ঢাকা, শুক্রবার, এপ্রিল ১৯, ২০২৪ | ৫ বৈশাখ ১৪৩১
Logo
logo

‘কুরআন পোড়ানোর পর ন্যাটো সদস্য হতে সমর্থন দেয়া হবে না’


এনবিএস ওয়েবডেস্ক   প্রকাশিত:  ২৪ জানুয়ারী, ২০২৩, ১১:০১ পিএম

‘কুরআন পোড়ানোর পর ন্যাটো সদস্য হতে সমর্থন দেয়া হবে না’

‘কুরআন পোড়ানোর পর ন্যাটো সদস্য হতে সমর্থন দেয়া হবে না’

মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো সামরিক জোটের সদস্য হতে সুইডেনকে সমর্থন দেবে না তুরস্ক। একথা সুস্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান। গতকাল (সোমবার) তিনি বলেন, পবিত্র কুরআন পোড়ানোর পর সুইডেন আর তুরস্কের সমর্থন আশা করতে পারে না।

প্রেসিডেন্ট এরদোগান কড়া ভাষায় সুইডেনকে বলেছেন, “ন্যাটোতে যোগ দিতে সুইডেনের আর আমাদের সমর্থন আশা করা উচিৎ নয়। এটা স্পষ্ট যে, যারা আমাদের দেশের দূতাবাসের সামনে এই ধরনের অপমানজনক ঘটনা ঘটিয়েছে, তারা তাদের আবেদনের বিষয়ে আমাদের কাছ থেকে আর কোনো সাহায্য আশা করতে পারে না।”

সুইডেন গত বছর ন্যাটো সামরিক জোটের সদস্য হওয়ার আবেদন করে। কিন্তু ন্যাটোতে নতুন সদস্য যুক্ত হতে হলে সব সদস্য দেশের সমর্থন দরকার হয়। তুরস্ক প্রথম থেকেই সুইডেনের আবেদনে সমর্থন দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল। কারণ হিসেবে তুরস্ক বলেছিল, সুইডেন কুর্দি ‘সন্ত্রাসীদের’ আশ্রয় দিয়েছে।

তুরস্কে কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টি বা পিকেকে সন্ত্রাসী দল হিসেবে নিষিদ্ধ। তবে নানা আলোচনার পর সুইডেন ন্যাটোর সদস্য পদ পেতে কুর্দি সন্ত্রাসীদের তুরস্কের হাতে তুলে দিতে সম্মতও হয়। কিন্তু সর্বশেষ সুইডেনের স্টকহোমে সরকারের অনুমতি নিয়ে উগ্র ডানপন্থি নেতা রাসমুস পালুদান কোরআন পুড়িয়েছেন। এতে প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হয়েছে তুরস্ক। এক বিবৃতি দিয়ে তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, “আমাদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থের ওপর জঘন্য আক্রমণের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি আমরা। বাক স্বাধীনতার নামে মুসলিমদের লক্ষ্য করে, আমাদের পবিত্র মূল্যবোধকে অপমান করছে এমন মুসলিমবিরোধী কার্যক্রমের অনুমোদন সত্যিই অগ্রহণযোগ্য।”

সুইডেন কর্তৃপক্ষ রোববার ওই কুরআন পোড়ানোর অনুমতি দিয়েছিল। ডেনিশ সরকার বলেছে, এটি বাক-স্বাধীনতার অংশ। জবাবে এরদোগান বলেছেন, “এটি শুধু ধর্ম অবমাননা; এটি বাক স্বাধীনতা নয়।” সুইডেন সরকার পবিত্র কুরআন পোড়ানোর অনুমতি দিলেও পরে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী টোবিয়াস বিলস্ট্রম এর সমালোচনা করেন।

রাশিয়া ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর পর ফিনল্যান্ড ও সুইডেন ন্যাটোতে যোগদানের জন্য আবেদন করে। এ জন্য তাদের তুরস্কের সমর্থন দরকার ছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক কুরআন পোড়ানোর ঘটনা সেই সম্ভাবনাকে অনিশ্চয়তায় ফেলেছে।
খবর পার্সটুডে/এনবিএস/২০২৩/একে