ঢাকা, শনিবার ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:১১ পূর্বাহ্ন
জাতীয় রাজনীতিতে কংগ্রেসকে দূরে রাখলে ফ্যাসিবাদী শাসনের ধারা শক্তিশালী হবে : শিবসেনা
Reporter Name

জাতীয় রাজনীতিতে কংগ্রেসকে দূরে রাখলে ফ্যাসিবাদী শাসনের ধারা শক্তিশালী হবে : শিবসেনা

মহারাষ্ট্রের শিবসেনা দল বলেছে, কংগ্রেস ছাড়া বিজেপি-বিরোধী শক্তিশালী জোট সম্ভব নয়। জাতীয় রাজনীতিতে কংগ্রেসকে দূরে রাখলে ফ্যাসিস্ট শাসক শক্তিশালী হবে। আজ (শনিবার) দলটির মুখপত্র ‘সামনা’য় ওই মন্তব্য করা হয়েছে।

সম্প্রতি মহারাষ্ট্র সফরের সময়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল সভানেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন জোট ‘ইউপিএ’ সম্পর্কে বলেন, ‘ইউপিএ’র কোনও অস্তিত্ব নেই। কার্যত কংগ্রেসকে বাদ দিয়েই তিনি বিজেপিবিরোধী জোট গড়ার পক্ষপাতী। ওই ইস্যুতে কংগ্রেসের শীর্ষনেতারা তৃণমূলের তীব্র সমালোচনা করেছেন।       

তৃণমূল নেত্রী মুম্বই থেকে ফেরার পর এবার শিবসেনা মুখপত্র ‘সামনা’য় আজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশংসা করেও কংগ্রেস সম্পর্কে তৃণমূল বিরোধী মত প্রকাশ করা হয়েছে। সামনায় বলা হয়েছে, ‘বাংলায় মমতা বাঘিনীর মতো লড়াই করে জয়ী হয়েছেন। তাঁর লড়াইকে দেশবাসী কুর্নিশ  জানিয়েছে। মমতা বাংলা থেকে কংগ্রেস, বাম, বিজেপিকে সাফ করে দিয়েছেন। কিন্তু জাতীয় রাজনীতিতে কংগ্রেসের স্থান নেওয়ার চেষ্টা ভয়ঙ্কর সিদ্ধান্ত হবে।’ কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ‘ইউপিএ’ জোটকে আরও শক্তিশালী করার পক্ষে মতপ্রকাশ করেছে শিবসেনা।        

শিবসেনা বলেছে, ‘মুম্বইয়ে এসেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশ্ন করেছেন, দেশে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ‘ইউপিএ’ কোথায়? বর্তমান পরিস্থিতিতে এই প্রশ্ন  অমূল্য। কিন্তু ‘ইউপিএ’ অস্তিত্বে নেই, একইভাবে ‘এনডিএ’ও নেই। মোদির দলের আজ ‘এনডিএ’র দরকার নেই। কিন্তু বিরোধীদের দরকার ‘ইউপিএ’।  ‘ইউপিএ’র সমান্তরালে আরেকটি জোট গঠন বিজেপির হাতকে শক্তিশালী করবে।’

ওই ইস্যুতে আজ (শনিবার)কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা প্রদীপ ভট্টাচার্য এমপি শিবসেনা মুখপত্রের মন্তব্য প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘সামনা’ রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট যথার্থভাবে অনুভব করতে পেরেছে। সেটার প্রতিফলন সংবাদপত্রে তুলে ধরেছে। সবেমাত্র মুম্বই থেকে ঘুরে এসেছেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মূল উদ্দেশ্য, বিজেপি বিরোধী শক্তিশালী জোট গঠন করতে হবে। কিন্তু ভিতরের উদ্দেশ্য হল কংগ্রেসকে বাদ দিয়ে করতে হবে। তাতে কোনও বিরোধী রাজনৈতিক দল রাজি নয়। আমাদের দল যখন বিরোধীদলের নেতাদের মিটিং ডাকে, তখন তৃণমূল বাদ দিয়ে সব  রাজনৈতিক দল উপস্থিত থাকে। কিন্তু তৃণমূল আসে না। তাদের মধ্যে একটা ভাব হচ্ছে এরকম যে, আমরা দূরে দূরে থাকব এবং আমরাই সবকিছু করব। এটা তো মনে রাখতে হবে যে এটা পশ্চিমবঙ্গ নয়, এটা ভারতবর্ষ, আরও ২৮টা রাজ্য আছে। ‘সামনা’ অনুভব করেছে ভারতবর্ষের সার্বিক চিত্রটা সামনে রেখে। সেজন্য তারা যেটা বলেছেন যথার্থই বলেছেন। এবং সেটা মাথায় রেখে এগোনো উচিত।’  

‘তৃণমূল কংগ্রেসকে তাদের চিন্তাধারা পরিবর্তন করে কংগ্রেসের সঙ্গে হাত মেলানো একান্ত প্রয়োজন। অন্যথায় সবটাই বিজেপির পক্ষে যাবে’ বলে কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা প্রদীপ ভট্টাচার্য এমপি মন্তব্য করেছেন। খবর পার্সটুডে/২০২১/এনবিএস/একে

ইউটিউবে এনবিএস-এর সব খবর দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি: