ঢাকা, শনিবার ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:২২ পূর্বাহ্ন
ডিসেম্বরে ঘূর্ণিঝড় বিরল, ৪০ বছর আগে একবারই দেখেছিল বাংলা
Reporter Name

ডিসেম্বরে ঘূর্ণিঝড় বিরল, ৪০ বছর আগে একবারই দেখেছিল বাংলা

 পুজোর পর সবে মাত্র নামতে শুরু করেছিল হেমন্তের পারদ। শীতের সেই রেশ পড়তে না পড়তেই প্রায় মিলিয়ে গেল। বাংলায় এই ঘোর ডিসেম্বর মাসে কিনা চোখ রাঙাচ্ছে ঘূর্ণিঝড়! শেষ কবে এমনটা হয়েছে?

পরিসংখ্যান বলছে, বাংলায় ডিসেম্বর মাসে ঘূর্ণিঝড় নিতান্তই বিরল কাণ্ড। একেবারে যে হয়নি তা নয়, তবে তা না হওয়ার মতোই। ৪০ বছর আগে ১৯৮১ সালে একবার ডিসেম্বরে ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়েছিল বাংলার উপকূলে। তার আগে পরে এমন দৃষ্টান্ত আর নেই। ১২৯ বছরে মাত্র একবারই সেই ঘূর্ণিঝড়ের দেখা মিলেছিল। তারপর আবার এই ২০২১ সালের ‘জাওয়াদ’। তবে তা স্থলভাগে আছড়ে পড়বে কি না তা নিয়ে এখনও নিশ্চয়তা নেই।

১৯৮১ সালের ডিসেম্বরের সেই ঘূর্ণিঝড় কিন্তু ছিল মারাত্মক। ‘থ্রি-বি’ ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে এপার ও ওপার বাংলা মিলিয়ে মোট ২০০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছিল সেবার। লন্ডভন্ড হয়ে গিয়েছিল উপকূল এলাকা।

এছাড়া ডিসেম্বর মাসে একটিও ঘূর্ণিঝড়ের ঝক্কি কখনও পোহাতে হয়নি বাংলার প্রতিবেশী রাজ্য ওড়িশাকে। সেখানে এর আগে ডিসেম্বরে ঘূর্ণিঝড় হয়নি। তবে জাওয়াদ ওড়িশা ও অন্ধ্র উপকূলের দিকেই এগিয়ে যাওয়ার কথা। তা যদি হয়, ওড়িশায় এই প্রথম ডিসেম্বরে ঘূর্ণিঝড় হবে।

সাধারণত ডিসেম্বর মাসে যে সমস্ত ঘূর্ণিঝড় দানা বাঁধে বঙ্গোপসগরের বুকে, সেগুলির অভিমুখ থাকে তামিলনাড়ু অন্ধ্রপ্রদেশের দিকেই। তাই বাংলা বা ওড়িশায় এই সময় সাধারণত ঘূর্ণিঝড় হয় না। তবে এবছর ব্যতিক্রম।

চলতি বছরের শুরু থেকেই ব্যাপক ঝড়বৃষ্টির সাক্ষী থেকেছে বাংলা। উত্তর থেকে দক্ষিণ, দাপিয়ে বেরিয়েছে বর্ষা। পুজোতেও আনন্দে জল ঢেলে দিয়েছে বর্ষার মেঘ। শীতেও তা থেকে রেহাই মিলল না। ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে গাঙ্গেয় বাংলার উপকূল সংলগ্ন জেলাগুলিতে তুমুল বৃষ্টির আশঙ্কা করা হচ্ছে। খরব দ্য ওয়ালের /২০২১/এনবিএস/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: