ঢাকা, রবিবার, জুলাই ২১, ২০২৪ | ৬ শ্রাবণ ১৪৩১
Logo
logo

বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে ইইউ পররাষ্ট্রনীতি-বিষয়ক প্রধানকে ৬ পার্লামেন্টারিয়ানের চিঠি


এনবিএস ওয়েবডেস্ক   প্রকাশিত:  ১৩ জুন, ২০২৩, ০৫:০৬ পিএম

বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে ইইউ পররাষ্ট্রনীতি-বিষয়ক প্রধানকে ৬ পার্লামেন্টারিয়ানের চিঠি

 বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে ইইউ পররাষ্ট্রনীতি-বিষয়ক প্রধানকে ৬ পার্লামেন্টারিয়ানের চিঠি

বাংলাদেশে নিযুক্ত ইইউ রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলি মঙ্গলবার (১৩ জুন) এ তথ্য জানিয়েছেন।
গতকাল সোমবার (১২ জুন) দেওয়া চিঠিতে বলা হয়েছে, এই চিঠির মাধ্যমে আমরা বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছি এবং আসন্ন সাধারণ নির্বাচনকে সামনে রেখে বাংলাদেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানাই।

চিঠিতে বলা হয়, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বর্তমান সরকার ২০০৯ সাল থেকে ক্ষমতায় রয়েছে। এই সময়ে বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য গণতান্ত্রিক স্থান সংকুচিত হয়েছে এবং এই সরকার মানুষের মৌলিক অধিকারের প্রতি সম্মান দেখাতে ব্যর্থ হয়েছে। ক্ষমতা সুসংহত করার জন্য বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে বিচারবহির্ভূত হত্যা, অপহরণ, নির্যাতন ও মিথ্যা মামলার আশ্রয় নিচ্ছে সরকার। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে, বিশেষ করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়নের পর থেকে সংবাদপত্রের স্বাধীনতাসহ মত প্রকাশের স্বাধীনতা ক্ষুণ্ন হচ্ছে।

চিঠিদাতা ওই পার্লামেন্টিরিয়ানরা হলেন ইভান স্টিফেনেক (স্লোভাকিয়া), মিকেইলা সিজদ্রোভা (চেক প্রজাতন্ত্র), অ্যান্দ্রে কোভাচভ (বুলগেরিয়া), কারেন মেলচিয়র (ডেনমার্ক), হ্যাভিয়ের নারত (স্পেন) ও হেইডি হাউতালা (ফিনল্যান্ড)।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতি-বিষয়ক প্রধান জোসেপ বোরেলকে ভূমিকা রাখতে আহ্বান জানিয়ে একটি চিঠি দিয়েছেন এই ৬ সদস্য। একইসঙ্গে সম্ভব হলে সেই নির্বাচন নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে করার কথাও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ চিঠির ব্যাপারে প্রথম আলো ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাংলাদেশ মিশনের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেছে। তিনি বলেছেন, ছয় পার্লামেন্ট সদস্যের মতামত একবারেই তাদের নিজস্ব।

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্যরা দাবি করেন, বাংলাদেশের র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) হেফাজতে নির্যাতন এবং অন্যান্য দুর্ব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে। নির্যাতন শুধুমাত্র সরকারের রাজনৈতিক বিরোধীদের ওপরেই হয় না, বাংলাদেশের সংখ্যালঘু খ্রিস্টান জনসংখ্যা সহ জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুরাও আক্রান্ত হচ্ছেন। বাংলাদেশে গত এক দশকে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড এবং জোরপূর্বক গুমের উচ্চ হার জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে।

মানবাধিকার লঙ্ঘন বন্ধ, বিএনপি চেয়ারপাসন খালেদা জিয়াকে মুক্তি এবং চলমান সংকটের টেকসই ও গণতান্ত্রিক সমাধানের জন্য বিএনপিসহ অন্যান্য প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সরকারের আলোচনার কথাও বলা হয়েছে সেই চিঠিতে।

তারা বলেন, ক্ষমতা সংহত করার জন্য সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের, নির্যাতন, অপহরণ ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতাসহ মতপ্রকাশের স্বাধীনতা খর্ব করা হয়েছে, বিশেষ করে ২০১৮ সালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করার পর থেকে এটা ঘটেছে।

চিঠিতে এও বলা হয়েছে, গত এক দশকে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ও গুমের হার বেড়ে যাওয়ায় জাতিসংঘের কমিটি অ্যাগেইনস্ট টর্চারসহ (সিএটি) বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সংস্থা উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

২০২৩ সালের শেষে কিংবা ২০২৪ সালের শুরুতে অনুষ্ঠেয় দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের দিকে গুরুত্ব দেওয়া কথা উল্লেখ করে চিঠিতে বলা হয়েছে, আমাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে, বাংলাদেশে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য কার্যকর কোনো পদ্ধতি এখন নেই, যার মাধ্যমে জনগণ তাদের পছন্দের প্রতিনিধি বাছাইয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন।

বাংলাদেশের দশম ও একাদশ সংসদ নির্বাচনে জালিয়াতি, কারচুপির ঘটনা ঘটে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

চিঠিতে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্যরা বলেছেন, বিএনপিসহ প্রধান রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচন বর্জন করায় দশম সাধারণ নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হয়নি এবং একাদশ নির্বাচন শেষ হয়েছে ‘আগের রাতে’। ফলস্বরূপ সরকার বাংলাদেশের জনগণের কাছ থেকে কোনো ম্যান্ডেট পায়নি এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ থেকেও স্বীকৃতি পায়নি।

এ প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশে অবাধ, সুষ্ঠু ও পক্ষপাতহীন নির্বাচন অনুষ্ঠানে ইউরোপীয় ইউনিয়নের উদ্যোগ চেয়ে চিঠিতে ইইউ পার্লামেন্ট সদস্যরা বলেছেন, আমরা মনে করি, বাংলাদেশ ব্যবসা ও উন্নয়ন সহযোগিতার ক্ষেত্রে আমাদের দীর্ঘদিনের অংশীদার হওয়ার কারণে ইউরোপীয় ইউনিয়নকে বাংলাদেশের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জোরালো কারণ রয়েছে।

ওই সদস্যরা আরও বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের মানবাধিকারের বিষয়গুলো নিয়ে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে শুধু ধারাবাহিক আলোচনা চালিয়ে যাওয়াই নয়, দৃশ্যমান অগ্রগতিও হতে হবে। এ ক্ষেত্রে মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের ইউরোপীয় অর্থনৈতিক অঞ্চলে (ইইএ) প্রবেশে বিধিনিষেধ আরোপ অথবা বাংলাদেশকে জিএসপি প্লাস সুবিধা দেওয়া হবে কি না, সে সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে এসব শর্ত আরোপ ও মনে করিয়ে দেওয়ার মতো পদক্ষেপ নেওয়া যায়।সূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া বাংলা  

 এনবিএস/ওডে/সি