ঢাকা, বুধবার, জুলাই ২৪, ২০২৪ | ৯ শ্রাবণ ১৪৩১
Logo
logo

রামগড়ের কলাবাড়ি এলাকায় উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন জেলা প্রশাসক


এনবিএস ওয়েবডেস্ক     প্রকাশিত:  ২৭ অক্টোবর, ২০২২, ০৯:৪৫ পিএম

রামগড়ের কলাবাড়ি এলাকায় উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন জেলা প্রশাসক

রামগড়ের কলাবাড়ি এলাকায় উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন জেলা প্রশাসক

রামগড়ের প্রত্যন্ত অঞ্চল পাতাছড়া ইউনিয়নের কলাবাড়ী এলাকায় কলাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের  ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন খাগড়াছড়ির  জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস।

পার্বত্য খাগড়াছড়ি  জেলার  রামগড়ের পাতাছড়া ইউনিয়নের কলাবাড়ী এলাকায় এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে স্থানীয় কলাবাড়ি মসজিদের পরিচালনা পর্ষদের দান করা তিন একর ভূমিতে কলাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয় । 

বৃহস্পতিবার (২৭ অক্টোবর) বেলা ১২টায় জেলা প্রশাসনের অর্থায়নে এই বিদ্যালয় নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধান অতিথি খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার খোন্দকার মো. ইখতিয়ার উদ্দিন আরাফাতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মানস চন্দ্র দাস, অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মিজানুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোস্তফা হোসেন, ২নং পাতাছড়া ইউপি চেয়ারম্যান কাজী নুরুল আলম আলমগীর।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে শিক্ষার কোন বিকল্প নেই'। সমতলের সাথে তাল মিলিয়ে পাহাড়েও উন্নয়ন অব্যাহত রেখেছে বর্তমান সরকার। তবে শিক্ষার ক্ষেত্রে পিছিয়ে থাকায় পাহাড়ে বসবাসরত সকল সম্প্রদায়ের  জীবনমান উন্নয়নের কথা বিবেচনা করে পাহাড়ের দুর্গম এলাকায় শিক্ষার আলো ছড়াতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মাণে আর্থিক সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। 
এসময় জেলা প্রশাসক কলাবাড়ি বিদ্যালয় নির্মাণে ৫ লাখ টাকার চেক প্রদান ও বিদ্যালয়ের মাঠ সম্প্রসারণের জন্য আরো ৩ লক্ষ টাকা প্রদানের ঘোষণা দেন।

সভায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলম আলমগীর বলেন বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার ফলে আশেপাশের ৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের  দরিদ্র ছাত্র-ছাত্রীদের  প্রাথমিক শিক্ষার পর আর পাঠ চুকাতে হবে না, অনায়াসে তারা মাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে। আগামী জানুয়ারি থেকে বিদ্যালয়ে পাঠদান শুরু হবে বলে তিনি জানান।

 সভায়  স্থানীয় হেডম্যান, কারবারি, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, সরকারি কর্মকর্তা ও গণমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।