ঢাকা, বুধবার, মার্চ ২২, ২০২৩ | ৮ চৈত্র ১৪২৯
Logo
logo

সাদা হয়ে গেছে শ্যামবাজারের নেতাজি, বরফে ঢেকেছে ভিক্টোরিয়া! মস্করায় মজেছে মরশুমের শীতলতম দিন


এনবিএস ওয়েবডেস্ক   প্রকাশিত:  ০৬ জানুয়ারী, ২০২৩, ১১:০১ পিএম

সাদা হয়ে গেছে শ্যামবাজারের নেতাজি, বরফে ঢেকেছে ভিক্টোরিয়া! মস্করায় মজেছে মরশুমের শীতলতম দিন

সাদা হয়ে গেছে শ্যামবাজারের নেতাজি, বরফে ঢেকেছে ভিক্টোরিয়া! মস্করায় মজেছে মরশুমের শীতলতম দিন


 জাঁকিয়ে ঠান্ডা পড়েছে কলকাতায়। এতটাই, যে রীতিমতো বরফ পড়ছে চারপাশে! ভিক্টোরিয়া থেকে হাওড়া ব্রিজ, কল্লোলিনী কলকাতার নানা প্রান্ত ঢেকে গেছে স্নো-ফলে (Kolkata Snowfall)।

হলুদ ট্যাক্সির গায়ে তুষারের চাদর যেন এক আলাদা সৌন্দর্য যোগ করেছে! ভাবছেন, এসব আবার কী! আজ, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে গোটা সোশ্যাল মিডিয়া এমনই ভাবছে এবং দেখছে! এদিন সকাল থেকেই ভাইরাল হয়েছে কলকাতায় বরফ পড়ার এমনই একাধিক ছবি।

হাওড়া ব্রিজের নীচ দিয়ে বয়ে যাওয়া গঙ্গার বুকে বরফের স্তর, ভিক্টোরিয়ার গোটা প্রাঙ্গণে সাদা বরফের গালিচা, শ্যামবাজারের পাঁচমাথার মোড়ের আকাশ থেকে ঝরে পড়ছে সাদা তুলোর মতো তুষার। শীতের সকালে চায়ের কাপ হাতে নিয়ে এইসব ছবি দেখতে দেখতে হেসে গড়িয়ে পড়েছেন নেটিজেনরা। মুহূর্তেই ভাইরাল কলকাতায় তুষারপাতের এইসব আশ্চর্য ছবি। 

জানা গেছে, ইনস্টাগ্রামের ‘কলকাতার গল্প’ নামের একটি প্রোফাইল থেকে প্রথম পোস্ট করা হয়েছিল বরফে ঢাকা কলকাতার একগুচ্ছ ছবি। একথা বলাই বাহুল্য, শহরে মোটেই তুষারপাত হয়নি, এগুলি নকল ছবি। কিন্তু সে নকল এমন নিখুঁত ভাবে করা, দেখে যেন চোখ ফেরানো যায় না!

মনে করা হচ্ছে, কোনও এডিটিং মাধ্যমে নয়, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা অর্থাৎ আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স (এআই) কাজে লাগিয়ে ছবিগুলি তৈরি করা হয়েছে। সেজন্যই সেগুলি একেবারে ‘সত্যি’! ইনস্টাগ্রামের পরে ফেসবুকে রীতিমতো হইহই করে ছড়িয়ে পড়েছে এই ছবির গুচ্ছ।

তথ্য বলছে, আজ, বৃহস্পতিবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১২.৭ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড, যা স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রি কম। জেলায় আরও ২-৩ ডিগ্রি কম। উত্তুরে হাওয়ার দাপটেই এই পারদ পতন বলে জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। এই প্রথম ১২ ঘরে নেমেছে কলকাতার তাপমাত্রা। আজই মরশুমের শীতলতম দিন বলে ঘোষণা করা হয়েছে।(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({}); 

এমনই পরিস্থিতিতে সমাজমাধ্যমে শীত নিয়ে নানা মজার কথা ছড়িয়ে পড়েছে। কেউ বলছেন, এদিন স্নান করতে পারলে তাঁর সাহসিকতা পুরস্কার পাওয়া উচিত, কেউ বলছেন বরফ পড়ার মতো জবুথবু শীত। কেউ আবার এসব পার করে দাবি করেছেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নাকি শীতকালে স্নান করতে গিয়েই লিখেছিলেন ‘আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে!’ এটি নাকি তাঁর ‘বাথরুম’ পর্যায়ের গান! এসব মজার মাঝে সত্যিই বরফ পড়ে গেল কলকাতায়। মজা করেই!

খবর দ্য ওয়ালের/এনবিএস/২০২৩/একে