ঢাকা, শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০২৪ | ৪ শ্রাবণ ১৪৩১
Logo
logo

স্থানীয় পর্যায়ে ১ কোটি ১০ লাখ লিটার সয়াবিন তেল কিনবে সরকার


এনবিএস ওয়েবডেস্ক   প্রকাশিত:  ২২ মে, ২০২৪, ০১:০৫ পিএম

স্থানীয় পর্যায়ে ১ কোটি ১০ লাখ লিটার সয়াবিন তেল কিনবে সরকার

স্থানীয় পর্যায়ে ১ কোটি ১০ লাখ লিটার সয়াবিন তেল কিনবে সরকার

স্থানীয়ভাবে উন্মুক্ত দরপত্র পদ্ধতিতে ১ কোটি ১০ লাখ লিটার সয়াবিন তেল ক্রয় এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ৩০ হাজার মেট্রিক টন বাল্ক গ্র্যানুলার ইউরিয়া সার আমদানি করবে সরকার।  

মঙ্গলবার সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’র বৈঠকে এ ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। 

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সমন্বয় ও সংস্কার সচিব মোঃ মাহমুদুল হোসাইন খান সাংবাদিকদের জানান। সরকার ১ কোটি পরিবারকে যে সাপোর্ট দিচ্ছে এর আওতায় ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)-এর জন্য স্থানীয়ভাবে উন্মুক্ত দরপত্র পদ্ধতিতে ১ কোটি ১০ লাখ লিটার সয়াবিন তেল কেনার প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়া হয়েছে। সর্বনিম্ন দরদাতা হিসেবে সুপার অয়েল রিফাইনারি লিমিটেড থেকে এ তেল কেনা হবে। এতে ব্যয় হবে ১৮২ কোটি ৪০ লাখ টাকা। প্রতি লিটার সয়াবিত তেলের দাম পড়বে ১৫২ টাকা ৪৫ পয়সা। আগের মূল্য ছিল ১৫২ টাকা ৯৮ পয়সা। 

তিনি জানান, বৈঠকে চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জন্য রাষ্ট্রীয় চুক্তির মাধ্যমে সংযুক্ত আরব আমিরাত-এর ফার্টিগ্লোব ডিস্ট্রিবিউশন লিমিটেড থেকে ৮ম লটে ৩০ হাজার মেট্রিক টন বাল্ক গ্র্যানুলার ইউরিয়া সার আমদানির একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন (বিসিআইসি) এ সার ক্রয় করবে। প্রতি মেট্রিক টনের মূল্য ২৭১.৫০ ডলার  (পূর্বমূল্য ছিল ২৮৪.১৭ ডলার) হিসাবে এতে বাংলাদেশি টাকায় ব্যয় হবে ৯৫ কোটি ৭০ লাখ ৩৭ হাজার ৫০০ টাকা।

সমন্বয় ও সংস্কার সচিব জানান, বৈঠকে ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের পল্লী এলাকায় বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন ও ক্ষমতা বাড়াতে ১ লাখ ২৬ হাজার ৩৫৬টি বিদ্যুৎ খুঁটি ও বৈদ্যুতিক তার কেনা সংক্রান্ত ৪টি পৃথক ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে।  

এর মধ্যে বৈদ্যুতিক খুঁটি ক্রয়ে লট-১-এর আওতায় ৬৩ হাজার ১৭৮টি বৈদ্যুতিক খুঁটি (এসপিসি পোল) ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্র পদ্ধতিতে এই পোল কেনা হবে। কনফিডেন্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিটেড, কনটেক কন্সট্রাকশন লিমিটেড, দাদা ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড এবং পোলস অ্যান্ড কনক্রিট লি. বাংলাদেশ এই পোলগুলো সরবরাহ করবে। এতে ব্যয় হবে ২১৩ কোটি ১০ লাখ ৯৬ হাজার ৩৭০ টাকা।

এছাড়া প্রকল্পের লট-২ এর আওতায়  কেনা হবে আরো ৬৩ হাজার ১৭৮টি  এসপিসি পোল।  বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি লিমিটেড বৈদ্যুতিক পোলগুলো সরবরাহ করবে। এতে ব্যয় হবে ২১২ কোটি ৯৭ লাখ ১০ হাজার ৩৭ টাকা।

প্রকল্পের অন্য একটি প্যাকেজ ১১ কেভি আন্ডারগ্রাউন্ড কেবল ক্রয়ের প্রস্তাবে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। চীনের জংটিয়ান টেকনোলজি সাবমেরিন কেবলস কোম্পানি লিমিটেড এই ক্যাবল সরবরাহ করবে। এতে ব্যয় হবে ৪৩ কোটি ৮১ লাখ ৪৬ হাজার ৩১৯ টাকা।

অপর এক প্রস্তাবে আরেকটি প্যাকেজের আওতায় ৩৩ কেভি আন্ডারগ্রাউন্ড ক্যাবল ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। বিআরবি কেবল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড এই কেবল সরবরাহ করবে। এতে ব্যয় হবে ৬৮ কোটি ১৬ লাখ ৭৫ হাজার ১০০ টাকা।

সমন্বয় ও সংস্কার সচিব জানান, বৈঠকে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সড়কবাতি আধুনিকায়নে ‘মর্ডানাইজেশন অব সিটি স্ট্রিট লাইট সিস্টেম অ্যাট ডিফারেন্ট এরিয়া আন্ডার চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন’ শীর্ষক প্রকল্পের ক্রয় প্রস্তাবে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ভারতীয় নমনীয় ঋণে এটি বাস্তবায়ন করা হবে। এ কাজটি করবে ভারতীয় প্রতিষ্ঠান সাপুর্জি পালোনজি অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড।  এতে ব্যয় হবে ২৫৮ কোটি ৬০ লাখ ৩৯ হাজার ৭০৯ টাকা।