ আগরওয়ালের? কত বেতন? 
Reporter Name

কীভাবে ট্যুইটারের শীর্ষে উত্থান মুম্বইয়ের পরাগ আগরওয়ালের? কত বেতন? 

সরলেন জ্যাক ডোরসি (jack dorsey)। ট্যুইটারের সিইও (twitter) (ceo) পদে আরোহন হল পরাগ আগরওয়ালের (parag agarwal)। ডোরসির বিদায় আর পরাগের উত্তরণ-গত কয়েক মাস ধরেই সম্ভবতঃ প্রক্রিয়াটা চলছিল।  শোনা যাচ্ছে, ট্যুইটার পরিচালকমণ্ডলী ডোরসির জায়গায় লোক খুঁজছিল কিছুদিন যাবত্। শেষ পর্যন্ত যোগ্য প্রার্থী পাওয়া গেল সংস্থার ভিতরেই। তিনি চিফ টেকনিক্যাল অফিসার (সিটিও) (cto) পরাগ।  ভারতীয় বংশোদ্ভূত গুগলের সিইও সুন্দর পিচাইয়ের (picdhai) মতো পরাগও আইআইটির ছাত্র। পিচাই খড়্গপুরের। ৪৫  বছরের পরাগ মুম্বই আইআইটির।  বাণিজ্য নগরীতেই জন্ম তাঁর। ডোরসির পছন্দের তালিকায় পরাগ ছিলেন আগে থেকেই, যা হয়তো তাঁর সিইও বাছাই হওয়ায় সাহায্য করেছে।

ট্যুইটার তাদের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পরাগের  কেরিয়ারের যে তথ্য দিয়েছে, তা হল, তিনি ২০১১-য় ট্যুইটারে যোগ দেন। ২০১৭ থেকে তিনি সিটিও। কোম্পানির টেকনিক্যাল স্ট্র্যাটেজি স্থির করা, সর্বস্তরে মেশিন লার্নিং প্রক্রিয়া এগিয়ে নিয়ে যাওয়া, উন্নতির গতি বাড়ানো-এসব ছিল তাঁর কাজ। সিটিও হওয়ার আগে রাজস্ব ও কনজিউমার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে ভাল কাজের সুবাদে পরাগ ট্যুইটারের প্রথম বিশিষ্ট ইঞ্জিনিয়ারের স্বীকৃতি পান। ২০১৬, ২০১৭য় ট্যুইটারের অডিয়েন্স বৃ্দ্ধির গতি আনাতেও বড় ভূমিকা ছিল তাঁর।

পরাগ স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার সায়েন্সে  ডক্টরেট পিএইচডি করেছেন। তার আগে আইআইটি থেকে কম্পিউটার সায়েন্স ও ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক হয়েছেন। স্কুলের পড়াশোনা অ্য়াটমিক এনার্জি সেন্ট্রাল স্কুলে। পরাগের নাকি ছোটবেলা থেকে অঙ্কে ভাল মাথা। বড় ডেটাবেস সামলানোয়ও দক্ষ। পরাগের মা অবসর নেওয়া স্কুলশিক্ষিকা। বাবা অ্যাটমিক এনার্জি সেক্টরে বড়  পদে চাকরি করতেন।

ট্যুইটারের আগে তিনি অল্প কিছুদিন কাজ  করেন মাইক্রোসফট, এটি অ্যান্ড টি ও ইয়াহুতে। সব জায়গাতেই মূূলতঃ রিসার্চের কাজ করেছেন। ট্যুইটারে ঢোকার পর কিছুদিন বিজ্ঞাপন সংক্রান্ত প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করেন। ক্রমশঃ কৃত্রিম মেধা  নিয়ে ভাল কাজ করতে থাকেন। ডোরসির তাঁকে বিশেষ পছন্দ  করার প্রমাণ, ট্যুইটার কর্মীদের উদ্দেশে বার্তায় তিনি লেখেন, বোর্ড সব অপশন বিচার করে দীর্ঘ প্রক্রিয়ার পর পরাগকে নিয়োগ করেছে। কোম্পানির কী চাহিদা, খুব  ভাল জানে, বোঝে বলে আমারও  পছন্দ ছিল ওঁকে। কোম্পানিকে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করায় প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের পিছনে ও রয়েছে। যুক্তিবাদী, সৃষ্টিশীল, অনুসন্ধিত্সু, বিনয়ী, কাজ বের করে নেওয়ার লোক। হৃদয় মন ঢেলে নেতৃত্ব দেয়। প্রতিদিন আমিও ওর থেকে  শিখি। আমার গভীর ভরসা আছে ওর ওপর। ২০১৯ এ ডোরসিই ব্লুস্কাই শিরোনামে নতুন বিকেন্দ্রীভূত সোস্যাল মিডিয়া প্রজেক্ট চালু করে তার ভার দেন পরাগকে।

তবে সুন্দর পিচাই বা সত্য নাদেল্লা সিইও হওয়ার আগেই যতটা সুপরিচিত ছিলেন, ততটা নন পরাগ।  নিজেই সংস্থার কর্মীদের পাঠানো ই মেলে লিখেছেন, আমি জানি, আপনাদের কেউ আমায় ভাল চেনেন, কেউ সামান্য, কেউ একেবারেই চেনেন না। ধরে নিন, আমরা নিজেদের ভবিষ্যতের লক্ষ্যে প্রথম পদক্ষেপ  নিচ্ছি। জানি, আপনাদের অনেক প্রশ্ন আছে। অনেক আলোচনাও চাই। আপনাদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলব।
সিলিকন ভ্যালির ভিতরের লোকজনকে উদ্ধৃত করে নিউ ইয়র্ক টাইমস-এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডোরসির মতো পরাগও শান্তশিষ্ট, ভদ্র মানুষ। ডোরসির আধ্যাত্মিক উত্তরসূূরী। ইন্টারনেটের ক্ষমতা, নিয়ন্ত্রণ ইউজারদের হাতে ফেরানোর ব্যাপারে ভাবনাচিন্তা করেন।

এহেন পরাগের বেতন কত হবে?  বছরে ১০ লাখ মার্কিন ডলার, ১২.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থমূল্যের স্টকও পাবেন, জানিয়েছে ট্যুইটার। এখবর জানিয়েছে দ্য ওয়াল

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: